২৯ জানুয়ারি ২০২০

গণমাধ্যমকে ব্যবহার করছে মালিকপক্ষ : টিআইবি

টিআইবির অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার পুরস্কারপ্রাপ্তদের সাথে অতিথিবৃন্দ : নয়া দিগন্ত -

ব্যবসায়িক স্বার্থ থেকেই মালিকপক্ষ গণমাধ্যমকে ব্যবহার করছে বলে মনে করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। গতকাল সোমবার রাজধানীতে সংস্থাটির কার্যালয়ে ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার চ্যালেঞ্জ : প্রেক্ষিত গণমাধ্যম জবরদখল’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধে এই পর্যবেক্ষণ তুলে ধরা হয়। বাংলা ট্রিবিউন।
অনুষ্ঠানে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার-২০১৯ প্রদান করে টিআইবি। এতে মূল গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন টিআইবির আউটরিচ অ্যান্ড কমিউনিকেশন পরিচালক শেখ মনজুর-ই-আলম। প্রতিবেদনে তিনি বলেন, ‘সরকারের তরফে গণমাধ্যম জবরদখলের অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করা হয়। এ ক্ষেত্রে নতুন নতুন টেলিভিশনের লাইসেন্স দেয়ার বিষয়টি সামনে এনে প্রমাণ করার চেষ্টা থাকে, সরকার স্বাধীন গণমাধ্যমকে উৎসাহিত করছে। কিন্তু বিগত বছরগুলোতে যারা টেলিভিশনের লাইসেন্স পেয়েছেন বা ক্ষেত্র বিশেষে পুঁজির জোগান দিয়ে মালিকানা হস্তগত করেছেন, তারা সবাই একই মতাদর্শী এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ব্যবসায়ী।’
বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, সরকার ক্ষমতা সংহত করতে এবং নির্বাচনে বিজয় নিশ্চিত করতে যে মারমুখী অবস্থান নিয়েছে, তার অন্যতম বলি হচ্ছেন সাংবাদিকরা। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) এক প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে টিআইবি জানায়, ২০১৮ সালে অন্তত ২০৭ জন সাংবাদিক ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের হাতে নির্যাতিত হওয়াসহ কোনো না কোনোভাবে হয়রানির শিকার হয়েছেন।
অনুষ্ঠানে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য ১০ জন সাংবাদিককে পুরস্কার দেয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেনÑ টিআইবির ন্যায়পাল অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন, লেখক ও সাংবাদিক আফসান চৌধুরী, সাংবাদিক জুলফিকার আলী মানিক প্রমুখ।


আরো সংবাদ