২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

যুক্তরাজ্যে বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন ভিসানীতি পড়াশোনা শেষে আরো দুই বছর থাকতে পারবে কাজের সন্ধানে

-

যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতর সে দেশে পড়ালেখায় নিয়োজিত বিদেশী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাসমাপনী শেষে তাদের ভিসাব্যবস্থায় পরিবর্তন আনতে নতুন প্রস্তাব ঘোষণা করেছে। গতকাল বুধবার ঘোষিত প্রস্তাব অনুযায়ী বিদেশী শিক্ষার্থীরা তাদের গ্র্যাজুয়েশন ডিগ্রি লাভ করার পর আরো দুই বছর ‘ওয়ার্ক ভিসা’ পাবে। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন প্রশাসনের এ ঘোষণার ফলে বিদেশী শিক্ষার্থীদের যুক্তরাজ্যে তাদের ক্যারিয়ার শুরু করার সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত হলো। সেই সাথে লেখাপড়া শেষে স্বদেশে ফিরে যাওয়ার জন্য ২০১২ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তেরেসা মের ঘোষিত ভিসাব্যবস্থা রহিত হলো। ওই সময় নিয়ম করা হয়েছিলÑ বিদেশী শিক্ষার্থীদের তাদের গ্র্যাজুয়েশন (স্নাতক) শেষ করার চার মাসের মধ্যে যুক্তরাজ্য ছেড়ে যেতে হবে। গতকাল বুধবার ঘোষিত বরিস জনসন প্রশাসনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘোষিত নিয়ম অনুযায়ী বিদেশী শিক্ষার্থীরা ব্যাচেলর ডিগ্রি অথবা মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জনের পর দুই বছর ওয়ার্ক পারমিট নিয়ে যুক্তরাজ্যে অবস্থান করতে পারবেন। আগামী বছর থেকে যুক্তরাজ্য সরকারের ঘোষিত শিক্ষার্থী ভিসা নীতি কার্যকর হবে। ব্রিটিশ সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে ম্যাথ ইঞ্জিনিয়ারিং ও প্রযুক্তিবিষয়ক প্রতিভাবানদের সে দেশে কর্মযজ্ঞে অংশীদার করা।
যুক্তরাজ্যের শিক্ষাসচিব গেভিন উইলিয়ামসন বলেন, বিদেশী শিক্ষার্থীরা আমাদের দেশ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের মেধা ও শারীরিক শ্রম দিয়ে অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন। উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশী শিক্ষার্থীরা আমাদের প্রতিষ্ঠানকে বেছে নিয়েছেন। আমরা ব্রিটেনের শিক্ষাব্যবস্থায় গড়ে ওঠা মেধাকে কাজে লাগাতে চাই।
যুক্তরাজ্যের শিক্ষা দফতর বলেছে, নতুন অভিবাসন অনুযায়ী বিদেশী শিক্ষার্থীরা সফলতার সাথে তাদের শিক্ষা সমাপন বা উচ্চতর ডিগ্রি শেষ করার পর নিজেদের নতুন কর্মপথ খুঁজে নেয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে আগামী বছর থেকে।
গত বছর প্রায় সাড়ে চার লাখ বিদেশী শিক্ষার্থী যুক্তরাজ্যে স্নাতক কোর্স শুরুর আবেদন করেছেন। ভিসাব্যবস্থার নতুন নিয়ম এসব শিক্ষার্থীর ওপরও প্রযোজ্য হবে। ব্রিটিশ সরকার আগামী ১০ বছরের মধ্যে বিদেশী শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছয় লাখে উন্নীত করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ব্রিটিশ কোষাগারের চ্যান্সেলর সাজিদ জাভিদ নতুন এই নিয়মকে সময়োপযোগী বলে আখ্যা দিয়ে বলেছেন, কয়েক বছর আগেই ভিসাব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার দরকার ছিল। ব্রিটিশ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রধান নির্বাহী অ্যালিস্টাইর জার্ভিস এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, এর মাধ্যমে উপকৃত হবে ব্রিটিশ অর্থনীতি। আর যুক্তরাজ্যকে শিক্ষার প্রথম গন্তব্য নির্ধারণে ভূমিকা রাখবে।
তবে অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা যুক্তরাজ্যের মাইগ্রেশন ওয়াচের চেয়ারম্যান আল্প মেহমেত বলেছেন, এই সিদ্ধান্ত অবিবেচক সিদ্ধান্ত। আর এতে বিদেশী স্নাতক শিক্ষার্থীদের ভিড় বেড়ে যাবে। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রেকর্ড সংখ্যক বিদেশী শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করছে। ফলে শিক্ষার্থী ভিসা অবমূল্যায়ন করে কাজের সুযোগ দিয়ে পেছনের পথ ব্যবহার করার কোনো দরকার নেই।
ভারত থেকে যুক্তরাজ্যে যাওয়া শিক্ষার্থী শ্রেয়া শমি বলেন, এটা খুবই ভালো পদক্ষেপ। তবে তার জন্য খুবই দুঃখের দিন। কারণ তার মতো যেসব বিদেশী শিক্ষার্থী যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন তাদের জন্য এই নিয়ম কাজে আসবে না। শ্রেয়া এখন মাস্টার্স ডিগ্রি সম্পন্ন করছেন। বর্তমান নিয়মের অধীনে চার মাস কাজের সুযোগ পেতে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে তাকে। তিনি জানান, বিদেশী শিক্ষার্থীদের কাজের সুযোগ প্রায় শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। এজন্য দায়ী করা হচ্ছে তাদের অনভিজ্ঞতাকে।
ব্রিটিশ ছায়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডায়ান অ্যাবোট বলেছেন, লেবার পার্টি সবসময়ই বলে এসেছে স্নাতকদের পড়াশোনা শেষে কাজের সুযোগ পাওয়া উচিত। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে তারা আমাদের অর্থনীতি, বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণায় অবদান রাখতে পারবে আর আমাদের সবচেয়ে মেধাবী ও প্রতিভাবানদের আকৃষ্ট করায় সাহায্য করবে।


আরো সংবাদ

জি কে শামীমের সাথে দু’টি ছবি নিয়ে না’গঞ্জে তোলপাড় কিশোর অপরাধ প্রতিরোধে পরিবার ও সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে : ড. আব্দুর রাজ্জাক এরশাদের স্মরণসভায় জি এম কাদের জাতি দুর্নীতিমুক্ত সমাজ দেখতে চায় সমুদ্র নিরাপত্তা ও ব্লু-ইকোনমি বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত জাতিসঙ্ঘের অধিবেশনে যোগ দিতে টেলিলিংক গ্রুপ চেয়ারম্যানের ঢাকা ত্যাগ শিশুদের যৌন হয়রানি রোধে ডুফার কর্মশালা আশুলিয়ায় গার্মেন্টে চাকরি নিতে এসে তরুণী ধর্ষিত হাতিরঝিল লেক থেকে লাশ উদ্ধার ভিক্টর ক্লাসিক বাসের চালক-সহকারী গ্রেফতার বাংলাদেশের শুভ সূচনা শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে

সকল