১২ নভেম্বর ২০১৯

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল : নফল ইবাদত ও দুর্গতদের পাশে থাকার আহ্বান জামায়াতের

-

আজ শনিবার দিবাগত মধ্যরাতে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলের’ বাংলাদেশের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, খুলনা-বরিশাল অঞ্চলের উপর সম্ভাব্য আঘাত হানার আশঙ্কা রয়েছে। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য নফল নামাজ, তাসবীহ-তাহলীল ও মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারের দোয়া এবং সম্ভাব্য যেকোন পরিস্থিতির ক্ষেত্রে সরকার, সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও দেশের বিত্তবান মানুষসহ উপকূলীয় অঞ্চলের জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীসহ সকল শ্রেণি-পেশার সাধারণ জনগণকে দুর্গত মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ।

আজ এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান। 

বিবৃতিতে মকবুল আহমাদ বলেন, দেশের আবহওয়া অধিদফতর থেকে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আজ শনিবার দিবাগত মধ্যরাতে দেশের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলের উপর আঘাত হানার আশংকা করা হচ্ছে। উল্লেখিত জেলা সমূহ ও তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৫ থেকে ৭ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। আবহাওয়ার এমন অগ্রিম সতর্কবার্তা বাস্তবে রূপ নিলে তাতে উপকূলীয় এলাকায় জান-মালের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, সকল বিপদ-আপদ, সংকট-দুর্যোগ মহান আল্লাহর পক্ষ থেকেই আসে। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কালামে হাকীমে ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয় আমি তোমাদেরকে ভয়, ক্ষুধা, জানমাল ও ফসলের ক্ষয়ক্ষতি দিয়ে পরীক্ষা করব’ (সুরা আল বাকারাহ-আয়াত-১৫৫)। কিন্তু আল্লাহর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া মানুষের জন্য মোটেই সহজ সাধ্য নয়। তাই ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’সহ যেকোন সম্ভাব্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে বাঁচতে ও আল্লাহর পরীক্ষা থেকে নাজাত পেতে আমাদেরকে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারের ধর্ণা দেয়ার কোন বিকল্প নেই।

জামায়াতের আমীর বলেন, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন পবিত্র কালামে পাকে আমাদেরকে সে নির্দেশনা দিয়ে বলেছেন, ‘তোমরা ধৈর্য ও নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা কর।’ (সুরা আল বাকারাহ-আয়াত-৪৫) তিনি ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাত থেকে বাঁচতে মহান আল্লাহ তায়ালার সাহায্য প্রার্থনা করে দেশের সকল মসজিদে ও ব্যক্তিগত পর্যায়ে নফল নামাজ, তাসবীহ-তাহলীল ও বিশেষ মোনাজাত করতে সারাদেশের সকল স্তরের নেতাকর্মীসহ দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, উপকূলীয় অঞ্চলের লোকদের নিরাপদ স্থানে সরানোসহ তাদের কল্যাণের জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য নিতে হবে বিশেষ ব্যবস্থা। নিত্যপ্রয়োজনী খাদ্য সামগ্রী, পানীয় দ্রব্য ও চিকিৎসা সামগ্রীর অগ্রিম মজুদ রাখতে হবে। এ বিষয়ে সরকার ও সংশ্লিষ্ট বিভাগকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। কারণ, যেকোন দুর্যোগে জনগণের পাশে দাঁড়ানো সরকারের সাংবিধানিক ও নৈতিক দায়িত্ব। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতের আশঙ্কা থেকে পরিত্রাণ পেতে তিনি মহান আল্লাহ তায়ালার সাহায্য কামনা করেন এবং মহান আল্লাহর ফয়সালা অনুযায়ী সম্ভাব্য যে কোন পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে সরকার, দাতা ও সাহায্য সংস্থা এবং উপকূলীয় অঞ্চলের জামায়াতে ইসলামীর সকল স্তরের নেতাকর্মীসহ সকল শ্রেণি-পেশার জনগণকে মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করার লক্ষ্যে সর্বশক্তি নিয়ে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান।


আরো সংবাদ