Naya Diganta

কোরবানির হাটে ‘দশ টাকা’র পানিতে যার জীবন চলে

ঈদের পশু কোরবানির হাটগুলোতে জমে উঠেছে হরেক রকম মৌসুমি ব্যবসা। বাড়তি আয়ের লক্ষ্যে প্রতিবারই পশুর হাটের আশপাশে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন সরঞ্জামাদি নিয়ে নেমে পড়েন অনেকেই।

তাদের একজন বেগম জান। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তিনি পশু বিক্রেতাদের কাছে কলসি নিয়ে পানি সরবরাহ করেন। প্রতি কলস পানি মাত্র ১০টাকা। পানি আনতে বেশি দূর যেতে হয় না। হাটের মধ্যেই পানির পাম্প। প্রতি কলস পানি বাবদ ৩টাকা দিতে হয় পাম্প রক্ষণাবেক্ষনকারীদের। সেই পানি সরবরাহ করছেন দিনের শুরু থেকে রাত পর্যন্ত। আয়ও করছেন ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা পর্যন্ত।

বেগম জান জানায়, সে অন্য সময় পাশ্ববর্তী ইট ভাটায় কাজ করেন। কোরবানির মৌসুম আসলে বিক্রেতাদের কাছে পানি বিক্রি করেন।

বেগম জানায়, এখন পানি বিক্রি করেই দুই ছেলে ও এক মেয়ের সংসার চলে। সারাদিন পানি নিয়ে ঘুরতে ঘুরতে ক্রান্তি আসে। বিশ্রাম নিতে মন চায়। তারপরও বিশ্রাম নেয়ার সুযোগ হয় না। রোজগার যে কমে যাবে তাতে। সংসারই তাহলে চলবে কেমনে।

দেখা যায়, বেগমের মতো আরো অনেকে পানি ফেরি করে বেড়াচ্ছেন। তাদের কারো বয়স কম কারো বেশি। কেউবা বয়সের ভারে  নুয়ে পড়েছেন। তারপরও ফেরি করছেন পানি। জীবন যে থেমে থাকে না।