২৩ জানুয়ারি ২০২০

টঙ্গীতে ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের ব্যবসা দখলের অভিযোগ

-

টঙ্গীতে নির্বাচনী প্রতিহিংসার জেরে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের ডিস ব্যবসা দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সিটি নির্বাচনে ওই কাউন্সিলরের একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী গতকাল শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে একটি মানবাধিকার সংগঠন ও আওয়ামী লীগ নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। অভিযুক্ত ৪৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুল ইসলাম নূরু টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক।
সংবাদ সম্মেলনে কাউন্সিলর নূরুর বিরুদ্ধে টঙ্গীর ঐতিহ্যবাহী সরকারি খাসপুকুর ‘হিমার দীঘি’ ও সাধারণ মানুষের জায়গা-জমি জবর দখলেরও অভিযোগ করা হয়। এস সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন গত সিটি নির্বাচনে ৪৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুল ইসলাম নূরুর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা রঞ্জুল ইসলাম রঞ্জু। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, জোরপূর্বক কেন্দ্র দখল করে আমার নিশ্চিত বিজয় ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় আমি নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করায় নূরুল ইসলাম নূরু আমার বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। নির্বাচনী মামলাটি বর্তমানে সাক্ষ্যগ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে। এ অবস্থায় মামলার সাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে বিচার প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে নূরুল ইসলাম নূরু বিভিন্নভাবে হুমকি-ধমকি দিয়ে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। এমনকি সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রঞ্জুদের ডিস ব্যবসা জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছেন। নূরুর অত্যাচার নির্যাতন থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও রেহাই পাচ্ছেন না। সম্প্রতি কাউন্সিলর নূরুর নেতৃত্বে তার ক্যাডার বাহিনী ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আলী হোসেনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে আলীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় এবং এলাকার ঈদগাহ মাঠে নিয়ে প্রকাশ্যে নির্মম নির্যাতন চালায়। নূরুর এসব অপতৎপরতায় বর্তমানে রঞ্জু ও তার সমর্থকরা চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছেন।
এ দিকে যোগাযোগ করা হলে কাউন্সিলর নূরুল ইসলাম নূরু এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কারোর ডিস ব্যবসা দখল করিনি। আমি বৈধভাবে ফিডার কিনে ব্যবসা করছি। খাসপুকুর ও জমি দখলের অভিযোগও ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবি করেন।

 


আরো সংবাদ