Naya Diganta

মাঠে গড়াচ্ছে আজ জাতীয় ক্রিকেট লিগ

বৃষ্টি গতকালও হয়েছে। দুপুরে এক পশলা হলেও তা ছিল মুষলধারে। বিশেষ করে ঢাকাতে। ঢাকার বাইরেও কোথাও কোথাও ছিল বৃষ্টি। রাত অব্দি ছিল মেঘের ঘনঘটা। আজ বৃষ্টি আবারো হয় কি না সে শঙ্কায় শেষ হয় দিন! কারণ খেলা শুরু তো আজ থেকেই। জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রিভিউ লিখতে বৃষ্টির কথা সূচনায় টেনে আনার কারণ, বৃষ্টি আর ক্রিকেট একসাথে সম্ভব নয়। সামান্য বৃষ্টি হলেও খেলা বন্ধ হবে। সেটির পরিমাণ বেশি-কমের ওপর নির্ভর করে খেলা বন্ধ থাকার সময়ক্ষণ। জাতীয় ক্রিকেটের এ আসর এবার ভিন্ন একটা মাত্রা পেয়েছে। ক্রিকেটারদের মধ্যেই এ নিয়ে উৎসাহটা বেশি। রুটিরুজির একটা ব্যাপার তো আছেই। সাথে পারফরম্যান্স করে যে যার লক্ষ্যে পৌঁছানোর দারুণ প্লাটফর্ম এটা। এতেই গুরুত্ব বেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে। যেসব জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা এর আগে কিছুটা হলেও এড়িয়ে চলার চেষ্টা করতেন। এবার তাদের মধ্যেও উৎসাহ।
২১তম এ আসরে এবারো খেলছে আট দল দুই টায়ারে। টায়ার ওয়ানে চার দল টায়ার ওয়ান-খুলনা, রংপুর, রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগ। টায়ার-২-এ অংশ নেবে বরিশাল, ঢাকা মেট্রো, সিলেট ও চট্টগ্রাম। আগেই জানানো হয়েছে এবার খেলা হবে দেশের মোট ১০ ভেনুতে। আজ থেকে চার দিনের এ ম্যাচে অংশ নিচ্ছে রাজশাহী ঢাকার বিপক্ষে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে। রংপুর তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে খুলনার বিপক্ষে খুলনায়। বরিশাল তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে সিলেটের বিপক্ষে রাজশাহীতে এবং ঢাকা মেট্রো ও চট্টগ্রামের মধ্যকার খেলা হবে মিরপুর শেরেবাংলায়।
ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় এবার ক্রিকেটারদের প্রত্যাশা ভালো একটা উইকেটে খেলার। এনসিএলের উইকেট ও মাঠ নিয়ে ক্রিকেটারদের ক্ষোভ পুরনো। এ নিয়ে তারা আর কথা বলতেই চাইছেন না। সাকিব নিজেই যা বলেছেন সাংবাদিকদের তার সারমর্ম, এর মান কতটুকু? তা হলো এখানে সেঞ্চুরির পর সেঞ্চুরি করেও আন্তর্জাতিক ম্যাচে বল খুঁজে পান না অনেকেই। পেস বোলারদের নিয়েও কথা বলেছেন তিনি। তিনি জানিয়েছিলেন, আমাদের পেস বোলারদের গতি কই। যে গতি তাদের তাদের রান দেয়ার গড় চারের আশপাশে। তাহলে তাদের দলভুক্ত করে লাভ কী টেস্ট ম্যাচে। ফলে মান বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন, যাতে পারফেক্ট পারফরম্যান্স খুঁজে বের করা যায়। সাকিবের কথা অন্যসব ক্রিকেটারদেরও। বিগত সময়ে যে উইকেটে খেলা হয়ে আসছে তাতে ক্রিকেট খেলা আর সময়ের অপচয় সমান; কিন্তু ক্রিকেটাররা খেলতে চান এবং বহির্বিশ্বে যে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট হয় সেখানে এমন পারফরম্যান্স দিয়ে কিছু হবে না। মান বাড়াতে হবে নিজেদের। এ জন্যই ভালো উইকেটের প্রত্যাশায় তারা।
আফগানিস্তানের কাছে একমাত্র টেস্টে বাজে হারের পর কিছুটা হলেও টনক নড়েছে বিসিবির; কিন্তু তার কতটুকু অ্যাফেক্ট এখানে পড়বে সেটি দেখার বিষয়। কারণ এনসিএলে তারা যে নজরটা দিয়েছেন সেখানে বড্ড দেরি হয়ে গেছে। তবুও ভালো কিছুর প্রত্যাশায় অন্যবারের মতো চেয়ে থাকা এই আর কী!