১১ ডিসেম্বর ২০১৯

শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ময়মনসিংহের কোরবানির পশুর হাট

-

একদিন পরই ঈদ। তাই শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ময়মনসিংহের কোরবানির পশুর হাট। মহানগরীর সার্কিট হাউজ মাঠে বরাবরের মতো এবারো কোরবানির পশুর হাট বসলেও শনিবার দুপুর পর্যন্ত খুব একটা কেনাবেচা বা ভিড় ছিল না। তবে নগরীর আশপাশের কয়েকটি হাটে বিশেষ করে শিকারিকান্দা, চুরখাই, পাড়াইল, শম্বুগঞ্জসহ উপজেলা ও গ্রামাঞ্চলের হাটে ক্রেতাবিক্রেতাদের ভিড় বেশি।
প্রতিটি বাজারেই বিপুলসংখ্যক গরুর আমদানি থাকলেও পশুর মূল্য অথবা পছন্দমতো কোরবানির পশু কিনতে ক্রেতারা ঘুরছেন এক হাট থেকে অন্য হাটে। কোরবানির পশুর মূল্য নিয়ে সন্তুষ্ট নন ক্রেতা ও বিক্রেতারা। বড় গরুর চেয়ে মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি। বিশেষ করে ৪০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা দামের গরু বেশি বেচাকেনা হচ্ছে।
গতবারের চেয়ে এবার গরুর দাম বেশি হওয়ায় অনেকেই শেষ মুহূর্তে পশুর দাম কমবে বলেও মনে করেন ক্রেতারা। তবে বিক্রেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। গৃহপালিত গরু বিক্রি করে অনেকেই লাভবান হলেও কাক্সিক্ষত মূল্য না পাওয়ায় লোকসানের আশঙ্কা করছেন কেউ কেউ।
ময়মনসিংহ জেলায় সরকার নির্ধারিত স্থায়ী পশুর হাট বসেছে ১৩৫টি আর অস্থায়ী হাট বসেছে ১০৫টি। এর মধ্যে ৩১টি বাজার ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে পুলিশ প্রশাসন। পশুর হাটে গরু ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন। তিনি জানান, নগরীরর সার্কিট হাউজ মাঠের হাটসহ বেশ কয়েকটি বড় কোরবানির হাট সিসি ক্যামেরা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।


আরো সংবাদ