১৪ অক্টোবর ২০১৯

খালেদা জিয়ার সরকার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে বাধ্য করেছিল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর - ফাইল ছবি

১৯৭৮ সালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এবং ১৯৯৪ সালে খালেদা জিয়ার সরকার বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে বাধ্য করেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা (জাসাস) আয়োজিত জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

জাসাস কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ড. মামুন আহমেদ-এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন-কবি আব্দুল হাই সিকদার, জাসাস সাধারণ সম্পাদক নায়ক হেলাল খান, বিশিষ্ট নজরুল গবেষক নাসিম আহমেদ, রেজাবুদ্দৌলা, জাসাস মহানগর সভাপতি সানাউল হক প্রমুখ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তিনি বলেছেন-রোহিঙ্গাদের সমস্যা নাকি আমরা তৈরি করেছি। আসলে ওনারা পারছেন না, তারা ব্যর্থ হয়েছেন। আমরা পেরেছিলাম। ১৯৭৮ সালে জিয়াউর রহমান সাহেবের সময় রোহিঙ্গারা এসেছিল। তখন তিনি অতি অল্প সময়ের মধ্যে মিয়ানমারকে বুঝিয়ে শুনিয়ে তাদের ফেরত পাঠিয়েছিলেন। কেন পেরেছিলেন, সেই শক্তি জিয়াউর রহমানের ছিল।’

‘সেই সময় জিয়াউর রহমান কক্সবাজারে একটা ক্যান্টনমেন্ট তৈরি করে ফেলেছিলেন। মিয়ানমারকে বলেছিলেন আইদার ইউ গেট ব্যাক, অর ইউ ফেস। খালেদা জিয়ার সময় ৯৪ সালে ২ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা এসেছিল। তখন তিনি বলেছিলেন, ফেরত নেবে না অন্য ব্যবস্থা নেব। তারা ফিরিয়ে নিয়েছিল।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে মিয়ানমারকে এরা একবার বকাবকিও করেনি। কোথাও একটা এস্টেটমেন্টও নাই। যেখানে বলা হয়েছে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের হত্যা নির্যাতন করছে। বার বার তাদের বলছে নিয়ে যাও, নিয়ে যাও। কিন্তু তারা নিচ্ছে না। মিয়ানমার যা বলছে এরা তাই করছে। ওদের ট্রাপে পড়ে গেছে। আজকে এমন কূটনৈতিক অবস্থা যে একটা দেশও বাংলাদেশের পক্ষে নেই। চীন, ভারত, জাপান, রাশিয়া সব মিয়ানমারের পক্ষে।’

তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে নাকি বন্ধুত্ব সবচেয়ে উচ্চ।’ তাহলে দুই বছর চলে গেলো কি করলেন?

দেখুন:

আরো সংবাদ