২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০
ডিএনসিসি নির্বাচন

জেনেভা ক্যাম্পবাসীর দিকে নজর কাউন্সিলর প্রার্থীদের

৩২ নম্বর ওয়ার্ড
-

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আসন্ন নির্বাচনে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা তাকিয়ে আছেন জেনেভা ক্যাম্পের ভোটারদের দিকে। কারণ এই ক্যাম্পেই আছে প্রায় ৯ হাজার ভোট। জেনেভা ক্যাম্পের ভোটাররা যে প্রার্থীকে ভোট দেবেন তিনিই এ বছর কাউন্সিলর নির্বাচিত হবেন বলে ধারণা করছেন প্রার্থীরা। তবে এই ক্যাম্পের সবাই যে একজনকেই ভোট দেবেন তা নয়।
ভোটারদের মন জয় করতে নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরা। আস্থা রাখুন, পাশে থাকুন, কথা দিচ্ছি বদলে দিব সেøাগান নিয়ে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সৈয়দ হাসান নুর ইসলাম-রাস্টন। সেবাই হোক মূল লক্ষ্যÑ এ সেøাগান নিয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটছেন স্ব^তন্ত্র জাকির হাসান পিন্টু। আর সব দুর্নীতি অনিয়ম দূর করে পরিচ্ছন্ন ওয়ার্ড তৈরির অঙ্গীকার নিয়ে কাজ করছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আতিকুল ইসলাম মতিন। এ ছাড়াও বিভিন্ন অঙ্গীকার নিয়ে ভোটের মাঠে রয়েছেন আরো দু’জন প্রার্থী।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের সীমানা শুরু হয়েছে ধানমন্ডি-২৭-এর উত্তর দিক থেকে লালমাটিয়া নিউ কোলনি, ইকবাল রোড, হুমায়ূন রোড ও বাবর রোড হয়ে শ্যামলী সিনেমা হলের পেছনের পিসিকালচার পর্যন্ত। মোহাম্মদপুর থানার আওতাধীন এই এলাকায় কয়েক লাখ মানুষের বসবাস হলেও ভোটার প্রায় ৩৭ হাজার ৮০০ জন। খুব বেশি পরিচ্ছন্ন ও গোছানো না হলেও এই এলাকায় বিত্তশালী, মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষের বসবাস। রয়েছে অনেকগুলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হসপিটাল, বাজার, শপিংমলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া এই এলাকায় আছে জেনেভা ক্যাম্পের বিরাট একটি অংশ। এ বছর আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত প্রার্থী নুরুল ইসলাম ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আতিকুল ইসলাম মতিন নির্বাচন করছেন ব্যাডমিন্টন প্রতীকে। স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হাসান পিন্টু ঘুড়ি ও আবুল হাশেম লাটিম প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।
নুরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনে তিনি জয়ী হলে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিটি মহল্লাকে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত ডিজিটাল ওয়ার্ডে পরিণত করবেন। সন্ত্রাস সাম্প্রদায়িকতা উগ্রবাদ ও মাদক নির্মূলে পদক্ষেপ নেবেন। দুর্নীতির বিরুদ্ধে থাকবে জিরো টলারেন্স। এই ওয়ার্ডে থাকা প্রতিটি খেলার মাঠ আরো উন্নতি করে শিশুদের খেলার যোগ্য করে তোলা হবে।
আতিকুল ইসলাম মতিন বলেন, দুর্নীতি অনিয়ম দূর করে এই ওয়ার্ডকে একটি পরিচ্ছন্ন এলাকা গড়তে তিনি পদক্ষেপ নেবেন। মশা নিধনের ব্যপারেও তার জোর তৎপরতা থাকবে। এলাকার নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে সব পদক্ষেপ নেবেন তিনি।
স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হাসান পিন্টু বলেন, এলাকার উন্নয়নমূলক কাজে বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়হীনতা থাকে। একটি সংস্থা রাস্তা খুঁড়ে কাজ শেষ করার কিছুদিনের মধ্যেই আরেকটি সংস্থা তাদের কাজ করতে আবার সেই রাস্তা খুঁড়তে শুরু করে। এতে করে সরকারের বাড়তি টাকা খরচ, এলাকার মানুষের চরম ভোগান্তি এবং রাস্তাটির আয়ুষ্কাল শেষ হয়ে যায়। তিনি নির্বাচিত হলে এ কাজগুলো সমন্বয় করে করার চেষ্টা করবেন যাতে সরকারের অর্থ এবং জনগনের ভোগান্তি কম হয়। এ ছাড়া এলাকাকে যানজট মুক্ত করে নিয়মিত ময়লা-আবর্জনা সরানোর ব্যাপারে কাজ করবেন। এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা করে থানার সাথে যোগাযোগ স্থাপন বৃদ্ধি করবেন। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে ভোট কেন্দ্রে আসার জন্য ভোটারদের প্রতি তিনি আহ্বান জানিয়েছেন।

 


আরো সংবাদ