২৫ মে ২০১৯
প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি

প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের জেলা-উপজেলায় মানববন্ধন

-

বেতন গ্রেড বৈষম্য নিরসন এবং শতভাগ পদোন্নতিসহ ১১তম গ্রেডে বেতন প্রদানের দাবিতে গতকাল সারা দেশের সব জেলা-উপজেলায় মানববন্ধন করেছেন প্রাথমিকর সহকারী শিক্ষকরা। মানববন্ধন শেষে শিক্ষক জেলাপর্যায়ে জেলা প্রশাসকের কাছে এবং উপজেলায় ইউএনওর কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বরাবর। গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টার পর দেশের সব জেলা-উপজেলা সদরে একযোগে এ কর্মসূচিতে শত শত সহকারী শিক্ষক অংশ নেন।
প্রধানমন্ত্রী বরাবর পাঠানো স্মারকলিপিতে সহকারী শিক্ষকরা বলেছেন, ১৯৬৯ সালে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক উভয়েই ১৩৫ টাকা বেতন পেতেন। বঙ্গবন্ধুর আমলে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকের মধ্যে বেতন স্কেলের ব্যবধান না থাকলেও বর্তমানে তিন ধাপ ব্যবধানে পরিণত হয়েছে। ১৬ বছর চাকরির পর একজন প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারী শিক্ষকের বেতনে ব্যবধান হবে ভাতাসহ প্রায় ২০ হাজার টাকা। বর্তমানে একজন প্রধান শিক্ষক যে স্কেলে চাকরি শুরু করেন একজন সহকারী শিক্ষক সেই স্কেলের এক গ্রেড নিচে চাকরি শেষ করেন, যা সহকারী শিক্ষকদের জন্য চরম বৈষম্য।
স্মারকলিপিতে আরো বলা হয়, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা যে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে চাকরিতে যোগদান করেন, একই যোগ্যতায় অন্য ডিপার্টমেন্টে যারা সরকারি চাকরি করেন তাদের বেতন গ্রেডও সহকারী শিক্ষকদের তুলনায় ৩ থেকে ৪ ধাপ ওপরে। এমনকি ক্ষেত্রবিশেষে শিক্ষকদের চেয়ে কম শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে অন্য ডিপার্টমেন্টে সহকারী শিক্ষকদের তুলনায় বেশি বেতনে চাকরি করেন। এই অবস্থায় সহকারী শিক্ষক সম্মানজনক বেতন স্কেল এবং সামাজিক মর্যাদা ও আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানাচ্ছি।
স্মারকলিপিতে সহকারী শিক্ষকরা বলেন, ২০১৪ সাল থেকে বেতনবৈষম্য নিরসনের বিষয়ে দাবি জানিয়ে আসছি আমরা। সর্বশেষ ২০১৭ সালের ২৩ ডিসেম্বর লক্ষাধিক সহকারী শিক্ষক ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশনে বসলে ২৫ ডিসেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন সচিব, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের তৎকালীন মহাপরিচালক উপস্থিত হয়ে বেতনবৈষম্য নিরসনের প্রতিশ্রুতি দিলে শিক্ষকরা অনশন কর্মসূচি স্থগিত করেন। এরপর, গত জাতীয় নির্বাচনের আগ মুহূর্তে সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড বৈষম্য নিরসনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ও নির্বাচনের পূর্বে প্রদত্ত অডিও ভয়েস কলের মাধ্যমে প্রতিশ্রুতি প্রদান করা হয়। আমরা সেই প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন চাই।


আরো সংবাদ

ফুলতলা উপজেলা সমিতির ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত সমাজে জ্ঞানের গুরুত্ব কমে গেছে : সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী শেখ হাসিনা স্বপ্ন দেখেন এবং তা বাস্তবায়ন করেন : পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ৭টি অবকাশকালীন বেঞ্চ গঠন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি জিনাত আরা ভ্যাকেশন জজ অধ্যাপক হারুন সভাপতি ডা: সালাম মহাসচিব দেশে যে কবরের শান্তি বিরাজ করছে : বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি দেশে অঘোষিত বাকশাল চলছে : চরমোনাই পীর প্রধানমন্ত্রী আজ গাজীপুরের কোনাবাড়ী ও চন্দ্রা ফ্লাইওভার উদ্বোধন করবেন রাজধানীতে হিযবুত তাহরীর নেতা গ্রেফতার শ্রমিকদের বোনাসের দাবি যাতে উপেক্ষিত না হয়

সকল