২৩ অক্টোবর ২০১৯

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ডেপুটি ডাইরেক্টর পরিচয়ে প্রতারণা করতেন তিনি

গাজীপুরে গ্রেফতারকৃত প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ডেপুটি ডাইরেক্টর পরিচয়দানকারী প্রতারক ইল্লাম শাহরিয়ার - নয়া দিগন্ত

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ডেপুটি ডাইরেক্টর পরিচয়দানকারী এক প্রতারককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১’র সদস্যরা। এসময় তার কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ বিভিন্ন কর্মকর্তাদের নামে জাল কাগজপত্র, সীল, ওয়াকিটকি সেট, এসএসএফ’র পোশাক, খেলনা পিস্তল, নগদ টাকা ও গাড়িসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি এবং মালামাল জব্দ করা হয়েছে। অভিযানকালে সরকারী কাজে বাধা দেয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে গাজীপুর কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

বুধবার র‌্যাব-১’র স্পেশাল কোম্পানি পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন এ তথ্য জানিয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতের নাম ইল্লাম শাহারিয়ার (৩৭)। তিনি ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট বারিধারা ডিওএইচএস এলাকার সাবেক সেনা কর্মকর্তা মোঃ সাদিক হাসানের ছেলে। র‌্যাব-১’র গাজীপুরের পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের শিমুলতলীর মৌবাগ এলাকায় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ডেপুটি ডাইরেক্টর পরিচয়দানকারী এক প্রতারক অবস্থান করছে। এ গোপন সংবাদ পেয়ে পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে র‌্যাব-১’র সদস্যরা মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই এলাকার জনৈক ওবায়দুল হকের বাড়ীর ২য় তলায় প্রতারক ইল্লাম শাহরিয়ারের ভাড়া বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।

এ সময় তার কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ডেপুটি সেক্রেটারির নামে একটি আইডি কার্ড, এডিশনাল ডাইরেক্টর এর নামে একটি আইডি কার্ড, ডেপুটি ডাইরেক্টর এর নামে কাগজের প্রিন্ট করা দুটি কার্ড, ডেপুটি সেক্রেটারির একটি কার্ড, ডেপুটি ডাইরেক্টর এর নামে ভিজিটিং কার্ড-৫০০ টি, সত্যায়িত প্রজ্ঞাপন দুই পাতা, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের অফিস আদেশ চার পাতা, বিভিন্ন প্রকার ব্যক্তির নামে (এসএসএফ পরিচালক, সচিব, ব্রিটিশ হাইকমিশনার, বিভিন্ন ব্যাংকসহ বিভিন্ন অফিসের নামে) পনেরটি সীল, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মনোগ্রামের ট্রাকসুট (একটি জলপাইট রংয়ের শার্ট, সাদাকালো একটি), প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মনোগ্রাম ছোট/বড় বিশটি, বাংলাদেশের মানচিত্র মনোগ্রাম পাঁচটি, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মনোগ্রাম যুক্ত আইডি কার্ডের ফিতা দুটি, এসএসএফ এর মনোগ্রামসহ ফিতা তিনটি, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের চেক বই একটি, সাউথইষ্ট ব্যাংকের চেক বই একটি, সোনালী ব্যাংকের চেক বই একটি, ট্রাস্ট ব্যাংকের চেক বই একটি, নগদ ছয় লাখ টাকা, দুটি মোবাইল ফোন, ঢাকা মেট্টো-চ-১১-৯৫৯৫ নম্বরের টয়োটা আলফার্ড সাদা রঙ্গের একটি মাইক্রোবাস, পিএমও লিখা কালো ক্যাপ একটি, বাদামী রংয়ের একটি জ্যাকেট, এসএসএফ এর জলপাই রং এর পোশাক একটি, সিগন্যাল লাইট একটি, ওয়াকিটকি সেট দুটি, লাইটার পিস্তল একটি, খেলনা পিস্তল একটি, এসএসএফ এর আইডি কার্ড একটি, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আইডি কার্ড একটি, ঢাকা মেট্টো-র-১০১২ লিখা একটি গাড়ীর নেইম প্লেট এবং উলেøখিত গাড়ীর সমস্ত কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১’র ওই কর্মকর্তা জানান, সরকারী কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে গাজীপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জান্নাতুল ফেরদৌস গ্রেফতারকৃত আসামী ইল্লাম শাহরিয়াকে (৩৭) বাংলাদেশ দঃ বিঃ ১৮৬ ধারা মোতাবেক ৩মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ প্রদান করে গাজীপুর কারাগারে প্রেরণ করেন।

র‌্যাব’র কোম্পানি কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, গ্রেফতারকৃত ইল্লাম শাহরিয়ার পেশায় একজন আইটি বিশেষজ্ঞ। ওই পেশার আড়ালে সর্বসাধারণের কাছে সে নিজেকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আইটি সেকশনের ডেপুটি ডাইরেক্টর পরিচয়দানের পাশাপাশি তার ব্যবহৃত গাড়ীতে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের বিভিন্ন স্টিকার, মনোগ্রাম, ওয়াকি-টকি সেটসহ এসএসএফ এর ব্যবহৃত পোশাক ও ক্যাপ ব্যবহার করে আসছিল।

তিনি আরো জানান, গ্রেফতারকৃত ইল্লাম শাহরিয়ার দীর্ঘদিন যাবৎ নিজেকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আইটি সেকশনের ডেপুটি ডাইরেক্টর হিসেবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারী কর্মকতা/কর্মচারীদেরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সাধারণ মানুষের নিকট থেকে চাকুরী, পদোন্নতি, বদলী, বিদেশে প্রেরণের কথা বলে প্রতারনার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এসব প্রতারণার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জিজ্ঞাসাবাদকালে র‌্যাবকে জানিয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 


আরো সংবাদ