Naya Diganta

সিংড়ার ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন দিয়ে চাকরির অভিযোগ

নাটোরের সিংড়ার সাতপুকুরিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোছা: জোসনা খাতুনের বিরুদ্ধে ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরির অভিযোগ উঠেছে। সহকারী শিক্ষক (শরীরচর্চা) পদে বিশাল অঙ্কের টাকা উৎকোচ নিয়ে এই নিয়োগ দিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা।
সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সাতপুকুরিয়া দ্বিমুখী উচ্চবিদ্যালয়ে ২০১০ সালে ১৬ সেপ্টেম্বর সহকারী শিক্ষক (শারীরিক শিক্ষা) পদে চাকরির আবেদন করেন মোছা: জোসনা খাতুন এবং ২০ সেপ্টেম্বর একটি ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জমা দিয়ে সহকারী শিক্ষিকা পদে চাকরিতে যোগদানও করেন তিনি। পরে একই বছরের ১০ নভেম্বর ভুয়া নিবন্ধনধারী ওই শিক্ষিকার এমপিওভুক্ত হয়। এর পর থেকেই মোছা: জোসনা খাতুনের বিরুদ্ধে ভুয়া নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরির অভিযোগ ওঠে। ওই শিক্ষিকার চাকরিতে জমাকৃত চতুর্থ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার রোল নম্বর ১২২১০৬১৮ ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর ৮০০০০৪৩৫/২০০৮ ইন্টারনেটে সার্চ দিয়ে নিবন্ধনে ফেল পায় স্কুল কর্তৃপক্ষ।
এ বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটি দাতা সদস্য ও সাবেক ইউপি সদস্য মো: ফরিদুল ইসলাম বলেন, বিশাল অঙ্কের টাকা উৎকোচ নিয়ে আগের কমিটি এই শিক্ষিকাকে নিয়োগ দিয়েছে। পরে আমরা বিশেষ সূত্রে জানতে পারি তার নিবন্ধন সনদ ভুয়া।
অভিযুক্ত শিক্ষিকা মোছা: জোসনা খাতুন বলেন, ভাই আপনে কে বলছেন? একটু পরে কথা বলি, কথা না বলার জন্য তালবাহনা শুরু করেন। তিনি আরো বলেন, নিবন্ধন সনদ সঠিক না হলে কিভাবে এত দিন ধরে চাকরি করছি।
অত্র প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষিকার নিয়োগ তার সময়ে হয়নি, তাই তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: আমিনুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে অবগত নন। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলার সাতপুকুরিয়া দ্বিমুখী উচ্চবিদ্যালয়ে ২০১০ সালে ১৬ সেপ্টেম্বর সহকারী শিক্ষক (শারীরিক শিক্ষা) পদে চাকরির আবেদন করেন মোছা: জোসনা খাতুন এবং ২০ সেপ্টেম্বর একটি ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জমা দিয়ে সহকারী শিক্ষিকা পদে চাকরিতে যোগদানও করেন তিনি।