২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

পুরো পরিবারই সার্ক দাবায়

১০৮ আট দাবাড়ুর প্রতিনিধিত্বে সোমবার থেকে শুরু হলো প্রথম সার্ক দাবা। এতে পুরুষ দাবাড়ুর সংখ্যা ৮৭ জন। এক গ্র্যান্ডমাস্টার নিয়াজ মোর্শেদ ছাড়া দেশের বাকী সব দাবাড়– এতে অংশ নিচ্ছেন। দেশের মাটিতে উন্মুক্ত এই আন্তর্জাতিক আসর। স্থানীয় দাবাড়ুদের ব্যাপকভাবে অংশ নেয়ার সুযোগ দিতেই বাংলাদেশের আয়োজক হওয়া। আর এই সুযোগে পুরো পরিবারই খেলছেন ইতিহাসের অংশ হতে। বাবা, মা ও ছেলে, মা ,ছেলে ও মেয়ে, দুই বোন, শ্যালক -দুলাভাই, ফেডারেশন সেক্রেটারী বাবা এবং বিচারক মায়ের ছেলে সবাইকেই পাওয়া গেল কাল হোটেল ফার্সে শুরু হওয়া দাবা প্রতিযোগিতায়।

পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সার্ক দাবায় অংশ নেয়াদের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত দাবাড়ু হলেন জিয়াউর রহমান। এই গ্র্যান্ডমাস্টারে ছেলে তাহসিন তাজওয়ার জিয়া, এবং স্ত্রী তাসমিনা সুলতানা লাবন্যও খেলছেন টুর্নামেন্টটিতে। জিয়াউর রহমান এবং তাহসিন তাজওয়ার জিয়া এখন বাংলাদেশের দাবাঙ্গনে পরিচিত নাম। দেশের মোটামুটি সব বড় আসরেই তাদের প্রতিনিধিত্ব থাকে। প্রিমিয়ার ডিভিশন দাবা লিগে পিতা-পুত্রের লড়াইও হয়েছে। কিন্তু এবার জিয়ার স্ত্রী এবং তাহসিন তাজওয়ারের মা তাসমিনা সুলতানা লাবন্যকে পাওয়া গেল দাবা বোর্ড। জিয়া খেলছিলেন এক নাম্বার বোর্ডে। লাবণ্যকে পাওয়া গেল নয় নাম্বার বোর্ডে। ছেলে তাহসিন অন্য প্রান্তের ২৫ নাম্বার বোর্ডে খেলছিলেন। লাবণ্য জানান, চার বছর পর আবার দাবায় অংশ নিচ্ছি।

জিয়ার স্ত্রীর খুব কাছের বোর্ডেই খেলছিলেন আনোয়ারা খাতুন। আনোয়ারা খাতুন শুধু একাই নন। তার চার বছরের মেয়ে আরিশা হোসেন তুবা এবং নয় বছরের ছেলে আবির হোসেনও এই সার্ক দাবার প্রতিযোগী। পুরো পরিবারের সবার অংশ গ্রহন নিশ্চিত করতে আনোয়ারা তার স্বামী আরিফ হোসেনকেও খেলতে অনুরোধ করেছিলেন। আরিফ অবশ্য সম্মত হননি। তাহলে তারা ছাড়িয়ে যেতেন জিয়া পরিবারকে।

দুই বোন পাওয়া গেল দুই জোড়া। ওয়াদিফা আহমেদ এবং ওয়ালিজা আহমেদও এই সার্ক দাবায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তাদের সাথে আসা মা অবশ্য বরাবরের মতো এবারও দর্শক। ওয়াদিফা এবং ওয়ালিজাদের নি:শ^াস ফেলা দূরত্বে প্রতিপক্ষের সাথে লড়ছিলেন আরো দুই বোন। হিজাব পড়া এই দুই বোন হলেন নাফিস নুসরাত জাহান এবং কিশোয়ারা সাজনিন ইভানা।

গ্র্যান্ডমাস্টার এনামুল হোসেন রাজীবের সাথে তার দুলাভাই তৈয়বুর রহমানও সার্ক দাবার খেলোয়াড়।

বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সেক্রেটারী সৈয়দ শাহাবুদ্দিন আহমেদ। তার স্ত্রী আন্তর্জাতিক দাবা সংগঠন মাহমুদা হক মলি সার্ক দাবার বিচারক। তাদের সন্তান সৈয়দ রিদওয়ানও অংশ নিচ্ছেন এই আন্তর্জাতিক দাবায়। মলির ভাই মাজেদুল হকও এই আসরের একজন বিচারক।


আরো সংবাদ