০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

শিবচরে গণ-উন্নয়ন সমিতির কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

-

শিবচরে গণ-উন্নয়ন সমিতির এমডি ওই প্রতিষ্ঠানের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন প্রতিষ্ঠানের সম্পাদক শাহিদা আক্তার মেরিন ও অন্যান্য কর্মকর্তারা। তারা বলেন, এখনই সরকারের সংশ্লিষ্ট দফর থেকে তদন্ত করে এমডি আবুল হাসেমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে হাজার হাজার গ্রাহক তাদের আমানত থেকে বঞ্চিত হতে পারেন।
লিখিত বক্তব্যে মেরিন জানান, সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণে জমি ক্রয় করতে গিয়ে ভুয়া ভাউচার দেখিয়ে ৮০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন আবুল হাসেম। সাড়ে ৩ লাখ টাকার জমিতে ভাউচার দেখিয়েছেন প্রায় ৫৭ লাখ টাকা। এছাড়া বিবিধ ভাউচারের নামে প্রতি মাসে হাতিয়ে নেন লাখ লাখ টাকা। গ্রাহকের ঋণ পরিশোধ হওয়ার পরও ব্লাংক চেকের মামলা দিয়ে তার কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেন। কারণ ঋণ দেয়ার সময় তিনি প্রতি গ্রাহকের কাছ থেকে ব্লাংক চেক রেখে দেন। গ্রাহককে এক লাখ টাকা ঋণ দেয়া হলে তার হাতে কখনোই এক লাখ টাকা দেয়া হয় না। গ্রাহক পেয়ে থাকেন মাত্র ৭৮ হাজার টাকা। বাকি টাকা অগ্রিম মুনাফা বাবদ কেটে রাখেন এমডি। কিন্তু গ্রাহককে বোঝানো হয় সঞ্চয় বাবদ ওই টাকা কেটে রাখা হয়েছে। তিনি আরো জানান, তার এই অপকর্মের ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানের কেউ মুখ খুলতে পারেন না। কারণ বছরের পর বছর ধরে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান আবুল হাসেমের স্ত্রী রুবিনা ইয়াসমিন। আর বাকি পরিচালক পদে রয়েছেন তার ছেলে, মেয়ে ও আত্মীয়-স্বজনেরা। এছাড়া কাজ না করেও এমডির মেয়ে লুবনা মল্লিক ব্রাঞ্চ ম্যানেজার হিসেবে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা তুলে নিচ্ছেন। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ও গ্রাহকদের ওপর এমডির অত্যাচারে সবাই অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে আবুল হাসেমকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে তার মেয়ে লুবনা মল্লিক জানান, তার বাবা বা পরিবারের কেউ প্রতিষ্ঠানের একটি টাকাও আত্মসাৎ করেননি। বরং যারা অভিযোগ করেছেন তারাই প্রতিষ্ঠানের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এজন্য শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ায় আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন।


আরো সংবাদ