Naya Diganta
বিবিএফএ অ্যাওয়ার্ড

জনপ্রিয়তায় সেরা শাকিব-পরীমণি, জিৎ-ঋতুপর্ণা

বিবিএফএ অ্যাওয়ার্ড

জমাকালো আয়োজনে শেষ হলো টিএম ফিল্মস নিবেদিত ‘ভারত-বাংলাদেশ ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডস (বিবিএফএ)’-এর প্রথম আসর। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে জনপ্রিয় অভিনেতা-অভিনেত্রী হিসেবে পুরস্কার পেয়েছেন শাকিব খান ও পরীমণি এবং ভারতের জিৎ ও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। সোমবার রাতে রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারের নবরাত্রী মিলনায়তনে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।
এতে আজীবন সম্মাননায় সম্মানিত করা হয়েছে গুণী অভিনেত্রী আনোয়ারা বেগমকে। পাশাপাশি একই পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক। টিএম ফিল্মস নিবেদিত এ পুরস্কার উৎসবের উদ্যোক্তা ফিল্ম ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া ও বসুন্ধরা গ্রুপ। জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় এই আয়োজন। এরপর দেখানো হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্র। প্রদান করা হয় আজীবন সম্মাননা।
পুরস্কার প্রদানের ফাঁকে ফাঁকে নাচ, গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ ও ভারতের জনপ্রিয় শিল্পীরা। অনুষ্ঠানটির সার্বিক সহযোগিতায় ছিল ভারতের জি-বাংলা ও বাংলাদেশের ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। মিডিয়া পার্টনার হিসেবে আছে এটিএন বাংলা ও গানবাংলা টেলিভিশন। ইভেন্ট পার্টনার ওয়ান মোর জিরো। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন কলকাতার মীর আফসার আলি, শাহরিয়ার নাজিম জয়, শান্তা জাহান ও গার্গি রায় চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে পুরস্কার পেলেন যারা : বর্ষসেরা জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খান (বাংলাদেশ) ও ভারতের জিৎ (ভারত)। জনপ্রিয় নায়িকা- পরীমণি (বাংলাদেশ) ও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত (ভারত)। সেরা প্রধান চরিত্র (পুরুষ)- সিয়াম (বাংলাদেশ) ও প্রসেনজিৎ (ভারত)। সেরা প্রধান চরিত্র (নারী)- জয়া আহসান (বাংলাদেশ) ও পাওলি দাম (ভারত)। সেরা চলচ্চিত্র- ‘দেবী’ (বাংলাদেশ) ও ‘নগর কীর্তন’ (ভারত)। সেরা পরিচালক- নাসির উদ্দীন ইউসুফ (বাংলাদেশ) ও সৃজিত মুখার্জি (ভারত)। জনপ্রিয় চলচ্চিত্র- পাসওয়ার্ড (বাংলাদেশ) ও দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন (ভারত)।
সেরা পার্শ্ব চরিত্রাভিনেতা- ইমন (বাংলাদেশ) ও অর্জুন চক্রবর্তী (ভারত)। সেরা পার্শ্ব চরিত্রাভিনেত্রী- জাকিয়া বারী মম (বাংলাদেশ) ও সুদীপ্তা চক্রবর্তী (ভারত)। সেরা পাণ্ডুলিপিকার- ফেরারী ফরহাদ (বাংলাদেশ) ও পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় (ভারত)। সেরা সিনেমাটোগ্রাফার- কামরুল হাসান খসরু (বাংলাদেশ) ও গৈরিক সরকার (ভারত)। ভিডিও সম্পাদনা- তৌহিদ হোসেন চৌধুরী (বাংলাদেশ) ও সংলাপ ভৌমিক (ভারত)। সেরা সঙ্গীত পরিচালক- হৃদয় খান (বাংলাদেশ) ও বিক্রম ঘোষ (ভারত)। সেরা প্লে-ব্যাক গায়ক- ইমরান (বাংলাদেশ) ও অনির্বাণ ভট্টাচার্য (ভারত)। সেরা প্লেব্যাক গায়িকা- যৌথভাবে সোমনুর মনির কোনাল ও ফাতেমাতুজ জোহরা ঐশী (বাংলাদেশ) এবং নিকিতা নন্দি (ভারত)। বিশেষ জুরি পুরস্কার- তাসকিন রহমান ও বিদ্যা সিনহা মীম (বাংলাদেশ) এবং রুদ্র নীল রায় ঘোষ, আবীর চ্যাটার্জি ও নবনী (ভারত)। আজীবন সম্মাননা- আনোয়ারা বেগম (বাংলাদেশ) ও রঞ্জিত মল্লিক (ভারত)।