Naya Diganta

সাইফের হার না মানা ডাবল

৩৪ প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটের ৫১ ইনিংসে এর আগে সেঞ্চুরি তিনটি। যার মধ্যেই ছিল ২০৪ রানের একটি ইনিংস। সাইফ হাসান আবারো হাঁকিয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরি। এবার ২২০ রানে অপরাজিত থেকে শেষ করেন দলীয় ইনিংস। ম্যাচের প্রথম দিন ১২০ করে ইনজুরি হয়ে ফিরেছিলেন প্যাভিলিয়নে। কাল আবার নেমে আরো ১০০ অর্থাৎ ডাবল পূর্ণ করে তবেই থেমেছেন। দ্বিতীয় দিনে ১০০ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে তার দল ঢাকা ৫৫৬/৮ রানে। জহুর আহমেদে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে সাইফের ওই ডাবলে মূলত রানের পাহাড়ে এখন ঢাকা। জবাবে খেলতে নেমে ৭১ রানে হারিয়ে ফেলেছে রংপুর দুই উইকেট। প্রথমত তাদের টার্গেট ফলোঅন সেভ। এরপর তারা পরাজয় এড়িয়ে ড্র করার লক্ষ্যে এগোবে রংপুরের ব্যাটসম্যানরা। রংপুরের ক্রিজে রয়েছেন লিটন কুমার দাস ও নাইম ইসলাম। লিটন ইতোমধ্যে সংগ্রহ করে ফেলেছেন ৫১ রান। ৬৪ বলে ওই রান করেছেন তিনি। দু’টি উইকেটই নিয়েছেন শাকিল।
এর আগে ঢাকা তাদের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩১৪/৪ নিয়ে। মূলত চা বিরতিতেই ইনিংস ডিক্লেয়ার করত ঢাকা। কিন্তু সাইফের রান তখন ১৯০। অপেক্ষা ছিল তার ডাবলের। সাইফ ওই লক্ষ্যে পৌঁছানোর কিছুক্ষণ পর ডিক্লেয়ার করে ইনিংস। সাইফ ২০০ করেন ৩১৬ বল খেলে। ৪৬২ মিনিট ক্রিজে থেকে ওই রান করতে হাঁকান তিনি তিন ছক্কা ১৮ চার। ডাবলের পরে অবশ্য আরো একটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন এবং ২২০ রানে যেয়ে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ফেরেন। এ ছাড়া ঢাকার রান বন্যায় যোগ হয় নাদিফ চৌধুরীর ৬১ রান। এ ছাড়া রনি ও রকিবুল তো আগেই হাঁকিয়েছিলেন হাফ সেঞ্চুরি। রংপুরের সোহরাওয়ার্দী শুভ ও সঞ্জিত সাহা লাভ করেন তিনটি করে উইকেট। এরপর খেলতে নেমে রংপুরের প্রথম ইনিংসে আউট হয়ে গেছেন হামিদুল ইসলাম ও মহিদুল ইসলাম। আজ তৃতীয় দিনে কঠিন এক চ্যালেঞ্জের মধ্যে থাকা রংপুর নামবে ব্যাটিংয়ে।
খুলনায় অনুষ্ঠিত টায়ার-১ এর অপর ম্যাচে রাজশাহীকে প্রথম দিনে অল আউট করে দিয়েছিল খুলনা ২৬১ রানে। কাল দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে দিন শেষে ২২৭ রান করেছে খুলনা দিন শেষে। আগের ম্যাচে ডাবল সেঞ্চুরি করা ইমরুল কায়েস এ ম্যাচে ৯৩ রান করে আউট হয়ে যান। সাত রানের আক্ষেপে পুড়েছেন তিনি। ১৯০ বল খেলে ওই রান করেন তিনি ১৪৩ বলে। এ ছাড়া তুষার ইমরান করেছেন ৪৩ রান। এ ছাড়া আর বড় ইনিংস নেই কারোরই। তবে খুলনার ইনিংস ছিল ধীরলয়ে। বিশেষ করে রাজশাহীর বোলারদের বিপক্ষে সতর্কতার সাথে খেলেন তারা ম্যাচ। এতেই ওই স্কোর। এখনো পিছিয়ে তারা ৩৪ রানে। হাতে চার উইকেট। আজ সকালে চেষ্টা করবে তারা প্রথম কাজটা সেরে রাখতে। আর সেটা হলো ইনিংস লিড। নুরুল হাসান সোহান ৩৫ ও আব্দুর রাজ্জাক সাত রানে ক্রিজে রয়েছেন। আজ আবার নামবেন তারা ব্যাটিংয়ে।