২২ আগস্ট ২০১৯

চুয়াডাঙ্গায় ৪৮ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১১ ডেঙ্গু রোগী

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ডেঙ্গু জোনে দিন দিন বেড়েই চলেছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। রাজধানী ঢাকা থেকে ডেঙ্গু নিয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা প্রতি ১০ জনের মধ্যে ৯ জন। গত দুদিনে মানে ৪৮ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ডেঙ্গু নিয়ে ভর্তি হয়েছেন ১১ জন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ জুলাই থেকে ৭ আগস্ট বুধবার পর্যন্ত ১২ দিনে হাসপাতালে শিশুসহ মোট ৩৬ জন ভর্তি হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ২৭ জন পুরুষ, ৮ জন নারী ও ১ জন শিশু। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া মোট ৩৬ জনের মধ্যে ৩১ জনই ঢাকা থেকে ডেঙ্গু ভাইরাস নিয়ে এসেছেন চুয়াডাঙ্গায়। বাকি পাঁচজনের মধ্যে দুজন পুরুষ, দুজন নারী ও একজন শিশু চুয়াডাঙ্গাতে অবস্থানকালে ডেঙ্গু আক্রান্তের শিকার হয়।

গত দুই দিন মানে ৪৮ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু আক্রান্তরা হলেন চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার মারুফ হোসেন (২৬), জীবননগরের নুরুল ইসলামের ছেলে রাব্বি (২০), চুয়াডাঙ্গা বদরগঞ্জ কুতুবপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জাহিদ হোসেন (৩০), চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার তালতলা গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে আতিক (২৪), চুয়াডাঙ্গা দৌলাতদিয়াড় শাহিন আলমের ছেলে টনি (১৮), দামুড়হুদা উপজেলার গোপালপুর গ্রামের আদম মাস্টারের ছেলে আনিসুর রহমান (৩৫), আলমডাঙ্গার গাংনী ইউনিয়নের আসমানখালী বাজার পাড়ার আব্দার আলীর মেয়ে রিপা খাতুন (১৭), জীবননগর খয়েরহুদা গ্রামের মাঠপাড়ার ইয়াকুব আলীর ছেলে আশরাফুল ইসলাম (৪৫), চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ঘোলদাড়ী জাহাপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে শিমুল (২১), দৌলাতদিয়াড় বকুল সর্দ্দারের ছেলে তরিকুল (৩০) ও দামুড়হুদা চিৎলা ইউনিয়নের হাটবোয়ালিয়া গ্রামের আমির আলীর ছেলে মিলন হোসেন (২০)।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শামীম কবির জানান, এ পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া মোট ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ৩৬ জন। প্রতিনিয়তই ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডেঙ্গু জোনের আয়তন বৃদ্ধি করা হচ্ছে। সাধারণ রোগীর পাশাপাশি ডেঙ্গু রোগীদের চাপের কারণে বিপাকে পড়তে হচ্ছে আমাদের।’ ঈদকে সামনে রেখে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করছেন তিনি।


আরো সংবাদ