২৩ আগস্ট ২০১৯

উত্তর কোরিয়ার নতুন ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ

-

উত্তর কোরিয়া গতকাল শনিবার সাগর অভিমুখে নতুন ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। পিয়ংইয়ংয়ের এ ধরনের একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের ক্ষেত্রে এটি সর্বশেষ ঘটনা। দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফস অব স্টাফের বরাত দিয়ে দেশটির বার্তা সংস্থা ইয়োনহাপ এ কথা জানায়।
যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়ার বিরুদ্ধে ‘শক্তি প্রদর্শন’ করতে তারা এ কাজ করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী জানায়, উত্তর কোরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় হমহাং নগরীর নিকটবর্তী এলাকা থেকে পূর্ব সাগর অভিমুখে এসব ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানো হয়। সাগরটি জাপান সাগর নামেও পরিচিত।
জয়েন্ট চিফস অব স্টাফের বরাত দিয়ে ইয়োনহাপ পরিবেশিত খবরে বলা হয়, উত্তর কোরিয়া আরো ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালাচ্ছে কি না তা দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী পর্যবেক্ষণ করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কমপক্ষে একটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে এবং এটি পিয়ংইয়ংয়ের ছোড়া পূর্ববর্তী স্বল্পপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রগুলোর অনুরূপ বলে মনে করা হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক সূত্রের দেয়া তথ্যানুযায়ী, উত্তর কোরিয়া যে দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে, সেগুলো প্রায় ৪৮ কিলোমিটার উঁচু দিয়ে ৪০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছে।
গত সোমবার থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়া যে যৌথ সামরিক মহড়া শুরু করেছে, তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে উত্তর কোরিয়া। এবারের বার্ষিক যৌথ মহড়া বেশ সীমিত আকারে হচ্ছে। কিন্তু উত্তর কোরিয়া বলছে, এ মহড়ার মাধ্যমে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জা ইনের সাথে যে সমঝোতায় পৌঁছানো গিয়েছিল, তা লঙ্ঘন করা হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জুং উনের কাছ থেকে ‘খুব সুন্দর একটি চিঠি’ পাওয়ার কথা জানানোর কয়েক ঘণ্টা পরে এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালান হলো।
নতুন দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার কয়েক ঘণ্টা আগে উত্তর কোরিয়ার নেতার কাছ থেকে চিঠি পাওয়ার কথা জানান ট্রাম্প। হোয়াইট হাউজে সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, এটা খুবই ইতিবাচক চিঠি। আমার মনে হয় আমরা আরেকটি বৈঠক করব। তিনি সত্যি ভালো লেখেন। তিন পাতার চিঠিটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্তই সত্যি সুন্দর এক চিঠি।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক বছরের ব্যবধানে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সাথে তিনবার বৈঠকে বসেন। সবশেষ গত ৩০ জুন তাদের বৈঠক হয় দুই কোরিয়ার সীমান্তে পানমুনজমের অসামরিকায়িত অঞ্চলে।


আরো সংবাদ