১৫ নভেম্বর ২০১৯

দলের কর্মীদের উদ্দেশে গয়েশ^র এখন থেকে অপেক্ষায় থাকবেন না

-

আন্দোলন সংগ্রামের জন্য এখন থেকে দলের কর্মীদের কারো অপেক্ষায় না থাকার কথা বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, নেতারা অনেক সময় নির্দেশ দিতে পারেন না, তাই বলে কর্মীদের বসে থাকলে চলবে না। একাত্তরে নেতারা নির্দেশ দিতে পারেননি। তখন অখ্যাত একজন মেজর (জিয়াউর রহমান) স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু কেউ প্রশ্ন করেনিÑ তুমি কে হে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়ার? তার ঘোষণার সাথে সাথে সবাই যুদ্ধে নেমেছিল। সুতরাং আর প্রেস ক্লাবে নয়, যা হবে রাস্তায় হবে। গতকাল দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে তারেক পরিষদ ঢাকা মহানগর উত্তর আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি সাহেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান প্রমুখ।
শামসুজ্জামান দুদু বলেন, আমাদের আন্দোলনের কৌশল ঠিক করতে হবে। রাস্তার আন্দোলন হবে কৌশলগত কারণে। আমরা কিভাবে রাস্তায় নামব এবং কিভাবে আন্দোলন করে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনব এই পথটি আমরা আজকে বের করতে পারলে কালকেই সরকারের পতন হবে। কালকে বের করতে পারলে পরশু সরকারের পতন হবে।
মরহুম সাদেক হোসেন খোকাকে সরকার যথাযথ সম্মান দিতে ব্যর্থ হয়েছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমরা একজন মুক্তিযোদ্ধাকে শেষ বিদায় জানিয়েছি বৃহস্পতিবার। বিএনপির নাকি কোনো জনপ্রিয়তা নেই। সেদিন ঢাকা শহর ছিল বিএনপির, ঢাকা শহর ছিল বেগম জিয়ার, ঢাকা শহর ছিল সাদেক হোসেন খোকার। কিন্তু সরকার একজন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধাকে যথাযথ সম্মান দিতে ব্যর্থ হয়েছে।


আরো সংবাদ