১৯ আগস্ট ২০১৯

‘উত্তেজনা কমাতে’ রুহানি, পুতিন ও ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলবেন ম্যাকরন

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন বলেছেন, তিনি মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা প্রশমনের লক্ষ্যে চলতি সপ্তাহে নিজের ইরানি, রুশ ও মার্কিন সমকক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন। সার্বিয়া সফররত ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাকরন সোমবার রাতে বেলগ্রেড স্বাগতিক দেশের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তার আসন্ন সংলাপ মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা কমাতে সহায়তা করবে বলে তিনি আশা করছেন। ম্যাকরন এমন সময় মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা কমানোর আশা করলেন যখন তিনি সম্প্রতি এক স্বীকারোক্তিতে বলেছিলেন, ইরানের ব্যাপারে তার সরকার আমেরিকার অবস্থানকে সমর্থন করছে।

মার্কিন সরকার গত বছরের মে মাসে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে বেআইনিভাবে বেরিয়ে যায় এবং নভেম্বরে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করে। ট্রাম্প প্রশাসন ইরানের ওপর ‘সর্বোচ্চ চাপ’ প্রয়োগের নীতি অনুসরণ করে ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’কে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করে। এ ছাড়া, একই উদ্দেশ্যে মধ্যপ্রাচ্যে বিমানবাহী রণতরী, বি-৫২ বোমারু বিমান ও এফ-২২ জঙ্গিবিমান মোতায়েন করে।

সর্বশেষ গত ২০ জুন ভোররাতে মার্কিন সেনাবাহিনী ইরানের আকাশসীমায় অবৈধভাবে একটি পাইলটবিহীন বিমান বা ড্রোন পাঠায় যা ইরান গুলি করে ভূপাতিত করে। এ ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যে আমেরিকার সঙ্গে ইরানের উত্তেজনা তুঙ্গে ওঠে।

ট্রাম্প প্রশাসন ঘোষণা করেছে, পরমাণু কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে ইরানকে নতুন করে আলোচনায় বসতে বাধ্য করার জন্য দেশটির ওপর প্রবল চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। তবে ইরান বলেছে, দেশটি তার পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে একবার পাশ্চাত্যের সঙ্গে চুক্তি সই করেছে। ফলে এ বিষয়ে দ্বিতীয়বার আলোচনায় বসবে না তেহরান। এ ছাড়া, ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেছেন, তার দেশের সামরিক শক্তি খর্ব করার লক্ষ্যে আলোচনায় বসতে চায় ওয়াশিংটন। তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন, ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে কোনো আলোচনায় বসবে না ইরান। সূত্র : পার্সটুডে।


আরো সংবাদ