১৯ মে ২০১৯
জুলাই থেকে ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট

মানব পাচারকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

-

তিউনিসিয়ার ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে অবৈধভাবে বিদেশ গমনের সময় নিহত বাংলাদেশীদের জন্য শোক ও দুঃখ প্রকাশ এবং যেসব দালালচক্র অবৈধ মানব পাচারের সাথে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট মিশনগুলোকে আহত ও নিহতদের সহযোগিতা প্রদানের সুপারিশ করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। গতকাল কমিটির এক বৈঠকে এই সুপারিশ করা হয়।
এ দিকে বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চলতি বছর থেকে ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট চালু হচ্ছে। পাশাপাশি আগামী জুলাই থেকে চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্ট।
সংসদ ভবনে কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ ফারুক খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো: শাহরিয়ার আলম, নুরুল ইসলাম নাহিদ, মো: আব্দুল মজিদ খান, নাহিম রাজ্জাক ও নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) অংশগ্রহণ করেন।
বৈঠকে মিশনগুলোতে জনবলের স্বল্পতা নিয়ে আলোচনা করা হয় এবং এ সমস্যা সমাধানে মন্ত্রণালয়কে দ্রুত জনবল নিয়োগের পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বাড়িয়ে স্বল্প জনবল সমস্যার সমাধান করার সুপারিশ করা হয়। কমিটি কর্তৃক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি পরিদর্শনের জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।
বৈঠকে জানানো হয়, জুলাই-২০১৯ সাল থেকে ১০ (দশ) বছর মেয়াদি ইলেকট্রনিকস পাসপোর্ট প্রদান করা হবে। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশী মিশনগুলোকে পাসপোর্ট ইস্যু ও নবায়নকার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করতে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করার সুপারিশ করা হয়। বিদেশী মিশনগুলোকে সমন্বয়ের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা, ডাটাবেজ তৈরির মাধ্যমে প্রবাসীদের সম্পৃক্ত করে সেবার মানোন্নয়ন এবং মিশনে কর্মরতদের মাধ্যমে যাতে প্রবাসীরা কোনোভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখার সুপারিশ করে।
বৈঠকে ‘মুজিব বর্ষ’ পালনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গঠিত আন্তর্জাতিক যোগাযোগ কমিটির সিদ্ধান্তগুলো স্থায়ী কমিটিকে অবহিত করা এবং গৃহীত কর্মসূচিগুলো চূড়ান্ত করে সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য সাব-কমিটি গঠন এবং সম্ভাব্য বাজেট প্রণয়নের সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়াও ‘মুজিব বর্ষ’ পালনকালে সব মিশনের সামনে দৃষ্টিনন্দন ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে বছরব্যাপী অনুষ্ঠান পালনের আবহ তৈরি করার সুপারিশ করা হয়।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মাহবুবুজ্জামান, মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিটের সচিব খোরশেদ আলম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরো সংবাদ