১৭ নভেম্বর ২০১৯

শাহজাহানপুরে নারীকে হত্যা

-

রাজধানীর শাহজাহানপুরের মমিনবাগে ইয়ানুর বেগম পাখি (২৮) নামে এক নারীকে ফ্যানে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিহত নারীর বোন মরিয়ম তার বোনকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন। গত সোমবার রাতে মমিনবাগ এক নম্বর বাড়ির সামনে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
শাহজাহানপুর থানার এসআই জব্বার হোসেন জানান, পাখি দীর্ঘ দিন ধরে মাদক সেবন করে আসছিল। এই নিয়ে তার পরিবারের মধ্যে চলছিল চরম অশান্তি। গত ১৯ অক্টোবর রাতে মাদক সেবনকে কেন্দ্র করে তার বাবা মো: সাদেক মোল্লা পাখিকে বাসা থেকে বের করে দেন। পরে সে তার পূর্ব পরিচিত মমিনবাগের বাসিন্দা মোকাদ্দেছুর রহমান রাজিবের বাসায় উঠেন।
নিহতের বোন মরিয়ম জানান, পাখিকে বাসা থেকে বের করে দেয়ার পর সে রাজিবের বাসায় উঠে। রাজিবের সাথে তার সম্পর্ক ছিল। তাদের বিয়ে করার কথাও ছিল। রাজিব নিজেও মাদকাসক্ত ছিল, মাদক বিক্রিও করত। গত সোমবার পাখি আমাকে ফোন দিয়ে বলেছিল সে দুই দিন ধরে কিছুই খায়নি। তাই তার কথামতো আমি তার জন্য খিচুড়ি কিনে নিয়ে রাজিবের বাসায় যাই। আমি সেখানে যাওয়ার পর কেন খাবার নিয়ে গিয়েছি তার জন্য রাজিব পাখির সাথে রাগারাগি করে। এক পর্যায়ে পাখি রাজিবের ওপর রাগ হয়ে আমাকে মারধর করলে আমি অন্য একটি রুমে চলে যাই। রাজিব ও পাখি এক ঘরে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে ঝগড়া শুরু করে। কিছুক্ষণ পর রাজিব গিয়ে দরজা খুলে আমাকে বলে, তোমার বোন গলায় ফাঁস দিয়েছে। পরে দৌড়ে গিয়ে দেখি পাখি ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না লাগিয়ে ঝুলছে আর ফ্যানটি ঘুরছে। পরে আমি ফ্যানের সুইস বন্ধ করে সেখান থেকে নামিয়ে সিএনজি অটোরিকশায় করে হাসপাতালে নিতে চেয়েছিলাম। এ সময় পুলিশ এসে আমাদের আটকে দেখে পাখি আগেই মারা গেছে। মরিয়ম বিবি অভিযোগ করেন, তার বোনেকে হত্যা করা হয়েছে। কারণ চলন্ত ফ্যানে কেউ ওড়না পেঁচাতে পারে না। তাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে ফ্যান চালিয়ে দেয়া হয়েছে।
পুলিশ বলছে, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। একই সাথে ময়নাতদন্ত রিপোর্টের জন্যও অপেক্ষা করা হচ্ছে। রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।


আরো সংবাদ