১৮ অক্টোবর ২০১৯
খুলনায় পেশাজীবী পরিষদের সেমিনার

দেশ বাঁচাতে ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ধানের শীষে ভোট দেয়ার বিকল্প নেই

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী - নয়া দিগন্ত

বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ খুলনার উদ্যোগে মঙ্গলবার আয়োজিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও পেশাজীবীদের করণীয় শীর্ষক এক সেমিনারে পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-আহবায়ক ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেছেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে চাইলে, দেশের মানুষকে ভালবাসলে এবং গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে হলে ৩০ তারিখে ধানের শীষে ভোট দেয়ার বিকল্প নেই।

খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন রুহুল আমিন গাজী। নির্বাচনের আগে শেষ কয়টি দিন কাজে লাগানোর জন্যে সবার প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান তিনি।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ খুলনার সদস্য সচিব ডা. শেখ মোঃ আখতারুজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সিনিয়র মেম্বর অধ্যাপক ডাঃ সিরাজউদ্দিন আহমেদ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দলের আহবায়ক অধ্যাপক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা দেন খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, বার কাউন্সিলের সাবেক সদস্য অ্যাড. আবদুল মালেক, খুলনা বারের সভাপতি অ্যাড. শেখ নূরুল হাসান রুবা, এমইউজে খুলনার সভাপতি মোঃ আনিসুজ্জামান, অ্যাড. আব্দুল্লাহ হোসেন বাচ্চু, অধ্যাপক আবদুল মান্নান, অ্যাড. শফিকুল আলম মনা, অ্যাড. আবদুল আজিজ, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, অ্যাড. মশিউর রহমান নান্নু, অধ্যাপক ড. রকিবউদ্দিন, অ্যাড. আক্তার জাহান রুকু, রাশিদুল ইসলাম ও অ্যাড. জাকির হোসেন।

সেমিনারে রুহুল আমিন গাজী বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে গুম, খুন, হামলা ও মামলার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। দেশে এখন কারও নিরাপত্তা নেই। ভিন্নমত পোষণের কারণে মামলার শিকার হননি দেশে এমন কেউ নেই। যে দেশের প্রধানমন্ত্রী বুলেটের হিসাব নেন। আর বলেন, সেগুলো কি কোষাগারে জমা রাখার জন্যে দিয়েছি, খরচ কর নাই কেন? সেখানে মানুষের নিরাপত্তা কোথায়? এখন দেশের সব থানাকে গ্রেফতারের দৈনিক টার্গেট দেয়া হচ্ছে। না পারলে কৈফিয়ত দিতে হচ্ছে। আমাদের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে যেসব বাহিনী গঠন করা হয়েছে, তারাই এখন আমাকে গুম করছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। এটা যারা মানেনা তারা বাংলাদেশকে বিশ্বাস করতে চায় না। এখন সময় এসেছে। আমাদের সকলকে ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে একটা দিনে সক্রিয় থাকতে হবে।

তিনি আরো বলেন, সারাদেশে সেনাবাহিনী মোতয়েনের পর প্রথম দিনে সবচেয়ে বেশী হামলা হয়েছে। তারা এসব হামলা করে বোঝাতে চেয়েছে যে, সেনাবাহিনীকে তারা কেয়ার করে না। তিনি সেনাবাহিনীর প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রিয় মাতৃভূমিকে রক্ষায় আপনাদের গৌরবোজ্জল ভূমিকা রয়েছে। আপনারা এসব হামলার ব্যাপারে ব্যবস্থা নিন।

সেমিনারে ডা. সিরাজউদ্দিন বলেন, আমরা ভাইয়ে ভাইয়ে লড়াই দেখার জন্যে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেইনি। এখন আমাদের একটাই শ্লোগান, আর তা হল ভোটের দিন ফল না পাওয়া পর্যন্ত কেন্দ্র পাহারা দেবো।

নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, দেশের ইতিহাসে নির্বাচনে প্রার্থীর গলায় ছুরি ধরা বা গুলি করার ঘটনা শেখ হাসিনার সময়ে ঘটল। এখন পুলিশ আমাদের প্রতিপক্ষ, আওয়ামী লীগ নয়। ডিবি এখন এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। তিনি বলেন, এ সংস্থাটি তুলে দিতে হবে কিনা তা ভাবার সময় হয়েছে।


আরো সংবাদ

দেশী-বিদেশী পাইলটরা লেজার লাইট আতঙ্কে ‘গরু ছেড়ে মহিলাদের দিকে নজর দিন’,: মোদির প্রতি কোহিমা সুন্দরীর পরামর্শে তোলপাড় বিশাল বিমানবাহী রণতরী নির্মাণ চীনের, উদ্বেগে যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেকে শামীম ওসমানের প্রশ্ন : তোলারাম কলেজে কোথায় টর্চার সেল? জিপি ও রবিতে প্রশাসক নিয়োগ অনুমোদন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জাতীয় পতাকা অবমাননা মামলার শুনানি ৪ নভেম্বর ডিএনসিসির জরিপ কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার দায়ে আটক ১ শিবচরে গণ-উন্নয়ন সমিতির কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ জবি ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃত্বে মুত্তাকী-জাহিন তোলারাম কলেজে কোথায় টর্চার সেল? ‘দ্বীনকে বিজয়ী করতে সর্বক্ষেত্রে যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখতে হবে’

সকল