১২ নভেম্বর ২০১৯

ট্রেন দুর্ঘটনার প্রধান কারণ চালকের ক্লান্তি

বাংলাদেশের প্রথম নারী রেলচালক সালমা খাতুন - সংগৃহীত

বাংলাদেশে কেন এত ট্রেন দুর্ঘটনা? চালকদের কি প্রশিক্ষণের অভাব? ট্রেন চালক ফরিদা আক্তার বলছিলেন,‘প্রত্যেক চালককে দুই বছর প্রশিক্ষণ নিয়েই ফিল্ডে আসতে হয়। ফলে প্রশিক্ষণের অভাব থাকার কথা না। আসলে ডিউটির চাপে ক্লান্ত চালকরা।’ তিনি আরো বলেন,‘চালক সংকটের কারণে তাদের রোস্টার ঠিক থাকে না। কখনও ২৪ ঘন্টাও ডিউটি করতে হয়।’

মাঝে মধ্যেই বাংলাদেশে ট্রেন লাইনচ্যুত বা দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়৷ গত দুই দিনে দু'টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রংপুরে ইঞ্জিন ঘুরাতে গিয়ে চালক ট্রেনের বগিতেই ধাক্কা দিয়েছেন। আর শুক্রবার আখাউড়ায় একটি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে৷ দুই ঘণ্টা পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক শামসুল হক বলেন,‘আমাদের নজর উন্নয়নের দিকে৷ কিন্তু মেরামত যে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সেদিকে বাজেটও কমে যাচ্ছে। বৃটিশ আমলের রেললাইন নিয়মিত সংস্কার করা প্রয়োজন। সেগুলো কি হচ্ছে? পাশাপাশি অনেকদিন ধরেই রেলে জনবল কম। এটা অন্য সেক্টরের মতো না। একজনকে নিয়োগ দিলে তাকে প্রশিক্ষণ দিয়ে কাজে লাগাতে সময় লাগে। ১৯৯১ সালে একসঙ্গে ১০ হাজার মানুষকে রেল থেকে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে বিদায় দেয়া হয়েছে। এরপর কিন্তু খুব বেশি জনবল নেয়া হয়নি এই সেক্টরে।’

সর্বশেষ শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় জালালাবাদ এক্সপ্রেসের মালবাহী বগি লাইনচ্যুত হয়। দুই ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর চট্টগ্রামের সঙ্গে সিলেটের রেল যোগাযোগ আবারও সচল হয়েছে।

ট্রেন কেন এত লাইনচ্যুত হচ্ছে? এত বেশি দুর্ঘটনার কারণ কী? জানতে চাইলে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেন,‘ব্রিটিশ আমলের রেলপথকে তো খুব একটা গুরুত্বের সঙ্গে কখনো নেয়া হয়নি। আগে মানুষ ট্রেনে চড়তে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতে না। এখন অনেক বেশি মানুষ ট্রেনে চড়েন। ১৯৭৩ সালে রেলে জনবল ছিল ৬৮ হাজার। তখন দেশের মানুষ ছিল ৭ কোটি। আর এখন ১৬-১৭ কোটি মানুষের দেশে রেলের জনবল ২৭ হাজার। ১৯৮৬ সাল থেকে তো রেলে জনবল নিয়োগ বন্ধই ছিল। ফলে বড় ধরনের জনবলসংকট তৈরি হয়েছে। আমরা নতুন করে কিছু নিয়োগ দেওয়া শুরু করেছি। কিন্তু এরজন্য তো সময় দরকার। পরিস্থিতি সামাল দিতে আমরা বহু চালককে অবসরে না পাঠিয়ে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়ে রেখে দিচ্ছি। তা না হলে পরিস্থিতি সামাল দেয়া সম্ভব নয়। আর দেশে সিঙ্গেল লাইনে ট্রেন চলে। ফলে কোথাও দুর্ঘটনা ঘটলে পুরো এলাকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এটা যতদিন না ডাবল লাইন করা যাচ্ছে, ততদিন এই ধরনের কিছু সমস্যা থাকবেই।’

বৃহস্পতিবার রংপুরে ট্রেনের ইঞ্জিন ঘুরাতে গিয়ে দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৫০-৬০ জন ট্রেনযাত্রী। এদের মধ্যে গুরুতর আহত ১৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, সান্তাহার থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী উত্তরবঙ্গ মেল ট্রেনটি কাউনিয়া স্টেশনে পৌঁছানোর পর বিকেল সোয়া ৪টার দিকে চালক ইঞ্জিন পরিবর্তন করছিলেন। তখনই দুর্ঘটনাটি ঘটে৷ এতে আপেল মাহমুদ (২০) নামে এক শিক্ষার্থী ঘটনাস্থলে নিহত হন।

এর আগে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহের কেওয়াটখালীতে দেওয়ানগঞ্জগামী তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এতে দেড় ঘণ্টা ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথে ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল।

ট্রেন চালক ফরিদা আক্তার বলেন,‘ট্রেনে অটোমেটিক ও ম্যানুয়াল দুই ধরনের ব্যবস্থা আছে। দুটো একসঙ্গে কাজ না করলে অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটে যায়৷ এতে চালকের কিছুই করার থাকে না৷ কোনো চালকই চান না দুর্ঘটনা ঘটাতে। কিন্তু তারপরও ঘটে যাচ্ছে। আমরা যারা ট্রেন চালাই, তারা তো কম্পিউটার না, মানুষ। নানা কারণে যে পথ যেতে ১৪ ঘণ্টা লাগার কথা, সেখানে ২৪ ঘণ্টাও লেগে যায়। আমাদের রোস্টার বলে কিছু নেই। কোথাও দুর্ঘটনা ঘটলে তখন সবাইকে ডেকে আনা হয় ডিউটির জন্য। আমরা সামনে যদি একটি গরুকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখি তা-ও চোখ বন্ধ করে আল্লাহর নাম নেই, আর বলি আল্লাহ আমি এই গরুটিকে বাঁচাতে পারলাম না। কারণ, এখানে আমাদের কোনো হাত নেই। আমাদের তো পরিবার আছে। আমার দুটো মেয়ে আছে। তাদেরও সময় দিতে পারি না। এবার ঈদের সময় আমার শ্বাশুড়ি বলছিলেন, ‘এটা কেমন চাকরি, ঈদের দিনও ডিউটি করতে হয়।' আসলে আমাদের চাকরিটাই এমন। মানুষকে তার গন্তব্যে পৌঁছে দিতে হবে এটাই আমাদের চাকরি।'' রেলে বর্তমানে ১৫ জন নারী চালক আছেন বলেও জানাল ফরিদা। সূত্র : ডয়চে ভেলে।


আরো সংবাদ

প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্ষমতাসীনদের টর্চারসেলে পরিণত হয়েছে : সংসদে রুমিন ফারহানা বাবরি রায় নিয়ে যা বললেন দিল্লির শাহী ইমাম ব্রিটেনের নির্বাচনে পাকিস্তান-ভারত লড়াই! মন্দিরের আগে রামের বিশাল মূর্তি অযোধ্যায় মাদকের টাকায় পিকনিক, ওসি-এসআই ক্লোজড তূর্ণা নিশীথা-উদয়ন এক্সপ্রেস সংঘর্ষ : নিহত ১২ আগামী সপ্তাহে খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ হতে পারে ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্ষমতাসীনদের টর্চারসেলে পরিণত হয়েছে : সংসদে রুমিন ফারহানা বিএসএর নবনির্বাচিত সভাপতি আবদুল আউয়াল মিন্টুর দায়িত্ব গ্রহণ আবাসিক গ্যাস সংযোগ দেয়ার পরিকল্পনা আপাতত নেই ভারত ও বাহরাইনে নতুন রাষ্ট্রদূত নিয়োগ

সকল