২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৪, ১ সফর ১৪৩৯

এএফএমসিতে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের র্যালি ও সেমিনার

-

ঢাকা সেনানিবাসস্থ আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজে (এএফএমসি) গতকাল বৃহস্পতিবার ‘বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস’ উপলক্ষে র্যালি ও মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও আত্মহত্যা প্রতিরোধ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন সামরিক চিকিৎসা মহাপরিদফতর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো: ফসিউর রহমান, এসপিপি, এনডিসি, এমপিএইচ। সভাপতিত্ব করেন মেজর জেনারেল মো: মোস্তাফিজুর রহমান, এমপিএইচ, এমবিএ, কমান্ড্যান্ট আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন মেজর জেনারেল মো: আজিজুল ইসলাম, এফসিপিএস, কনসালটেন্ট ফিজিশিয়ান জেনারেল, এএফএমসি এবং প্রফেসর এম এস আই মল্লিক, এফসিপিএস, এফআরসিপি, সাবেক চেয়ারম্যান এবং বিভাগীয় প্রধান শিশু-কিশোর মনোরোগ বিভাগ, বিএসএমএমইউ।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সামাজিক অস্থিরতা বিশেষ করে সহিংসতা, হিংস্রতা, হানাহানি বন্ধ করে শান্তি ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করতে হবে, কারণ প্রতিটি সহিংসতা, হিংস্রতা মানসিক রোগকে ত্বরান্বিত এবং গভীরতর করে। মানসিক রোগ বিশেষত আত্মহত্যার কারণ এবং এর প্রতিরোধে রোগীর চিকিৎসক, অভিভাবক ও নিকটাত্মীয় সবাইকে সক্রিয় অংশগ্রহণের আহ্বান জানান।
এবারের বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয়ের ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: আজিজুল ইসলাম, এফসিপিএস, এফআরসিপি, এফএসিপি, অধ্যাপক ও উপদেষ্টা মনোরোগ বিশেষজ্ঞ। তিনি বর্তমান বিশ্বে মানসিক স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয়তা, আত্মহত্যা রোগ ও তার প্রতিরোধ সম্পর্কে বক্তব্য প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানের সভাপতি কমান্ড্যান্ট এএফএমসি, মেজর জেনারেল মো: মোস্তাফিজুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, আন্ডার গ্র্যাজুয়েট ও পোস্ট গ্র্যাজুয়েট মেডিক্যাল শিক্ষায় মানসিক স্বাস্থ্যকে গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসকদের মধ্যে এ সম্পর্কিত ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তুলতে হবে।
আলোচনা সভার আগে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথি বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এবং বর্ণাঢ্য র্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: সাইদুর রহমান, ডেপুটি কমান্ড্যান্ট, এএফএমসি অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেজর জেনারেল সুসানে গীতি, সামরিক ও বেসামরিক চিকিৎসক, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং এএফএমসি-এর শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানটি আয়োজনে সার্বিক সহায়তা করে মনোরোগ বিদ্যা বিভাগ, ঢাকা সিএমএইচ। বৈজ্ঞানিক পার্টনার হিসেবে সহযোগিতা করেছে ইউনিমেড ইউনিহেলথ ফার্মাসিউটিক্যালস।


আরো সংবাদ