Naya Diganta

বিশ্বের দু’টি প্রধান সমস্যা

বিশ্বের দু’টি প্রধান সমস্যা

এ নিবন্ধে বিশ্বের দু’টি প্রধান সমস্যা নিয়ে আলোচনা করব। সমস্যাগুলো পরে বলছি। প্রথমে গত এক শ’-দেড় শ’ বছরে সারা বিশ্বে যেসব সমস্যা ছিল সে বিষয়ে কিছু কথা বলা দরকার। গত এক শ’ বছরে অনেক যুদ্ধ ও মহাযুদ্ধ আমরা দেখেছি। এর মধ্যে উল্লেখ্য প্রথম মহাযুদ্ধ, দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ, আলজেরিয়ার যুদ্ধ, ভিয়েতনামের যুদ্ধ, কাশ্মির নিয়ে পাক-ভারত যুদ্ধ ইত্যাদি। এর আগে ইউরোপে শত শত যুদ্ধ হয়েছে। এখন আমি উল্লেখ করব উপনিবেশবাদ, সাম্রাজ্যবাদ সম্পর্কে- অষ্টাদশ শতাব্দী এবং পরে ইউরোপীয় শক্তিগুলো যেমন- ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড, ইতালি, পর্তুগাল প্রভৃতি সারা দুনিয়ায় কলোনি বিস্তার করে এবং আফ্রিকা ও এশিয়ার অধিকাংশ দেশ জবরদখল করে নেয়। এটা ছিল সম্পূর্ণ অবৈধ দখল।

আপনারা স্বীকার করবেন যে, কেউ যদি পাশের বাড়ি দখল করে সেটা অবৈধ এবং আইনগতভাবে বিচারযোগ্য। তাহলে এক রাষ্ট্র কর্তৃক অপর রাষ্ট্র দখল করা কি অবৈধ নয়? অথচ এই অবৈধ কাজটিই ইউরোপ করেছে এবং তারা নৈতিকতার কোনো তোয়াক্কা করেনি। তারা দখল করে এসব দেশে সীমাহীন অত্যাচার-নির্যাতন করেছে এবং ওইসব দেশের সম্পদ লুট করে তাদের দেশে নিয়ে গেছে।

আরেকটি সমস্যা, যেটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দেখা গেছে- সেটি হচ্ছে, সরকারের নির্যাতন-নিপীড়ন। যেমন আমরা দেখেছি ফিলিস্তিনের ওপর ইসরাইলের নির্যাতন, জনগণের ওপর মিসর সরকারের নির্যাতন, সিরিয়ার জনগণের ওপর সে দেশের সরকারের নির্যাতন। এ রকম ঘটনা সারা দুনিয়ায় অনেক দেশেই আছে। এসব সমস্যা আমরা গত কয়েক শ’ বছর দেখে আসছি। এ ছাড়াও আরো সমস্যা বা সঙ্কট আছে। আমার মতে, বর্তমান বিশ্বে দু’টি প্রধান সমস্যা রয়েছে। একটি হচ্ছে রাষ্ট্র ও ব্যক্তির অনৈতিকতা। আরেকটি হচ্ছে, বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্যের নির্মমতা।

অনৈতিকতার কথায় যদি আমরা আসি, তাহলে দেখতে পাবো আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র ইরাক ও আফগানিস্তানে হামলা করেছে। এ রকম আরো ঘটনা ঘটেছে। এগুলো সংশ্লিষ্ট রাষ্ট্রগুলোর অনৈতিকতারই বহিঃপ্রকাশ। অনৈতিক না হলে একটি রাষ্ট্র আরেকটি রাষ্ট্রের ওপর এমন হামলা চালাতে পারে না। তেমনিভাবে আমরা দেখছি, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পরিবার প্রথা ভেঙে গেছে, সমকামিতা বৃদ্ধি পেয়েছে, ব্যভিচার বৃদ্ধি পেয়েছে, বৃদ্ধদের প্রতি অবহেলা বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব কিছুর কারণ, নৈতিকতা না থাকা। নৈতিকতা থাকলে এগুলো ঘটতে পারত না। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, নৈতিকতা কিভাবে ফিরিয়ে আনতে হবে? নৈতিকতা সূর্য থেকে আসে না, চন্দ্র থেকে আসে না, সাগর থেকেও আসে না। নৈতিকতার ভিত্তি হচ্ছে মহান স্রষ্টার ওপর বিশ্বাস এবং মৃত্যুর পরে তাঁর কাছে জবাবদিহিতায় বিশ্বাস। এর জন্য দরকার সারা বিশ্বে ধর্মশিক্ষা বাধ্যতামূলক করা। তাহলে আশা করা যায় যত সময়ই লাগুক, নৈতিকতা ফিরে আসবে। আরেকটি কাজ করা দরকার। তা হচ্ছে, অশ্লীলতাকে দূর করা যা নৈতিকতাকে ভেঙে দেয়। এ জন্য সোশ্যাল মিডিয়া, সাহিত্য, চলচ্চিত্র, মোবাইল সব কিছু থেকে অশ্লীলতার সব পথকে বন্ধ করে দেয়া দরকার।

দ্বিতীয় প্রধান বিশ্বসমস্যাটি হচ্ছে, দারিদ্র্য। সারা আফ্রিকা, ভারত ও মধ্য এশিয়ার কিছু দেশে আজো দরিদ্র অসংখ্য। পুঁজিবাদ এর সমাধান দিতে পারেনি। কারণ, পুঁজিবাদ শুধু মুনাফা লাভে বিশ্বাস করে। দারিদ্র্য দূর করাকে তার দায়িত্ব মনে করে না। সমাজতন্ত্রও সফল হয়নি এ ক্ষেত্রে। এজন্য সমাজতন্ত্র এখন দুনিয়া থেকে প্রায় বিলুপ্তির পথে। দারিদ্র্য দূর করার জন্য দরকার দুনিয়ার রাষ্ট্রগুলোকে একেকটি কল্যাণ রাষ্ট্রে পরিণত করা। কল্যাণ রাষ্ট্রের মূল পরিচয় হচ্ছে- রাষ্ট্র জনগণের কল্যাণের জন্য কাজ করে এবং অসহায়দের দায়িত্ব সরকারই গ্রহণ করে। যেমন ইসলামী খেলাফতের সময় করা হয়েছিল। দারিদ্র্য দূর করতে এমন একটি অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করতে হবে যেখানে বাজারকে ইনসাফের স্বার্থে তত্ত্বাবধান করা হবে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করার বিষয়টিও নিশ্চিত করা হবে। অর্থনীতিকে যদি সুদমুক্ত করা যায়, তাহলে সম্পদের পুঞ্জীভূত হওয়া বন্ধ হবে। আমরা জানি, সুদ ব্যবস্থার কারণে প্রায় দুই শ’ পুঁজিপতির কাছে সারা বিশ্বের শতকরা ৯০ ভাগ সম্পদ চলে গেছে। সুতরাং সুদমুক্ত অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করা ব্যতীত এই প্রবণতাকে বন্ধ করা সম্ভব হবে না। এ ছাড়াও, সমাজের একটি অংশ দিন দিন বেকার হয়ে যাচ্ছে।

সুতরাং তাদের দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। বাংলাদেশের উদাহরণ দেই। যদি গ্রাম এবং শহরের প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষিত বেকারকে বেকারভাতা দেয়া হয়, তাহলে বছরে খরচ হবে তিন হাজার কোটি টাকা; যেটা বাংলাদেশের বাজেটের মোট পরিমাণের (যার পরিমাণ প্রায় ৬ লাখ কোটি টাকা) ১ শতাংশেরও কম। এ হিসাবে বেকারভাতার পরিমাণ মাসে পাঁচ হাজার ধরেছি। আমাদের কর্তব্য হচ্ছে, মেগা প্রজেক্ট কম করে হলেও এসব অসহায়ের দায়িত্ব নেয়া। উপসংহারে বলব, বিশ্বের এ দু’টি সমস্যার দিকে সব রাষ্ট্রনায়ক ও রাজনীতিবিদ, চিন্তাবিদ, আলেমদের, সাংবাদিকদের, লেখকদের নজর দেয়া উচিত। সমস্যা এক দিনে দূর হবে না। কিন্তু এ জন্য চেষ্টা করে যেতে হবে।
লেখক : সাবেক সচিব, বাংলাদেশ সরকার