১০ ডিসেম্বর ২০১৯

দুদক কার্যালয়ে খালিদী

-

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পরবর্তী সময় ডাকবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। জ্ঞাতআয়ের সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের চিঠি পাওয়ার পর গতকাল সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে এসেছিলেন তৌফিক ইমরোজ খালিদী। এ সময় দুদক তাকে পরবর্তী সময় ডাকা হবে বলে জানিয়ে দেয়।
গত ৫ নভেম্বর দুদকের পক্ষ থেকে একটি চিঠি পাঠিয়ে তৌফিক ইমরোজ খালিদীকে ১১ নভেম্বর দুদক কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ করা হয়। চিঠিতে বলা হয়Ñ ‘খালিদীর নিজের এবং বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের হিসাবে ‘বিপুল পরিমাণ টাকা স্থানান্তরের মাধ্যমে অবস্থান গোপন’ এবং বিভিন্ন ‘অবৈধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জ্ঞাতআয়ের সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ সম্পদ’ অর্জনের অভিযোগে তার বক্তব্য জানা প্রয়োজন’।
তবে ওই নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে খালিদী দুদকে সাক্ষাতের জন্য সময় চেয়ে আবেদন করেন। দুদকের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানানোয় তিনি কমিশনের দফতরে যান। পরে দুদকের পক্ষ থেকে বলা হয়, আগে করা তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে সময় দেয়া হবে। তিনি ফিরে যেতে পারেন।
এ দিকে দুদক কার্যালয় ত্যাগ করার সময় তৌফিক ইমরোজ খালিদী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, যে অভিযোগ তার বিরুদ্ধে করা হচ্ছে তা একেবারেই ভিত্তিহীন। তিনি সবসময় নিয়ম মেনে চলার চেষ্টা করেছেন এবং কোনো অবৈধ সম্পদ তার নেই।
তিনি বলেন, আমি আইন-কানুন মেনে চলার চেষ্টা করি। যদি সময়সীমা না বাড়ানো হয়, তাহলে কি হবে? কাজেই আমি এসেছি। আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে যেহেতু জানানো হয়নি। কাজেই আমাকে আসতে হয়েছে।
এ দিকে খালিদীকে দুদকে ডাকার ব্যাপারে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে দুদক সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখত বলেন, জ্ঞাতআয়-বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ ছিল। সেই ব্যাপারে কমিশনে একটা অনুসন্ধান চলমান আছে। অনুসন্ধানের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহের জন্য অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা তাকে আজকে (সোমবার) নোটিশ করেছিলেন। কিন্তু তিনি গত ৭ নভেম্বর আসতে পারবেন না বলে অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা বরাবর একটি আবেদন করেন। সেই আবেদনটি বিবেচনায় নিয়ে কমিশনের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা পরবর্তী তারিখ নির্ধারণের জন্য কাজ করছেন।

 


আরো সংবাদ