Naya Diganta

মালদ্বীপকে বিধ্বস্ত করে ফাইনালে মেয়েরা

ইতিহাস সৃষ্টি করল বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দল। যে দৃষ্টান্ত তারা গড়েছে মহিলা ক্রিকেটে সেটা আবার কেউ করবে, এটি অনেকটাই অসম্ভব। প্রথম ব্যাটিং করে নিগার সুলতানা ও ফারজানা হকের অপরাজিত সেঞ্চুরির সুবাদে ২৫৫ রান করেছিল বাংলাদেশ নির্ধারিত ২০ ওভারে। জবাবে খেলতে নামা মালদ্বীপের মেয়েরা ৬ রানে অলআউট হয়। বাংলাদেশের বোলাদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি তারা। ওই ৬ রানের মধ্যে ৪ রান আসে ব্যাট থেকে, বাকি ২ রান একটি লেগ বাই, অপরটি ওয়াইড। ফলে ২৪৯ রানে জয় নিয়ে ফাইনালে ওঠে তারা টুর্নামেন্টের। আগামী ৮ ডিসেম্বর ফাইনাল খেলবে সালমা খাতুনের দল।
পোখরায় অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে প্রথম ব্যাটিং করতে নেমে বিপাকে পড়েছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। মালদ্বীপের বিপক্ষে সূচনায় হারিয়ে ফেলে ২ উইকেট ১৯ রানে। ওই শেষ। এরপর ওয়ান ডাউনে নামা নিগার সুলতানা ও ফারজানা হক খেলেন দুর্দান্ত। পাত্তাই দেননি তারা মালদ্বীপের বোলারদের। মাঠে রান বন্যায় ভাসিয়ে দেন প্রতিপক্ষকে। নিগার তিন ছক্কা, ১৪ চারের সাহায্যে ৬৫ বলে করেন ওই রান। ফারজানাও কম যাননি। সেঞ্চুরি করেন তিনিও। ৫৩ বলে ২০টি চারের মারের সাহায্যে ১১০ রান করে থাকেন অপরাজিত। টি-২০ ক্রিকেটে এটা বাংলাদেশের মেয়েদের সর্বোচ্চ স্কোর তো বটেই। নিঃসন্দেহে বড় জয়ও। একই সাথে দুই ব্যাটসম্যানেরও টি-২০ ফরম্যাটে প্রথম সেঞ্চুরি।
তবে নজরকাড়া নৈপুণ্য ছিল বোলিংয়ে। খেলতেই পারছিলেন না তারা। এমনিতেই ছিল বিগ স্কোরের চাপ। কারণ বাংলাদেশ তো সংগ্রহ করেছিল বিশাল স্কোর। মালদ্বীপের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে আটজনই কোনো রান করতে পারেনি। মানে আউট হয়েছেন শূন্য রানে। ওপেনার কিন্নাত ইসমাইল ১, সাজা ফাতিমাত ১ ও সাম্মা আলী করেন ২ রান। রিতু মনি ও সালমা খাতুন নেন তিনটি করে উইকেট। পূজা ও নাহিদ নেন একটি করে উইকেট।