১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

মোগল আমলের স্থাপনা না’গঞ্জ বন্দর শাহী মসজিদ

অনন্য স্থাপত্য
-

প্রাচীন বাংলার সমৃদ্ধ জেলা নারায়ণগঞ্জের বহু প্রাচীন স্থাপনার একটি হলো বন্দর শাহী মসজিদ। বন্দর শাহী মসজিদ নারায়ণগঞ্জ জেলার কদম রসুল থেকে প্রায় এক মাইল দক্ষিণ-পূর্বে বন্দর পৌর এলাকায় অবস্থিত। সুলতান জালালুদ্দীন ফতেহ শাহের পদস্থ শাহী কর্মকর্তা মালিক আল-মুয়াজ্জম বাবা সালেহ ১৪৮২ খ্রিষ্টাব্দে (৮৮৬ হিজরি) মসজিদটি নির্মাণ করেন।
বর্গাকার এ মসজিদের পরিমাপ অভ্যন্তরভাগে ৬.২০ মিটার এবং বহির্ভাগে ৯.৭০ মিটার। চার কোণে রয়েছে অষ্টভুজাকৃতি মিনার এবং দেয়ালে প্রোথিত কালো পাথরের দু’টি স্তম্ভের উপর স্থাপিত গোলার্ধ আকৃতির বৃহৎ গম্বুজ। এ স্তম্ভ দু’টির ভিত বর্গাকার, শীর্ষভাগ কারুকার্যখচিত ও মধ্যভাগ অষ্টভুজাকৃতির। স্তম্ভের শীর্ষভাগে বসানো স্কুইঞ্চের উপর গম্বুজটি স্থাপিত। গম্বুজের গোড়ার দিকে চার পাশ ঘিরে রয়েছে পদ্মফুল ও কলসের নকশাবেষ্টনী। শীর্ষভাগ মারলান শোভিত ড্রামের উপর গম্বুজটির স্থাপনা মোগল আমলে মসজিদটির সংস্কারের একটি অংশ বলে মনে হয়।
মসজিদের পূর্ব দিকের তিনটি প্রবেশপথের মধ্যবর্তীটি প্রশস্ততর এবং এটির উচ্চতা ২.২০ মিটার ও চওড়া ১.৩৭ মিটার। দক্ষিণ ও উত্তর দিকে অপর দু’টি প্রবেশপথ ২ মিটার উঁচু ও ১ মিটার প্রশস্ত। পাশের প্রবেশপথগুলো সম্মুখের মধ্যবর্তী প্রবেশপথের সমান আকৃতির। মসজিদটিতে তিনটি অর্ধবৃত্তাকার মিহরাব আছে। এদের মধ্যবর্তীটি সবচেয়ে বড়। মসজিদটি পুনর্নির্মিত হয়েছে এবং পূর্ব, দক্ষিণ ও উত্তর দিকে বারান্দা সংযোজন করে এর পরিধি বাড়ানো হয়েছে। মসজিদটি এখন জামে মসজিদরূপে ব্যবহৃত হচ্ছে।


আরো সংবাদ