০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন কাল মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২ জন

-

উত্তেজনায় পূর্ণ দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আগামীকাল শনিবার। এ নির্বাচনে কঠোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে ইউনাইটেড ন্যাশনাল ফ্রন্টের (ইউএনএফ) প্রার্থী সাজিথ প্রেমাদাসা ও সাবেক প্রতিরক্ষা সচিব গোটাবাইয়া রাজপাক্ষের মধ্যে।
বুধবার নির্বাচনী প্রচারণা শেষ হয়েছে। এ দিন সন্ধ্যায় হোমাগামা শহরে চূড়ান্ত র্যালি করেছেন রাজাপাক্ষে। অন্য দিকে রাজধানী কলম্বোতে র্যালি শেষ করেছেন প্রেমাদাসা। এখন পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন মোট ৩৫ জন প্রার্থী; কিন্তু তাদের মধ্যে দু’জনÑ মিলরয় ফার্নান্দো এবং ড. আই এম ইলিয়াস প্রকাশ্যে সমর্থন দিয়েছেন প্রেমাদাসাকে। প্রেমাদাসাকে ভোট দেয়ার জন্য এই দুই প্রার্থী সমর্থকদের প্রতি প্রকাশ্যে আহ্বান জানিয়েছেন।
বুধবার মিডিয়ার সাথে কথা বলেছেন শ্রীলঙ্কার নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান মাহিন্দা দেশাপ্রিয়া। তিনি জানিয়েছিলেন, সব প্রার্থীকে বৃহস্পতিবারের বিশেষ একটি বৈঠকে উপস্থিত হতে অনুরোধ করা হয়েছে। নির্বাচনী প্রক্রিয়া নিয়ে তাদেরকে ব্রিফ করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে ভোট গণনা ও ফল ঘোষণাও। প্রার্থীদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কোনো রকম প্রচারণামূলক কর্মকাণ্ড না চালাতে অনুরোধ জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।
নির্বাচনকে সামনে রেখে শ্রীলঙ্কায় ভাঙচুর ও আইন লঙ্ঘনের তিন হাজার ৮২৩টি অভিযোগ পেয়েছে কমিশন। এর মধ্যে ২৭টি অভিযোগ সহিংসতাসংক্রান্ত। আর তিন হাজার ৭৯৬টি অভিযোগ করা হয়েছে নির্বাচনী আইন লঙ্ঘনের। এসব অভিযোগ খতিয়ে দেখতে নির্বাচন কমিশন রাজাগিরিয়াতে অবস্থিত নির্বাচন সচিবালয় ও সব জেলা অফিসে অভিযোগ শাখা স্থাপন করেছে। ও-দিকে গোটাবাইয়ার আইনি প্রধান উপদেষ্টা আলি সাব্রি বলেছেন, গোটাবাইয়ার প্রমাণিত যে সুখ্যাতি রয়েছে তা-ই তার জয়ে সহায়তা করবে। শ্রীলঙ্কা থেকে সন্ত্রাস নির্মূলের দাবিদার গোটাবাইয়া।
অন্য দিকে প্রেমাদাসার রাজনৈতিক প্রচারণার সাথে যুক্ত ছিলেন শ্রীলঙ্কার শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী রিশাথ বাথিউদ্দিন। তার প্রত্যাশা নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারেন প্রেমাদাসা। অল সাইলন মাক্কাল কংগ্রেসের নেতা রিশাথ বাথিউদ্দিন। তিনি বলেছেন, মুসলিমদের মোট ভোটের শতকরা ৯৫ ভাগ ভোট পাবেন প্রেমাদাসা। অন্য দিকে সংখ্যাগুরু তামিলদের ভোট তো আছেই। একই রকম কথা বলেছেন ন্যাশনাল ইউনিটি অ্যালায়েন্সের নেতা আজাদ স্যালি। তিনিও বলেছেন, তামিল ও মুসলিম সম্প্রদায়ের বেশির ভাগই রয়েছেন প্রেমাদাসার সাথে। অন্য দিকে মুসলিম কাউন্সিল অব শ্রীলঙ্কার চেয়ারম্যান এন এম আমিন বলেন, এবারই প্রথম নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কম সহিংসতা হয়েছে। নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য এরই মধ্যে মোতায়েন করা হয়েছে কমনওয়েলথের একটি পর্যবেক্ষক দলকে। তাদেরকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে শ্রীলঙ্কার নির্বাচন কমিশন। এই দলে আছেন নির্বাচন ব্যবস্থাপনাবিষয়ক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিনিধিরা, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, পুলিশ, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সদস্য, নাগরিক ও আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক।

 


আরো সংবাদ