১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আওয়ামী দুঃশাসনে দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে : রিজভী

আওয়ামী দুঃশাসনে দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে : রিজভী - সংগৃহীত

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের দু:শাসনে দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, সারাদেশের মানুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ নেই। দেশ আজ মহা বিপর্যয়ের মুখে। সর্বগ্রাসী সংকটে টালমাটাল অবস্থা। সমস্যা-সংকট গভীর থেকে গভীরতর, কোনো আশার আলো নেই, আছে শুধু অন্ধকার, হতাশা ও অনিশ্চিত আগামী। ক্ষমতাবানরা দায়বোধের অনুশোচনা ভুলেই গেছে। অনাচার ও অসাধুতার প্রকোপে মানুষের স্বাভাবিক মৃত্যুর অধিকারটুকুও কেড়ে নিচ্ছে তারা। ডেঙ্গুর ভয়াবহ ছোবলে দেশ বিধ্বস্ত।

তিনি অবিলম্বে দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। আজ রোববার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। এসময় দলের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, বেলায় টল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষের প্রত্যাশা ছিল পবিত্র ঈদুল আযহার পূর্বেই মিথ্যা সাজানো মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন।

কিন্তু ভোটের আগের রাতের নির্বাচনের সরকার প্রধানের হুকুমেই তাকে জামিন দেওয়া হয়নি। তিনি গুরুতর অসুস্থ হলেও এখনো তার সুচিকিৎসা মেলেনি। তাকে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার জন্য দলের পক্ষ থেকে, পরিবারের পক্ষ থেকে পছন্দের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা করার দাবি জানালেও সরকার তোয়াক্কা করছে না। ৪ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ২ বারের সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা, বাংলাদেশের একটি বড় রাজনৈতিক দলের প্রধানকে কারাগারে বন্দি রেখে নিষ্ঠুর নির্যাতন করে, সুচিকিৎসা না দিয়ে সর্বোচ্চ প্রতিহিংসা চরিতার্থ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ক্ষমতার মোহে আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক কৃষ্টি কালচার দেশ থেকে বিতাড়িত করে দিয়েছে। কিন্তু ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না, এ জুলুমের বিচার একদিন হবেই।

সেদিন বেশী দুরে নয় যেদিন দেশবাসী ক্ষমতাসীনদের রাষ্ট্রদাসত্ব থেকে মুক্তি পাবে, বাংলাদেশের মানুষ মিডনাইট সরকারের পতন দেখতে পাবে। মানুষ বসে থাকবে না। সকল অত্যাচার, নির্যাতনের শিকল ভেঙ্গে দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে। বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি হিংসাশ্রয়ী অবিচার ও অন্যায়ের বিচার এদেশে একদিন হবেই। এখনই জনগণ ঘুরে দাঁড়ানোর স্পর্ধিত বার্তা দিচ্ছে। দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে, মানুষ ফিরে পাবে তাদের নাগরিক স্বাধীনতা। দেশবাসীসহ আমরা ব্যথিত, দু:খিত, বেদনার্ত এই ঈদের আগের দিনও বেগম জিয়ার মুক্তি মেলেনি। এ মুহুর্তে বেগম জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষ ঈদ যাত্রায় যে দুর্ভোগ সেটাকে দুর্ভোগ হিসেবে মনে করে না। এটা তারা ঈদ আনন্দের অংশ হিসেবে মনে করে। তিনি বলেন, এবারের ঈদ যাত্রা স্বস্তিদায়ক ছিল।

উত্তরের পথে ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে যানজটের খবর গণমাধ্যমে এলেও তিনি জানিয়েছেন যানজটের কোনো তথ্য তার কাছে নেই। নিশিরাতের ভোটের সরকারের মন্ত্রীদের কথাতেই প্রমানিত হয় রোম পুড়ে ছারখার হয়ে গেলেও নিরোর মতো শাসকরা বাঁশী বাজায়। ওবায়দুল কাদের সাহেব’রা এই মহাদুর্যোগ ও পথে পথে মহাদুর্ভোগের মধ্যে সেই আনন্দের বাঁশী বাজাচ্ছেন। অসত্য ও বাস্তবতা বিবর্জিত বক্তব্যই তাদের দিতে হবে, কারন মিথ্যার ওপর দু:শাসন চালাতে গিয়ে সত্য কথা বলার অধিকার তাঁরা হারিয়েছে। ঈদ যাত্রা নিয়ে ওবায়দুল কাদের সাহেবের বক্তব্য দু:খ দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের সাথে নিষ্ঠুর রসিকতা। অপরের দু:খ যন্ত্রণাকে আনন্দ উৎসব হিসেবে মনে করা আওয়ামী লীগের রুচি ও সংস্কৃতি। তিনি আরো বলেন, আসলে সেতুমন্ত্রী মানুষের দু:খ দুর্দশা জানবেন কিভাবে, তিনি তো জনগণের মন্ত্রী নন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভোটে নির্বাচিত মন্ত্রী।

হুইসেল বাজিয়ে রাস্তা ফাঁকা করে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ীতে ছুটে বেড়ানোর সেতুমন্ত্রীর অবাধ সুযোগ থাকে। সুতরাং ঘন্টার পর ঘন্টা যানযটে রাস্তায় ঈদে ঘরমুখী মানুষের আটকে পড়ার দৃশ্য দেখে আনন্দ পাওয়ারই কথা। মহাসড়কে ঘন্টার পর ঘন্টা মানুষ যানজটে পড়ে আছে। ভাড়া আদায় করা হয়েছে কয়েকগুন বেশী। ৪০ টাকার ভাড়া ৪০০ টাকা, ৩০০,৪০০ টাকার ভাড়া আদায় করা হয়েছে ১২০০ টাকা। ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য চললেও দেখার কেউ নেই। কোনো কোনো মহাসড়কে ৭০-৮০ কি. মি.যানজট। লঞ্চগুলোতে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বহুগুণ বেশী যাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ী যাচ্ছে। ফেরি ঘাটেও গাড়ীর লম্বা লাইন। সবগুলো ট্রেন সিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে। সকালে ট্রেন রাতেও ছেড়ে যায়নি।

পরিবার পরিজন নিয়ে স্টেশনগুলোতে বসে থেকে অগুণতি মানুষের কষ্টের সীমা নেই। আর এটাকেই সেতু মন্ত্রী বলছেন, এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক ও আনন্দঘন। আওয়ামী লীগের কাজই হলো মানুষের দু:খ দূর্দশা নিয়ে ইয়ার্কী করা, তামাশা করা। রিজভী বলেন, এডিস মশার দল রক্ত খেতে ছুটে বেড়াচ্ছে দিকবিদ্বিক। মৃত্যুর মিছিল বড় হচ্ছে দিনকে দিন। বানভাসী মানুষের দুর্দশা চরম শোচনীয়। গুম-ক্রসফায়ারের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। খুন-ধর্ষণ ডালভাত হয়ে দাঁড়িয়েছে। নির্বিচারে গণপিটুনিতে প্রাণ হারাচ্ছে নিরীহ নারী-পুরুষ। আইন আদালতকে ক্ষমতাসীনরা নিজেদের ইচ্ছানুযায়ী ব্যবহার করছে। দুর্নীতির মরণ ছোবল তথা রাহুগ্রাসে দেশ এখন শুন্য গহ্বর। এ যেন এক পৈশাচিক বিকৃতি। এ পরিস্থিতিতে দেশবাসীর মনে ঈদুল আযহার আনন্দ নেই।

রিজভী আরো জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। একইসঙ্গে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এছাড়াও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও দেশবাসী, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গুম-খুন ও নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।


আরো সংবাদ

সৌদিতে ড্রোন হামলা : বিনা প্রমাণে কাউকে দোষারোপ না করতে চীনের আহ্বান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে কাশ্মিরে যাওয়ার ঘোষণা ভারতের প্রধান বিচারপতির জাবি ভিসির অনিয়ম খতিয়ে দেখবে ইউজিসি পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হলে দিলিপ ঘোষকে যশোহর পাঠিয়ে দেবো তিন হাজার ৫ কোটি টাকা রাষ্ট্রের ক্ষতি ওমরাহর খরচ বাড়ছে, সৌদি ফি নিয়ে ধূম্রজাল রোমের রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া অর্থ ফেরত দিয়ে আলোচিত বাংলাদেশী তরুণ ফাঁসির রায় শুনে আসামি হাসে বাদি কাঁদে হাতিয়ায় ইলিশের জালে ২২ ভাসমান মহিষ রাজধানীতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৫ পুলিশ সদস্য রিমান্ডে নবম ওয়েজবোর্ডে রোয়েদাদ সুবিধা সঙ্কুচিত করার প্রতিবাদ এমইউজে খুলনার

সকল