১১ ডিসেম্বর ২০১৯
যুবদল-স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি

ভাগ্য খুলছে দুই শতাধিক সাবেক ছাত্রনেতার

-

নির্ধারিত সময়ে কেন্দ্রীয় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে পারেনি জাতীয়বাদী যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দল। ফলে যুবদলের বর্তমান পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগমুহূর্তে পূর্ণাঙ্গ হচ্ছে জাতীয়তাবাদী যুবদলের কমিটি। অন্য দিকে গত ২৭ অক্টোবর মেয়াদ শেষ হওয়া সাত সদস্যবিশিষ্ট জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটিও পূর্ণাঙ্গ করা হচ্ছে। এ মাসেই উভয় সংগঠনের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে জমা দেয়া হবে।
এ দিকে দুই সংগঠনের কমিটি সামনে রেখে সাবেক ছাত্রনেতাদের ভাগ্য খুলতে যাচ্ছে। যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ঠাঁই পেতে যাচ্ছেন বিগত আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ছাত্রদলের অন্তত দুই শতাধিক নেতা। তবে উভয় সংগঠনের নিষ্ক্রিয় প্রায় তিন শতাধিক নেতা বাদও পড়বেন। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের যাচাই-বাছাই। এ সপ্তাহের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি বিএনপির কাছে জমা দিবেন সংশ্লিষ্টরা। যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে আলাপকালে এমনটিই জানা গেছে। অবশ্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান উভয় সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সাথে স্কাইপে বৈঠক করে গত ২০ অক্টোবরের মধ্যে যুবদল এবং ২৫ অক্টোবরের মধ্যে স্বেচ্ছাসেবক দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়া তালিকা জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। দুই সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার খবরে পদপ্রত্যাশীরা সক্রিয় হয়েছেন। তাদের অনেকেই নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয় ও বিভিন্ন সভা-সমাবেশে হাজির হচ্ছেন। অনেকে মোবাইলে দলের সিনিয়র এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে লবিং করছেন ভালো পদের আশায়। আগামীতে বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবকদলসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনে ফের সক্রিয় হয়ে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে ভূমিকা রাখতে চান তারা।
যুবদল : জানা গেছে, বর্তমানে যুবদলের কেন্দ্রীয় আংশিক কমিটির নেতৃত্বে রয়েছেন শুধু পাঁচজন নেতা। ২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি রাতে সংগঠনের কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও মহানগর দক্ষিণের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। ২০২০ সালের ১৬ জানুয়ারি যুবদলের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হবে। এরপর কাউন্সিলের মাধ্যমে যুবদলের নতুন নেতা নির্বাচন করা করতে তারেক রহমান যুবদল নেতৃবৃন্দকে নির্দেশ দেন। যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পেতে সাবেক ছাত্রনেতারা লবিং করে চলেছেন। পদের আশায় প্রায় ৭০০ জন নেতা নিজেদের জীবনবৃত্তান্ত যুবদলের শীর্ষ নেতাদের কাছে জমা দিয়েছেন। এত ব্যক্তির মধ্যে ২৭১ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি নির্ধারণ করতে রীতিমতো গলদঘর্ম যুবদলের নেতারা। তবে এসব পদপ্রত্যাশী নেতাদের মধ্যে একেবারে নতুন কমপক্ষে শতাধিক ছাত্রনেতা ঠাঁই পাবেন যুবদলে। পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে থাকবেন কিছু জেলা কমিটির নেতা, ছাত্রদলের সাবেক নেতা এবং যুবদলের আগের (আলাল-নীরব) কমিটির পদবঞ্চিত নেতা। অবশ্য যুবদলের আগের কমিটির নেতাদের মধ্যে যারা এখনো সক্রিয় কেবল তাদেরই পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রাখা হবে। যারা নিষ্ক্রিয়, তারা বাদ পড়বেন। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের যাচাই-বাছাই। তিন থেকে চার দিনের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে জমা দেয়া হবে। এরপরই তা ঘোষণা করা হবে।
যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নয়ন নয়া দিগন্তকে জানান, যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন শেষ পর্যায়ে। বহু পদপ্রত্যাশী তাদের জীবনবৃত্তান্ত আমাদের কাছে জমা দিয়েছেন। এবারো ২৭১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবে। ছাত্রদলের সাবেক নেতাসহ ত্যাগীদের সর্বোচ্চ মূল্যায়নের চেষ্টা চলছে। শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ কমিটি আমরা বিএনপির হাইকমান্ডের কাছে জমা দিবো ইনশাআল্লাহ।
স্বেচ্ছাসেবক দল : জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের আংশিক কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর। গত ২৭ অক্টোবর এ সংগঠনের আংশিক কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। দীর্ঘ সময়েও কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক দল পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেনি। অবশেষে তারেক রহমান গত ২০ অক্টোবরের মধ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের এবং ২৫ অক্টোবরের মধ্যে স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার নির্দেশ দেন। কিন্তু তা-ও হয়নি।
জানা যায়, স্বেচ্ছাসেবক দলের আগের কমিটি (সোহেল-সপু) ছিল ৩৩১ সদস্যবিশিষ্ট। এবার স্বেচ্ছাসেবক দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবে ২০১ সদস্যবিশিষ্ট। এ ক্ষেত্রে আগের কমিটির সক্রিয় নেতা, জেলা নেতা এবং ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের পদায়ন করা হবে। যারা নিষ্ক্রিয় তাদের রাখা হবে না। এবারের কমিটিতে ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের মধ্যে অন্তত ৮০ জনকে রাখা হবে। স্বাভাবিকভাবেই আগের কমিটির শতাধিক নেতা বাদ পড়বেন। স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি গঠনে চলছে শেষ মুহূর্তের যাচাই-বাছাই। পদপ্রত্যাশীরা চালাচ্ছেন লবিং-তদবির। তবে যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটি পূর্ণাঙ্গ হলে স্বেচ্ছাসেবক দলও তাদের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করে জমা দেবে। এরপর তা ঘোষণা করা হবে। স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি গোলাম সারোয়ার নয়া দিগন্তকে বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার কাজ করছে। পদপ্রত্যাশীদের জীবনবৃত্তান্ত যাচাই-বাছাই শেষে তা চূড়ান্ত করা হবে। শিগগিরই স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি পূর্ণাঙ্গ হবে ইনশাআল্লাহ।
পদপ্রত্যাশীরা তৎপর : এ দিকে যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার খবরে দীর্ঘদিন পদবঞ্চিত থাকায় পদপ্রত্যাশী নেতারা সক্রিয় ও তৎপর হচ্ছেন। সংশ্লিষ্টরা জানান, ওয়ান-ইলেভেনের জরুরি অবস্থা পরবর্তী অন্তত এগারো বছরের রাজনীতিতে তারা খেয়ে না খেয়ে মাটি কামড়ে পড়ে ছিলেন। অনেকেই জেল খেটে, পালিয়ে পালিয়ে বেড়িয়ে একে একে ঝরে গেছেন। অনেকেই রাজনীতিতে কিছুই পাননি। অথচ দলের ঘানি টানতে টানতে তারা এখন ক্লান্ত, নিষ্ক্রিয়। হয়তো এক সময় হারিয়েই যাবেন। ছাত্রদলের বিগত তিনটি কমিটির সাবেক নেতাদের প্রায় সবারই অংশগ্রহণ আছে বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে। যারা দুঃসময়ে শত শত লোক নিয়ে মিছিল মিটিং করেছে। কিন্তু উভয় সংগঠনের সাবেক এবং ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের বেশির ভাগই এখন সাংগঠনিক পরিচয়হীন। রাজনীতিতে কোনো পদ না থাকায় অলস সময় পার করছেন। তবে গত ১৮ সেপ্টেম্বর কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় সামনে আশার আলো দেখছেন সাবেক ছাত্রনেতারা। তাদের দাবি দলের হাইকমান্ডের উচিত তাদের মূল্যায়ন করা।


আরো সংবাদ

সকল