২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০
ডিএসসিসি নির্বাচন

ইভটিজিংমুক্ত শিক্ষাজোন করার প্রতিশ্রুতি প্রার্থীদের

৩৯ নম্বর ওয়ার্ড
-

ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীরা জলাবদ্ধতা নিরসন, মাদক নিয়ন্ত্রণ, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, সুপেয় পানির ব্যবস্থা, ইভটিজিংমুক্ত শিক্ষাজোন করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।
জয়কালি মন্দির, হাটখোলা রোড, ভগপতি ব্যানার্জি রোড, আর কে মিশন রোড, কে এম দাস লেন, রাজধানী সুপার মার্কেটসহ আরো বেশ কয়েকটি পাড়া মহল্লা নিয়ে এ ওয়ার্ড। এটাকে শিক্ষাজোনও বলা হয়। এ ওয়ার্ডে কামরুন্নেসা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, সেন্ট্রাল উইমেন্স কলেজ ও শেরেবাংলা বালিকা মহাবিদ্যালয় রয়েছে। এ ছাড়া আরো রয়েছে তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দু’টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দু’টি মাদরাসা, দু’টি কলেজ, দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়। আরো আছে চারটি মন্দির, তিনটি কমিউনিটি সেন্টার। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ছাত্রছাত্রীও উল্লেখ করার মতো।
কিন্তু এ এলাকার রাস্তাঘাটে রয়েছে বখাটেদের ব্যাপক উৎপাত। ইভটিজিংয়ের মতো ঘটনা ঘটছে যখন-তখন। বখাটেরা রাস্তার মোড়ে মোড়ে ছাড়াও স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে কিংবা আশপাশে দাঁড়িয়ে থেকে ছাত্রীদের বিরক্ত করছে। প্রতিদিন কোনো না কোনো স্পটে এ ঘটনা ঘটছে। আর এ সমস্যা দূরীকরণে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন প্রার্থীরা।
এ এলাকায় আরেকটি বড় সমস্যা জলবদ্ধতা। সামান্য বৃষ্টিতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তাঘাট ডুবে থাকে পানিতে। সুয়ারেজের নোংরা পানি উপচে পড়ে রাস্তায়। দুর্গন্ধযুক্ত এসব রাস্তা দিয়ে চলাচল প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। জলবদ্ধাতার কারণে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয় শিক্ষার্থীদের। প্রার্থীরা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন জলাবদ্ধতা দূরীকরণে উদ্যোগ নেবেন তারা।
এ ওয়ার্ডে পাঁচজন প্রার্থী। জনসংখ্যা দুই লাখ। ভোটার ৩৫ হাজার। আওয়ামী লীগসমর্থিত প্রার্থী রোকন উদ্দিন আহমেদ নির্বাচন করছেন ব্যাডমিন্টন প্রতীক নিয়ে। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের একজন কেসিনো, চাঁদাবাজি ও অস্ত্র মামলায় জেলখানায় থেকে নির্বাচন করছেন। আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর মঞ্জু নির্বাচন করছেন। তার প্রতীক রেডিও। বিএনপিসমর্থিত সাব্বির আহম্মেদ আরেফ পেয়েছেন ঘুড়ি মার্কা। বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ও সাবেক কাউন্সিলর মুক্তা পেয়েছেন লাটিম প্রতীক।
আওয়ামী লীগ নেতা ও দলীয় কাউন্সিলর প্রার্থী রোকন উদ্দিন আহমেদ বলেন, আওয়ামী লীগের সব নেতাকর্মীদের নিয়ে এ ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ডে পরিণত করা হবে। ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডটি একটি শিক্ষাজোন। এ ওয়ার্ডে বিশ্ববিদ্যালয়সহ প্রায় ২০টি নামীদামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বখাটেদের উৎপাত রয়েছে। ওয়ার্ডটি থেকে বখাটেদের উৎখাত করে ইভটিজিংমুক্ত ওয়ার্ড ঘোষণা করা হবে।
বিএনপি নেতা ও দলীয় কাউন্সিলর প্রার্থী সাব্বির আহম্মেদ আরেফ বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে অবশ্যই নির্বাচিত হবো। পাস করলে ওয়ার্ডকে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্ত করব। ইভটিজিংরোধে ব্যাপক উদ্যোগ নেব।

 


আরো সংবাদ