২৪ অক্টোবর ২০১৯

‘ইয়াসিন ম্যাজিকে’ ভুটানকে উড়িয়ে দিলো বাংলাদেশ

‘ইয়াসিন ম্যাজিকে’ ভুটানকে উড়িয়ে দিলো বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক নাবিব নেওয়াজ জীবন। জোড়া গোল ছিল তার। কাল তিনি গোল পাননি। অবশ্য তাতেও কোনো সমস্যা হয়নি। ডিফেন্ডার ইয়াসিন খানের জোড়া গোলে দুই ম্যাচেই ভুটানের বিপক্ষে জয় বাংলাদেশ দলের। ২-০তে জিতে তারা এখন এশিয়ার সেরা কাতারের মুখোমুখি হওয়ার অপেক্ষায়। কাল ফিফা প্রীতি ম্যাচে এই জয়ের ফলে র‌্যাংকিংয়ে উন্নতি হবে রাল সবুজদের।

একাদশে তিন পরিবর্তন এনে বৃহস্পতিবার ভুটানের বিপক্ষে খেলতে নামা বাংলাদেশ দল। গোলরক্ষক রানার জায়গায় সোহেল,  ইব্রাহিমের বদলে রবিউল, এবং বিশ্বনাথের পরিবর্তে সুশান্ত। প্রথম ম্যাচে ৪-১ এ জয়ের পর কাল বাড়তি আত্মবিশ্বাস ভর করেছিল জেমি ডে বাহিনীর  মনে। অন্য দিকে আগের তুলনায় অপেক্ষাকৃত শুকনা মাঠ পেয়ে সাবলীল ভুটান দল। যারা নিজ দেশে টার্ফের মাঠে খেলে অভ্যস্ত। ফলে বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু শুরু থেকে দাপট পাহাড়ী দেশটির। ১০ ও ১২ মিনিটে দুটি গোলের সুযোগও তৈরী করে তারা। কিন্তু ২২ মিনিটে কার্যত: খেলার ধারার বিপরীতে বাংলাদেশ দলের গোল ম্যাচ থেকে ছিটকে ফেলে ভুটানীদের।  এরপরও টেনশন ছিল। তবে ৬৫ মিনিটে আবার গোল। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে জয় জামাল ভ’ঁইয়াদের। এতেই ফিফা র‌্যাংকিং বাড়ানোর জন্য কাংখিত জয় বাংলাদেশ দলের। যা তাদের ১০ অক্টোবর এই মাঠে কাতারের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে ভালো খেলার প্রেরণাও।

ম্যাচের পাঁচ মিনিট বয়সে ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়েন রাইট ব্যাক সুশান্ত ত্রিপুরা। তার বদলে রায়হান হাসান  তিন বছর জাতীয় দলের খেলতে নেমে ২২ মিনিটে তার ট্রেড মার্ক যে লম্বা থ্রো করেন তাতেই ডিফেন্ডার ইয়াসিন খানের নেয়া হেড সোজা ভুটানের জালে। এর আগে ১০ মিনিটে  কাবিরাজ রাইয়ের শট ঠেকান বাংলাদেশ কিপার। ১২ মিনিটে সোহেলের ভুলে ভুটান চান্স পেলেও তাতে বিপদ হয়নি। গোলের পর ম্যাচ চলে আসে বাংলাদেশের দখলে। ৩০ মিনিটে অল্পের জন্য গোল পাননি গত ম্যাচে জোড়া গোল করা স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ জীবন। রবিউলের ক্রসে তার হেড লক্ষভ্রষ্ট হয়। পরের মিনিটেই সোহেল রুখে দেন ভুটানের দাওয়া সেরিংয়ের শট।

বিরতির পর বাংলাদেশ কোচ একের পর এক সাত ফুটবলার পরিবর্তন করেন। এতে ভুটানও খেই হারিয়ে ফেলে। ৫৭ মিনিটে রায়হানের থ্রোতে বক্সে জটলা হলে তাতে তীব্র ভলি নেন জীবন। কিন্তু তা গোললাইনের উপর দাঁড়িয়ে থাকা বিপক্ষ ডিফেন্ডারের গায়ে লাগায় গোল বঞ্চিত জীবন।

নিজ ক্লাব বসুন্ধরা কিংসে সাইড বেঞ্চে এবং খেললেও ডিফেন্স পজিশনে। এরপরও কোচ জেমি কাল সুফিলকে স্ট্রাইকার হিসেবেই খেলান। কিন্তু কপাল মন্দ সুফিলের। তার একের পর এক চেষ্টা ব্যর্থ হয়। তা বার উচিয়ে যাওয়ায় এবং কিপার সেভ করায়। তবে বাংলাদেশের টেনশন মুক্তি  ৬৫ মিনিটে। আরিফের ক্রসে ইয়াসিনের হেডে জয় নিশ্চিত বাংলাদেশের। এরপর ভুটানের কিপার জাম্পেলের দৃঢ়তায় গোল পাননি ইব্রহিম- জামালরা। এই ম্যাচে ২৩ মিনিটে বদলী হিসেবে নেমে জাতীয় দলে অভিষেক ঘটান তরুণ ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান।


আরো সংবাদ