Naya Diganta

ছোট্ট ইথানের বড় রোগ

হাসপাতালের বিছানায় ইথান

পৃথিবীতে পা রাখার পরই ব্যস্ত হয়ে পড়ে পুচকেরা। কত কাজ তাদের! বয়স বাড়ার সাথে সাথে কাজ বাড়তে থাকে। হাত-পা ছুঁড়াছুড়ি করা, হামাগুড়ি দেয়া, আশপাশের ময়লাগুলো মজা করে খাওয়া, আঙুল চোষা আরো কত শত কাজ। অথচ ইথান শুয়ে আছে হাসপাতালের বিছানায়। নাকে নল ঢুকানো। আর আশপাশে আরো কিছু নল তার শারিরীক অবস্থা মাপার জন্য। কী হয়েছে ওর?

ইথানের হৃৎপিণ্ড আকারে বড়। এ রোগটি ওদের পারিবারিক। ইথানের বাবারও এই রোগ ছিল। ওর জন্মের দুই মাস আগে হৃৎপিণ্ড ট্রান্সপ্লান্ট করে সুস্থ হয়েছেন তিনি। তবে তার বাবা মানে ইথানের দাদা এই রোগেই মারা গেছেন।

কিছুক্ষণ খেলেই দুর্বল হয়ে যায় ইথান

 

ইথানের বাবা রিচার্ড ভেবেছিলেন প্রিয় সন্তানের মুখটি হয়ত আর দেখা হবে না। কিন্তু মহানুভব কেউ একজন হৃৎপিণ্ড দান করায় ট্রান্সপ্লান্ট করেন। এবং সন্তানকে কোলে নেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য সেই সন্তানও এখন একই রোগে আক্রান্ত।

ইথানের রোগটি ধরা পড়ে যখন ওর বয়স মাত্র দুই মাস। খুবই অবাক হয়েছিল তার পরিবার।

ইথানের শারিরীক অবস্থা দেখা হচ্ছে। বাবা ব্যস্ত তাকে শান্ত রাখতে

 

রিচার্ড বলেন, 'এখন হামাগুড়ি দিয়ে খেলা করার বয়স ওর। কিন্তু ও বেশিক্ষণ খেলতে পারে না। দুর্বল শরীর। তাই কিছুক্ষণ খেলার পরই ঘুমিয়ে পড়ে।'

ইথানের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চিয়তায় ভুগছেন বাবা। আফসোস করে বলেন, 'আমি তো হার্ট ট্রান্সপ্লান্ট করে বেঁচে আছি। কিন্তু ইথান তো ছোট! ওর বয়সের কারো হার্ট কি আমরা পাবো? কী হবে?'

সূত্র : ডেইলি মিরর