২৫ আগস্ট ২০১৯

জাপানে অগ্নিকাণ্ডে সন্দেহভাজনের নাম প্রকাশ

-

জাপানে কিয়োটোর অ্যানিমেশন স্টুডিওতে আগুন লাগানোর ঘটনায় ধরা পড়া সন্দেহভাজন ব্যক্তির নাম শিনজি আওবা বলে জানিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকালের ওই ঘটনায় ৩৩ জন নিহত এবং আরো ৩৬ জন আহত হয়। জাপানে দুই দশকের মধ্যে এটিই সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যুর এমন ভয়াবহ ঘটনা।
ভবনে আগুন লাগানোর সন্দেহে পুলিশ শিনজি আওবাকে আটক করে। আহত এ সন্দেহভাজনকে হাসপাতালে পুলিশ কাস্টডিতে রাখা হয়েছে। তাকে জেরা করার জন্য চিকিৎসা করে সারিয়ে তোলার চেষ্টা চলছে। স্টুডিওটির কাছের একটি পেট্রোল স্টেশনের সিসিটিভি ফুটেজে আগুন লাগার ঘটনার কিছুক্ষণ আগে আওবাকে দু’টি কনটেইনারে পেট্রোল ভরতে দেখা গেছে।
পুলিশের ভাষ্য, হামলাকারী কিয়োটো অ্যানিমেশন কোম্পানির স্টুডিও ভেঙে প্রবেশ করে চার দিকে তরল ছিটিয়ে দিয়েছিল। আগুন লাগানোর সময়েও তাকে চিৎকার করে বলতে শোনা গিয়েছিল, ‘তোমরা মরো।’ আগুনে সে নিজেও পুড়ে যাওয়ায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।
আওবার সাথে স্টুডিও কোম্পানির সম্পর্ক কী এবং তার আগুন লাগানোর উদ্দেশ্য এখনো স্পষ্ট নয়। তবে জাপানের গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, স্টুডিওটি আওবার উপন্যাস চুরি করেছে এমন বিশ্বাস থেকেই তিনি স্টুডিওতে আগুন দেন। প্রত্যক্ষদর্শীরাও তাকে বলতে শুনেছিল তার আইডিয়া চুরি করেছে ওই সংস্থা।
জাপানের কিয়োডো বার্তা সংস্থা তদন্তকারী কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, ৪১ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি আটক হওয়ার সময় পুলিশকে বলেছিলেন, ‘আমি এটি করেছি।’ কারণ, স্টুডিও তার উপন্যাস চুরি করেছে বলে তিনি মনে করেন। এ জন্যই তিনি স্টুডিওতে আগুন লাগিয়েছেন। কিয়োটো পুলিশ এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেনি। সম্প্রচারমাধ্যম নিপ্পন টিভি বলেছে, আওবা অগ্নিদগ্ধ হওয়ায় তাকে চেতনানাশক দিয়ে রাখা হয়েছে। ফলে পুলিশ তাকে জেরা করতে পারছে না।


আরো সংবাদ