১৭ নভেম্বর ২০১৯

আলীকদমে ৩ জনসহ বিভিন্ন স্থানে নিহত ৬

-

বান্দরবানের আলীকদমে চাঁদের গাড়ি দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত ও আরো ১৬ জন আহত হয়েছেন। এ ছাড়া অন্যান্য স্থানে সড়কে আরো দুইজন মারা যান।
বান্দরবান ও চকরিয়া সংবাদদাতা জানান, বান্দরবান পার্বত্য জেলার আলীকদম উপজেলার আলীকদম-থানচি সড়কের ১৫ কিলোমিটার নামক স্থানে গতকাল দুপুরে যাত্রীবাহি চাঁদের গাড়ি (জীপ) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে খাদে পড়ে যায়। এ সময় গাড়ির নিচে চাপা পড়ে তিনজন নিহত ও ১৬ জন যাত্রী আহত হন। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, যাত্রীবাহী জিপ গাড়িটি (নং-ভি-১৭) ২০ জন যাত্রী নিয়ে আলীকদম আসার পথে ঘটনাস্থলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাহাড়ের সাথে ধাক্কা লেগে সড়কের পাশে খাদে উল্টে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলে দুইজন নিহত ও পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে আরো একজন মারা যান।
নিহতরা হলেনÑ কক্সবাজারের পেকুয়া উজেলার টৈটং এলাকার আবদুর রশিদের ছেলে আবু তালেব (২২), বদর আলীর ছেলে জাফর আহামদ (৫৫) ও মিজানের ছেলে দিদারুল ইসলাম (২৭)। আহত ১৬ জনের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তারা হলেনÑ মোহাম্মদ আলী (২৫), রেজাউল করিম (২২), মো: রশিদ (২২), কায়সার (২৫) ও নুরুল ইসলাম (৩০)। অন্যদেরকে আলীকদম সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাস্থলে উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম, সেনাবাহিনীর আলীকদম জোন কমান্ডারের নেতৃত্বে সেনাসদস্যরা ও ফায়ার সার্ভিস উপস্থিত হয়ে হতাহতদের উদ্ধার করেন।
সাতক্ষীরা সংবাদদাতা জানান, সাতক্ষীরা বাইপাস সড়কে পিক-আপের ধাক্কায় মোটরসাইকেল চালক হযরত আলী (৪৫) ঘটনাস্থলে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হন আরো একজন। গত শনিবার দিবাগত রাতে বাইপাস সড়কে দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত হযরত আলী আলীপুর গ্রামের জবেদ আলীর ছেলে। আহত নজরুল ইসলাম মধুমল্লারডাঙ্গি গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে।
সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আহত নজরুল ইসলামকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনায় পাঠানো হয়।
ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) সংবাদদাতা জানান, পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় বাসচাপায় নুরুজ্জামান খান সুমন (৩৫) নামের এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। গতকাল শহরের পৌর এলাকার বিশ্বরোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ওই ব্যবসায়ী উপজেলার ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নের উত্তর শিয়ালকাঠী গ্রামের আব্দুল মালেক খানের (শাজাহান) বড় ছেলে ও শহরের নাভিন টাওয়ার মার্কেটের গিফট কর্নার এবং শহরের সাদ এন্টারপ্রাইজের মালিক।
থানা পুলিশ ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নুরুজ্জামান সকালে নিজ বাড়ি থেকে হেঁটে ভান্ডারিয়া-বরিশাল আঞ্চলিক মহাসড়ক হয়ে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় এম এ খালেক মিয়ার পাথর বাড়ির সামনে যাত্রীবাহী বাসটি তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত বলে ঘোষণা করেন। স্থানীয়রা জানান, ঘাতক বাসটি হেলপার চালাচ্ছিলেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: এইচ এম জহিরুল ইসলাম জানান, সুমনকে নিহত অবস্থায় হাসপাতলে নিয়ে আসা হয়েছিল।
ভাণ্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস এম মাকসুদুর রহমান জানান, নিহতের পরিবার থেকে এখনো কোনো মামলা দায়ের হয়নি।
মনোহরদী (নরসিংদী) সংবাদদাতা জানান, নরসিংদীর মনোহরদীতে যাত্রীবাহী বাসের চাপায় জসিম উদ্দিন (৬২) নামে এক পথচারী নিহত হয়েছেন। গত শনিবার রাতে উপজেলার ইটাখোলা-মনোহরদী আঞ্চলিক সড়কের হিতাসি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত জসিম উদ্দিন উপজেলার হাতিরদিয়া বাজারের সাইকেল মেরামতকারী।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই রাতে জসিম উদ্দিন কাজ শেষ করে পায়ে হেঁটে বাড়ি যাওয়ার পথে কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাস অন্য একটি চলন্ত বাসকে অতিক্রম করার সময় জসিম উদ্দিনকে চাপা দেয়।
মনোহরদী থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, বাসটি অন্য একটি বাসকে অতিক্রম করতে গিয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটায়। ঘাতক বাসটিকে আটক করা হয়েছে।


আরো সংবাদ