১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

বয়স চুরির সাফ ফুটবল

এক সময় বয়স চুরির হিড়িক লেগে যেত ফিফা এবং এএফসির আসরে। পরবর্তীতে এই বয়স চোরদের নিষিদ্ধ করা শুরু করে ফিফা এবং এএফসি। শাস্তি দেয়া শুরু হয় সংশ্লিষ্ট ফেডারেশনকে। ফুটবলাদের হাতের হাঁড়ের মেডিক্যাল টেস্টের পর বয়স নির্ধারণ শুরু হয়। এতে হুশ হয় সব দেশের ফেডারেশনের।

ফলে এএফসি এবং ফিফার টুর্নামেন্টের আগে সবাই তাদের খেলোয়াড়দের এম আর আই করিয়ে সঠিক বয়সের ফুটবলারদেরই দলে নিচ্ছে। কিন্তু সাফের বয়স ভিত্তিক ফুটবলে বলা হলেও এখনও এই এম আর আই করিয়ে খেলোয়াড়দের বয়স পরীক্ষা হচ্ছে না। ফলে এই আঞ্চলিক ফুটবল আসরের অনূর্ধ্ব-১৫ বিভাগে বয়সচুরির মহোৎসব নেমেছে দল গুলো। প্রতি আসরেই বয়স চুরির অভিযোগ।

এই তালিকায় অবশ্য তিন-চারটি দেশকেই দায়ী করা হয়। সর্বশেষ অনূর্ধ্ব-১৫ পুরুষ সাফ শেষে বাংলাদেশ দলের ১১ ফুটবলারকে বাদ দেয়া হয় বেশী বয়স এবং বাজে পারফরম্যান্সের কারনে। এই বেশী বয়স্কদের নিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ আসরে খেললে যে নিশ্চিত শাস্তি। এই মুহুর্তে ভুটানে চলছে অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা সাফ। এতেই বেশী বয়স্ক ফুটবলারের উপস্থিতি। ভারত অভিযোগ করেছে, বাংলাদেশ দলে বয়স্ক ফুটবলার আছে। আর ভারতীয় দলে ২৩ জনের মধ্যে ২১ জনই ১৮/১৯ বছরের। এমন অভিযোগ বাংলাদেশ এবং ভুটানের। নেপাল দলেও বয়স চোরের উপস্থিতির অভিযোগ প্রতিদ্বন্দ্বীদের। ভুটানের বিপক্ষে ভারতের ১০-১ গোলে জয়ের নেপথ্য এই বয়স্ক ফুটবলারের সুবিধা নিয়েই। এমনটা জানান ভুটানের কোচ ইয়েসি ওয়াংচুকের।

বেশী বয়স্ক ফুটবলারদের বিপক্ষে খেলার ঝুঁকির মধ্যেই আজ ভারতের সামনে পড়ছে বাংলাদেশ দল। এতে অল্প বয়সের লালসবুজ জার্সীধারীদের মারাত্মক ইনজুরির শংকা আছে। টেনশনের সাথেই কথাটি বললেন বাংলাদেশ কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন। ছোটনের মতে, ‘ভারত যেন এই আসরে এসেছে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিতে। তাদের দলের ২৩ জনের মধ্যে ২১ জনই অনূর্ধ্ব-১৫ এর চেয়ে বেশী বয়স্ক। নেপাল দলেও দুই জনের বয়স বেশী। ’ তার সাথে একই সুরে কথা বললেন বাংলাদেশ দলের সহকারী কোচ মাহাবুবুর রহমান লিটুও। ছোটনের আশংকা এই বড় বড় ফুটবলারদের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে আজ এবং ১৫ অক্টোরব ইনজুরিতে পড়তে পারেন বাংলাদেশ দলের অল্প বয়স্ক খেলোয়াড়েরা।

বাংলাদেশ কোচ জানান, বয়স ভিত্তিক ফুটবলে এক বছরের বেশী ফুটবলারের বিপক্ষেই খেলা কঠিন। সেখানে রেহেনা, রিপা, নওশনদের খেলতে হচ্ছে দুই-তিন বছরের বেশী ফুটবলারের বিপক্ষে। এতে আমার ভয় হচ্ছে এরা না বড় ধরনের ইনজুরিতে পড়ে। তার মতে, একজন কোচ হিসেবে আমরা জানি পনের বছরের এক জন খেলোয়াড়ের মাসল কতোটা বড় হয়। কিন্তু এবারের সাফে ভারতের সে সব ফুটবলার দেখছি তাতে নিশ্চিত তাদের বয়স অনেক বেশী।

বাফুফের টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটিজিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলি তথ্য দেন, ‘ভারত অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ দলে না কি বয়স্ক খেলোয়াড় আছে। কিন্তু আমি তো দেখলাম ভারতীয় দলেই এই সংখ্যা অত্যধিক।’ তার পরামর্শ, ‘যদি সত্যিকার অর্থে সাফ বয়সভিত্তিক ফুটবল এএফসির আসরের প্রস্তুতির জন্যই হয়ে থাকে তাহলে সাফের সব সদস্যভূক্ত দেশের ফেডারেশন সভাপতিদের বসে এই অধিক বয়স্ক ফুটবলার খেলানো বন্ধ করা উচিত। তা না হলে ট্রফি জয়ের জন্য খেলাই হবে। ফুটবলের প্রকৃত উন্নতি হবে না।’ ভুটান দলের কোচ ভারতের সাথে হারের পর সংবাদ সম্মেলনে ভারতীয়দের দীর্ঘদেহ এবং শাররীক গঠনের কথা বললেও পরে তিনি বের হয়ে যাওয়ার সময় উল্লেখ করেন, ‘ভারত দলে তো বয়স্ক ফুটবলা অনেক।’ আর ভুটান ফেডারেশনের নির্বাহী জেট্টুর মতে, ‘গতবছর অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে বাংলাদেশ বেশী বয়ষ্ক ফুটবরার খেলিয়েছে। আর এবার ভারত।’  


আরো সংবাদ