২৩ অক্টোবর ২০১৯

পৃথিবীর ভবিষ্যৎ নিয়ে জাতিসঙ্ঘের ‘রেড-অ্যালার্ট’

জাতিসঙ্ঘের একটি বিজ্ঞানী প্যানেল হুঁশিয়ার করেছে- মানুষের নানা কর্মকাণ্ডের পরিণতিতে অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন দ্রুত হারে সাগর-পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে এবং বরফ গলছে। সেই সাথে, জীবজন্তুর বিভিন্ন প্রজাতি তাদের আবাসস্থল বদলাচ্ছে। তারা বলেছেন, বিশ্বের অন্তত ৪৫টি শহর রয়েছে রিস্ক জোনে। অর্থাৎ বরফ গলার জেরে এরা সমুদ্রসংলগ্ন অঞ্চলে থাকায় জলোচ্ছ্বাসে ভেসে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আর সেই ৪৫টি শহরের মধ্যে রয়েছে ভারতের চারটি- কলকাতা, মুম্বাই, সুরাত ও চেন্নাই।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, বরফের আচ্ছাদন বিলীন হওয়ার কারণে কার্বন নিঃসরণের মাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। যার ফলে, পরিস্থিতি দিনকে দিন বিপজ্জনক হয়ে পড়ছে। আইপিসি বা জলবায়ুবিষয়ক আন্তর্জাতিক প্যানেলের সর্ব-সাম্প্রতিক একটি বিশেষ রিপোর্টে এসব চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। গত এক বছরের মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে এটি তাদের তৃতীয় রিপোর্ট। এর আগে বিজ্ঞানীরা বোঝার চেষ্টা করেছেন, এই শতকের শেষভাগে গিয়ে যদি বিশ্বের তাপমাত্রা ১.৫ শতাংশ বেড়ে যায়, তার পরিণতি কী হতে পারে।

সর্বশেষ এই রিপোর্টে দেখা হয়েছে, তাপমাত্রার বৃদ্ধির কারণে সমুদ্র এবং বরফে আচ্ছাদিত অঞ্চলের ওপর তার প্রভাব কী হতে পারে। বিজ্ঞানীরা এবার যা পেয়েছেন, তা আগের রিপোর্টগুলোর তুলনায় অনেক বেশি ভীতিকর।

খুব সংক্ষেপে বলতে গেলে সাগর-পৃষ্ঠের তাপমাত্রা বাড়ছে, বরফ গলছে দ্রুতহারে এবং এর প্রভাব পড়ছে পুরো বিশ্বের প্রাণিজগতের ওপর। এই রিপোর্টের প্রধান প্রণেতা ড. জ্যঁ পিয়ের গুত্তুসো বলছেন, ‘ব্লু-প্ল্যানেট’ (পৃথিবী) এখন মহা-সঙ্কটে। বিভিন্ন দিক থেকে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে এবং এর জন্য আমরাই দায়ী।

এর আগেও ওয়ার্নিং দেয়া হয়েছে কলকাতাকে। ২০১৫ সালে ওয়াশিংটন থেকে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে সতর্কবার্তাই দেয়া হয়েছিল। উল্লেখ করা হয়েছিল, যদি বিশ্বের তাপমাত্রা আর ৪ ডিগ্রি বাড়ে, তাহলে ভারতের উপকূলবর্তী এলাকার প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি মানুষ পানিতে ভেসে যাবে। চীন, ভারত, ভিয়েতনাম, বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যার অর্ধেক সমুদ্রের পানিতে তলিয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছিল। কলকাতা, হাওড়া, মুম্বাইয়ের মতো শহরগুলো ভারতের মধ্যে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছিল।


আরো সংবাদ