২০ আগস্ট ২০১৯

জাতীয় ঈদগাহসহ বিভিন্ন স্থানে ঈদের জামাতের সময়সূচি

-

আগামী ১২ আগস্ট সোমবার পবিত্র ঈদুল আজহা এ উপলক্ষে রাজধানীসহ সারা দেশে যথাযথভাবে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। ঈদুল আজহার প্রধান জামাত জাতীয় ঈদগাহে সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে পাঁচটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংশোধিত বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগের বিজ্ঞপ্তিতে জাতীয় ঈদগাহে ঈদের জামাতের সময় সকাল সাড়ে ৮টা উল্লেখ করা হয়েছিল।
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার নামাজে ইমামতি করবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। বিকল্প ইমাম হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ।
বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যায়ক্রমে পাঁচটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম জামাত সকাল ৭টা, দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টা, তৃতীয় জামাত সকাল ৯টা, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টা এবং পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত সকাল ১০.৪৫টা। ইমামতি করবেন- প্রথম জামাতে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভী, দ্বিতীয় জামাতে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মুফতি মুহীউদ্দিন কাসেম, তৃতীয় জামাতে জামিয়া শাবইয়্যাহ মালিবাগ জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মুফতি সিবগাতুল্লাহ নূর, চতুর্থ জামাতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ এবং পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাতে আল আজহার একাডেমির প্রিন্সিপাল ড. মাওলানা আব্দুল কাইয়ূম আজহারী।
ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়
ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদে ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। দ্বিতীয় জামাত হবে সকাল ৯টায়। এ ছাড়া সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের মেইন গেট-সংলগ্ন মাঠে সকাল ৮টায়, শহীদুল্লাহ হল লনে সকাল ৮টায় এবং উত্তর নীলক্ষেত ও গিয়াস উদ্দিন আবাসিক এলাকা বায়তুস সালাম জামে মসজিদে সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
মোহাম্মদপুরের কৃষি বাজার তাহেরীয়া জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। কাজীপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ঈদের প্রথম জামাত সকাল ৭টায়, দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টায় এবং তৃতীয় জামাত সকাল পৌনে ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে। মোহাম্মদপুরের মসজিদ এ তৈয়্যেবিয়ায় সকাল সাড়ে ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। পশ্চিম আগারগাঁওয়ে দারুল ঈমান জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। লক্ষ্মীবাজার মিয়া সাহেব ময়দান শাহ সাহেব বাড়ি জামে মসজিদে সকাল ৭টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। লক্ষ্মীবাজার নন্দ লাল দত্ত লেনের নূরানি জামে মসজিদে সকাল ৮টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। বংশাল আহলে হাদিস বড় জামে মসজিদ কমিটি ও বংশাল পঞ্চায়েত কমিটির পরিচালনায় ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে সকাল সাড়ে ৭টায় ও সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
সোবহানবাগ জামে মসজিদে ঈদের জামাত
রাজধানীর মিরপুর রোডের সোবহানবাগ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় ঈদুল আজহার নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
এ দিকে ধানমন্ডি ঈদগাহ ময়দানে সকাল ৮টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সায়েদাবাদ চিশতিয়া সাইদিয়া দরবার শরীফ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
মিরপুর দারুস সালাম মারকাজে ঈশা’আতে ইসলাম ফুরফুরা দরবারের মসজিদ কমপ্লেক্সে সকাল সাড়ে ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রাম নগরীতে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে ১৬৫টি স্থানে এবং জেলা প্রশাসনের পৃষ্ঠপোষকতায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় ঈদ জামাত কমিঠির তত্ত্বাবধানে ৯২টি স্থানে অনুষ্ঠিত হবে।
নগরীতে সিটি কপোরেশেনের উদ্যোগে ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৭টা ৪৫মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ ময়দানে। ঈদের প্রধান জামাতে ইমামতি করেন জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের খতিব পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ আহমুদুল হক এবং ৭টা ৪৫ মিনিটে দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করবেন জামেয়া আহমদিয়া সুন্নীয়া আলিয়া মাদরাসার প্রধান মোফাচ্ছির কাজী মাওলানা মোহাম্মদ ছালেকুর রহমান আলকাদেরী।
চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় ঈদ জামাত কমিটির উদ্যোগে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন মাঠে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। এতে ইমামতি করবেন বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আল্লামা ড. সাইয়েদ মুহাম্মদ আবু নোমান।
এ ছাড়া চট্টগ্রাম বন্দর স্টেডিয়াম, প্যারেড ময়দান, চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ঈদগাহ পাঁচলাইশ ওয়াজেদিয়া আলিয়া মাদরাসা ময়দানসহ ৯২টি স্থানে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে আগামীকাল সোমবার পবিত্র ঈদুল আজহার প্রধান জামাত হজরত শাহমখদুম (রহ:) কেন্দ্রীয় ঈদগাহে সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। এতে ইমামতি করবেন নগরীর জামিয়া ইসলামিয়া শাহমখদুম (রহ:) মাদরাসার অধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা মো: শাহাদত আলী। তার সহকারী হিসেবে থাকবেন নগরীর হেতেম খাঁ বড় মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিব মাওলানা মো: ইয়াকুব আলী।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বৈরী আবহাওয়ার কারণে কেন্দ্রীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় সম্ভব না হলে একই সময়ে হজরত শাহমখদুম (রহ:) দরগা মসজিদে জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।
রাজশাহীতে একই সময় ঈদের দ্বিতীয় বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে নগরীর সাহেববাজার বড় মসজিদ সংলগ্ন রাস্তায়। সকাল ৮টায় রাজশাহীর অন্যতম বড় ঈদের জামাত হবে টিকাপাড়া ঈদগাহ ময়দানে। এ ছাড়া রাজশাহী মহানগর ও জেলার অন্য ঈদগাহগুলোতেও সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ৮টার মধ্যে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।
ময়মনসিংহ অফিস জানায়, ময়মনসিংহ মহানগরীর আঞ্জুমান ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান ও প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায় এবং দ্বিতীয় জামাত হবে অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯টায়। এ ছাড়া বড় মসজিদে সকাল ৮টায়, আকুয়া মার্কাস মসজিদে সকাল সোয়া ৭টায়, বাকৃবি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায়, চরপাড়া জামিয়া ইসলামিয়ায় সকাল ৮টা ও সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে।
বরিশাল ব্যুরো জানায়, ঈদুল আজহার নামাজের জামাত বরিশাল জেলার সহস্র্রাধিক মসজিদ ও ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। যার মধ্যে নগরীর বান্দ রোডস্থ হেমায়েতউদ্দিন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে।
জাতীয় ইমাম সমিতি বরিশাল মহানগর শাখা সূত্রে জানা গেছে, নগরীর বেশ কয়েকটি মসজিদে দু’টি করে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তবে নগরীতে সর্বপ্রথম সকাল সাড়ে ৭টায় জেলগেট জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। বরিশাল সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা বেলায়েত হাসান বাবলু জানান, বৃষ্টি ও বৈরী আবহাওয়ার কথা মাথায় রেখে সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে নগরীর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে এরই মধ্যে ঈদের জামাতের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এ ছাড়া বরিশালে সবচেয়ে বড় ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে শহরতলী চরমোনাই দরবার শরিফের ময়দানে। দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে পিরোজপুরের নেছারাবাদ ছারছিনা দরবার শরীফ মাঠে। এ ছাড়া ঝালকাঠীর মরহুম কায়েদ সাহেব হুজুরের মাদরাসা মাঠে, পটুয়াখালীর মীর্জাগঞ্জ হজরত ইয়ারউদ্দিন খলিফা (রা:) মাজার শরিফ ময়দানে, গুঠিয়ার বায়তুল আমান জামে মসজিদ কমপ্লেক্সসহ জেলার সহস্রাধিক মসজিদ ও ঈদগাহ ময়দানে ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয়েছে।
খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনায় ঈদুল-আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায় খুলনা সার্কিট হাউজ ময়দানে। এ ছাড়া সকাল ৯টায় দ্বিতীয় ও শেষ জামাত অনুষ্ঠিত হবে টাউন জামে মসজিদে। আবহাওয়া প্রতিকূল থাকলে ঈদের প্রথম ও প্রধান জামাত সকাল ৮টায় এবং দ্বিতীয় ও শেষ জামাত সকাল ৯টায় টাউন জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। আবহাওয়া প্রতিকূল থাকলে সকাল সাড়ে ৮টায় খুলনা কালেক্টরেট জামে মসজিদে একটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
কেসিসির ৩১টি ওয়ার্ডে পৃথকভাবে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের তত্ত্বাবধানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া নগরীর বসুপাড়া ইসলামাবাদ কমিউনিটি সেন্টার ঈদগাহ, লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঈদগাহ মাঠ, খুলনা আলিয়া মাদরাসা, বায়তুশ শরফ জামে মসজিদ, খালিশপুর ঈদগাহ ময়দান, জেলা পুলিশ লাইন ময়দান, ডাকবাংলো জামে মসজিদ, ফেরিঘাট জামে মসজিদ, মতি মসজিদ, মদনি মসজিদ, ময়লাপোতা বায়তুল আমান জামে মসজিদ, জামাতখানা মসজিদ, লবণচরা জামে মসজিদ, শিপইয়ার্ড জামে মসজিদ, দক্ষিণ টুটপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, দাদা ম্যাচ ফ্যাক্টরি জামে মসজিদ, রূপসা জামে মসজিদ, গ্লাক্সো জামে মসজিদ, জাহাননগর জামে মসজিদ, টুটপাড়া মেইন রোড জামে মসজিদ, পিটিআই মসজিদ, মক্কী মসজিদ, আল হেরা জামে মসজিদ, কালেক্টরেট মসজিদ, কাগজী বাড়ি মসজিদ, বাইতুন আমান জামে মসজিদসহ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি) কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, বিএল কলেজ জামে মসজিদসহ নগরীর বিভিন্ন ঈদগাহ ও মসজিদে নির্ধারিত সময়ে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
বগুড়া অফিস জানায় বগুড়ায় ঈদুল আজহার প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় শহরের সূত্রাপুরস্থ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। আবহাওয়া খারাপ থাকলে একই সময় কেন্দ্রীয় (বড়) জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া জেলার সোনাতলা উপজেলার পাকুল্যা ইউনিয়নের হুয়াকুয়া ঈদগাহ মাঠে সকাল সাড়ে ৮টা, বগুড়া শহরের সুলতানজপাড়া ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টা ও দক্ষিণ ধাওয়া পাড়া ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায় শহরের অর্ধশতাধিক ঈদগাহে সকাল ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে ঈদ জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।


আরো সংবাদ