১৮ নভেম্বর ২০১৯

হেলথ টিপস : দেহের ফ্রি র্যাডিক্যাল দূর করতে আদা

-

আদায় রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যার কাজ হলো শরীরের ক্ষতিকারক ফ্রি র্যাডিক্যালগুলোকে অকেজো করে দেয়া। এই ফ্রি র্যাডিক্যালগুলো অকেজো হলে ক্যান্সার হওয়ার আর আশঙ্কা থাকে না। আদার স্বাস্থ্যগুণ অন্য যেকোনো মসলার চেয়ে বেশি। জিনজারোল নামে একটি অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান আছে আদায়। উপাদানটির কাজ হলো দেহের যেকোনো স্থানের ব্যথা-বেদনা দূর করা এবং কোথাও ফুলে গেলে তা সারিয়ে তোলা। প্রতিদিন এক টুকরো পরিমাণ আদা খেলে শরীরে কী ধরনের পরিবর্তন হয় তা এবার জেনে নিই।
প্রতিদিনের খাবার থেকে এক ধরনের এসিড বা টক্সিন তৈরি হয় আমাদের দেহে। এই টক্সিন অত্যন্ত ক্ষতিকর। এর কারণেই বিভিন্ন রোগ এসে বাসা বাঁধে দেহে। আদা এই ক্ষতিকারক টক্সিন শরীর থেকে বের করে দেয়। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন এক টুকরো আদা চিবিয়ে খেলে শরীর থেকে এসব এসিড ও টক্সিন দূর হয়ে যায়। কাঁচা আদা চিবিয়ে খেতে ঝাল লাগতে পারে। এ ক্ষেত্রে আদাকে রস করে খাবেন অথবা একটি খেজুর বা পাঁচ-ছয়টি কিসমিসের সাথে আদা চিবিয়ে খাবেন। এতে আদা খেতে তেমন কোনো অসুবিধা হয় না। চায়ের সাথে অথবা অন্য কোনো উপায়েও আদা খেতে পারেন। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে বলা হয়, প্রতিদিন এক টুকরো আদা খেলে দেহের যেকোনো প্রদাহজনিত সমস্যার কিংবা ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি থাকে না। কোলন ও অন্ত্রের প্রদাহ এবং জরায়ু ক্যান্সার সারাতে কেমোথেরাপির চেয়েও বেশি কাজ করে আদা। আদা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য থাকে না। যানবাহনে ভ্রমণের সময় (মোশন সিকনেস) বমি বমি ভাবও কেটে যায় আদা খেলে। প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হওয়ায় দেহের ভেতরের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে দেয় আদা। আদায় ইনফ্লামেটরি উপাদান থাকায় মাথাব্যথা হলে অথবা অন্য যেকোনো ব্যথা হলে এক টুকরো আদা চিবিয়ে খাবেন। এতে ব্যথা কিছুটা হলেও উপশম হবে। ইন্টরনেট।


আরো সংবাদ