১০ ডিসেম্বর ২০১৯

তাজরীন গার্মেন্ট অগ্নিকাণ্ডে নিহত-আহতদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন দাবিতে মানববন্ধন

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গতকাল গার্মেন্ট শ্রমিকদের কয়েকটি জোট ও ফেডারেশনের মানববন্ধন : নয়া দিগন্ত -

গতকাল শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গ্রিন বাংলা ওয়ার্কার্স ফেডারেশন, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন, জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক জোট বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ তৃণমূল গার্মেন্ট শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে তাজরীন ফ্যাশনে ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের সপ্তম বর্ষ উপলক্ষে নিহতদের পরিবার ও আহত শ্রমিকদের পুনর্বাসন এবং ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ সব অপরাধীকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
গ্রিন বাংলা ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভাপতি সুলতানা বেগমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের আহ্বায়ক মো: বাহারানে সুলতান বাহার, জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক জোট বাংলাদেশের সভাপতি মো: মাহাতাব উদ্দিন সহিদ ও বাংলাদেশ তৃণমূল গার্মেন্ট শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি শামীম খান, গ্রিন বাংলা ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মো: ইলিয়াস, জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক জোট বাংলাদেশ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: শামসুল হক, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম আহ্বায়ক মো: মোস্তফা, বাংলাদেশ তৃণমূল গার্মেন্ট শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর শেখ লালনসহ বিভিন্ন সামাজিক-শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেনÑ ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় তাজরীন ফ্যাশন লিমিটেডের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত হয়েছিল ১১৩ জন শ্রমিক কর্মচারী এবং আহত হয়েছিল প্রায় দুই শতাধিক শ্রমিক। সে সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন ‘নিহত ও আহত শ্রমিকদের পরিবারকে সাহায্য করবেন এবং অতিদ্রুত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনবেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় প্রধানমন্ত্রী শুধু কয়েকজন শ্রমিককে নামমাত্র সহযোগিতা করেছিলেন এবং দোষীরা আজো বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। প্রায় দুই শতাধিক শ্রমিক কর্মচারী বিভিন্নভাবে পঙ্গুত্ববরণ করে আজো মানবেতর জীবনযাপন করছেন। কোনো প্রকার ক্ষতিপূরণ বা সাহায্য-সহযোগিতা তারা পাননি। অগ্নিকাণ্ডে পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম সদস্যকে হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে অনেক পরিবার। আমরা সেসব নিঃস্ব পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানাচ্ছি। এখনো যারা কর্মক্ষম হয়ে আছে তাদের পুনর্বাসন ও প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণ প্রদানের ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি। মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন নাগরিক উদ্যোগের নির্বাহী পরিচালক মো: জাকির হোসেন। বিজ্ঞপ্তি।


আরো সংবাদ