২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

নতুন প্রকাশ

-

উপমহাদেশে ইসলামের পুনর্জাগরণ : পদ্ধতি ও কর্মসূচি
মূল- মাওলানা ঈসা মনসূরী
অনুবাদ - মাওলানা ইবরাহীম জামিল
প্রকাশক -আল ইরফান প্রকাশনী
মূল্য- ১২০ টাকা

ইসলামের পুনর্জাগরণ এখন গোটা মুসলিম উম্মাহর কাম্য বিষয়। কিন্তু তার পদ্ধতি ও কর্মসূচি প্রণয়ন করা সহজ নয়। বর্তমান বিশে^র অন্যতম শীর্ষ ইসলামী মনীষী মাওলানা সাইয়েদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ. সেইসব ব্যক্তির অন্যতম, যারা ইসলামের পুনর্জাগরণের স্বপ্ন দেখতেন এবং এ জন্য প্রয়োজনীয় কর্মপদ্ধতি প্রস্তাব করতেন। তিনি ইউরোপের সংবাদমাধ্যম ও সাময়িকীতে প্রবন্ধ নিবন্ধ লিখে চলেছেন। তাঁর লেখাগুলো ভারতের বিভিন্ন ম্যাগাজিনেও প্রকাশিত হয়। ‘উপমহাদেশে ইসলামের পুনর্জাগরণ’ তাঁর দুইটি বিস্তৃত অত্যন্ত মূল্যবান প্রবন্ধের অনুবাদ। বিষয়বস্তুর মিল থাকায় দুটিকে একত্র করে এ প্রকাশনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রথম প্রবন্ধটি অনুবাদ করেছেন মাদরাসা দারুর রাশাদের সমন্বিত বিভাগের উস্তাদ তরুণ আলেমে দীন হাফেজ মাওলানা ইবরাহীম জামিল। দ্বিতীয়টির অনুবাদ করেছেন মাদরাসা দারুর রাশাদের প্রাক্তন ছাত্র হাফেজ মাওলানা মিসবাহুল ইসলাম।
উভয় প্রবন্ধে মাওলানা ঈসা মানসূরী বেশ কয়েকটি তিক্ত সত্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা করেছেন। তবে একই সাথে তিনি দরদের সাথে মুসলিম উম্মাহর অবস্থার উন্নয়নে প্রয়োজনীয় কর্মপদ্ধতি নির্দেশ করেছেন। এ জন্যই তার এ রচনা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়ার দাবি রাখে।
দীর্ঘদিনের আন্দোলনের ফসল হিসেবে ভারতবর্ষ থেকে ঔপনিবেশিক শাসনের অবসান ঘটে এবং ভারত ও পাকিস্তান নামে দুটি রাষ্ট্রের অভ্যুদয় হয়। কিন্তু পাকিস্তান রাষ্ট্রে যেমন, তেমনি ভারতে বসবাসরত মুসলিম জনগোষ্ঠীর অবস্থার উন্নতি হয়নি। ঔপনিবেশিক যুগে বা পরাধীনতার সময়ে মুসলমানদের যে অবস্থা ছিল, তা থেকে একটুও অগ্রসর হতে পারেনি মুসলিমরা।
বস্তুত এটা শুধু উপমহাদেশের পরিস্থিতি নয়, গোটা মুসলিম বিশে^র বাস্তবতা। এই রূঢ় বাস্তবতার গভীর অধ্যয়ন এবং মুসলিম উম্মাহর পুনর্জাগরণের পথে বাধাগুলো চিহ্নিত করার পর প্রতিকারের উপায় নির্দেশ করাই মাওলানা মানসূরী সাহেবের মূল বক্তব্য। তিনি যথার্থই চিহ্নিত করেছেন মুসলিম উম্মাহর বর্তমানের প্রধান পাঁচটি চ্যালেঞ্জ। আর এগুলো উত্তরণে বিশেষ করে উলামায়ে কেরামের ভূমিকার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছেন স্পষ্টভাবে। প্রসঙ্গক্রমে তিনি ভারতীয় আলেম সমাজের কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্থবিরতার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। কিন্তু তাঁর বক্তব্যের সর্বত্রই রয়েছে দরদ ও নিষ্ঠার নির্ভেজাল উপাদান। তাই নিছক সমালোচনার জন্য সমালোচনা না ভেবে তাঁর কথাগুলো গঠনমূলক সমালোচনা বলে বিবেচনা করাই শ্রেয় বলে আমরা মনে করি।
হ কামালউদ্দিন ফারুকী


আরো সংবাদ