Naya Diganta

লিভারপুলের জয়রথ থামল

অবশেষে লিভারপুলের জয়রথ থামল ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এসে। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাথে প্রিমিয়ার লিগের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে ১-১ গোলে ড্র করে এবারের মওসুমে প্রথমবারের মতো পয়েন্ট হারিয়েছে অল রেডসরা। অ্যাডাম লালানার শেষ মুহূর্তের গোলে কোনো রকমে ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।
মার্কোস রাশফোর্ডের বিতর্কিত গোলে ওলে গানার সুলশারের দল ঘরের মাঠে প্রথমার্ধে ১-০ গোলের লিড নেয়। কিন্তু ম্যাচ শেষে পাঁচ মিনিট আগে বদলি খেলোয়াড় লালানাকে প্রয়োজনীয় ডিফেন্স করতে ব্যর্থ হওয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ৩ পয়েন্ট সংগ্রহ করা হয়নি রেড ডেভিলসদের।
এই ড্রয়ে ম্যানচেস্টার সিটির থেকে ৬ পয়েন্ট এগিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থানটি ধরে রেখেছে লিভারপুল। যদিও লিগে টানা ১৮ ম্যাচ জয়ের সিটিজেনদের রেকর্ড স্পর্শ করতে পারেনি জার্গেন ক্লপের দল। তবে ম্যাচে জয়ী হতে না পারাটা ইউনাইটেডের জন্য বেশি হতাশার ছিল। ৯ ম্যাচে মাত্র ১০ পয়েন্ট নিয়ে ইউনাইটেড রেলিগেশন জোন থেকে মাত্র ২ পয়েন্ট এগিয়ে টেবিলের ১৩তম স্থানে রয়েছে।
ইংলিশ ফুটবলে সবচেয়ে সফল দু’টি দল একে অপরের সাথে মুখোমুখি হওয়ার আগে খুব একটা আত্মবিশ্বাসী ছিল না। যদিও সুলশারের ডাকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ইউনাইটেডের কাছ থেকেই গত রোববার বাড়তি কিছু আশা করা হয়েছিল। ইনজুরির কারণে এ দিন লিভারপুলে ছিলেন না মিসরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ। আক্রমণভাগে মিসরীয় এই ফরোয়ার্ডের অনুপস্থিতি মারাত্মকভাবে অনুভূত হয়েছে। যদিও কাফ ইনজুরি কাটিয়ে দুই মাস পর গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারকে গত রোববার স্বাগত জানিয়েছে লিভারপুল।
তবে ইউনাইটেডের অতিরিক্ত রক্ষণাত্মক কৌশ ও কাউন্টার অ্যাটাকের কারণে ব্রাজিলিয়ান অ্যালিসনকে নিজেকে প্রমাণে খুব একটা কষ্ট করতে হয়নি।
সুলশার তার ফরমেশন পরিবর্তন করে ৩-৫-২ পদ্ধতিতে দল সাজিয়েছিলেন। মূলত লিভারপুলের দুই ইনফর্ম ফুলব্যাক ট্রেন্ট আলেক্সান্দার-আর্নল্ড ও এন্ডি রবার্টসনকে মোকাবেলা করার জন্য সুলশারের এই পরিবর্তন। লিগ টেবিলের শীর্ষে থাকা দলটির বেশ কিছু সুযোগও এই ফরমেশনে দারুণভাবে রুখে দিয়েছে ইউনাইটেড। প্রথমার্ধে লিভারপুলের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি সৃষ্টি করেছিলেন সাদিও মানে। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে বল পেয়ে মানের কাট ব্যাক থেকে অবশ্য রবার্তো ফিরমিনো ইউনাইটেড গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়াকে খুব কাছে থেকে পরাস্ত করতে পারেননি। আন্তর্জাতিক বিরতির আগের দু’টি ম্যাচে ইউনাইটেড কোনো গোল করতে পারেনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই ব্যর্থতা থেকে বেরিয়ে এসে রোববারের ম্যাচে লিড নিতে সমর্থ হয়। ডিভোক ওরিগিকে রুখতে গিয়ে ভিক্টর লিন্ডেলফের বিপরীতে রেফারি মার্টিন অ্যাটকিনসন কোনো ফাউল ধরেননি। সেই সুযোগে ড্যানিয়েল জেমসের নিখুঁত ক্রস থেকে রাশফোর্ড অ্যালিসনকে পরাস্ত করলে ৩৬ মিনিটে এগিয়ে যায় ইউনাইটেড। যদিও গোলটি নিশ্চিতের জন্য ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তা নেয়া হয়েছিল। টাচলাইনে লিভারপুল ম্যানেচার জার্গেন ক্লপকে বেশ হতাশ মনে হয়েছে। মিনিটখানেক পর মানের গোলটি ভিএআরের কারণে হ্যান্ডবল নিশ্চিত হওয়ায় বাতিল করা হলে সফরকারীদের হতাশাই শুধু বেড়েছে।