১১ ডিসেম্বর ২০১৯

মীর নাছির-মীর হেলালের সাজা বহাল : বিএনপি মহাসচিব-আইনজীবী ফোরামের উদ্বেগ

-

বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন ও তার ছেলে ব্যারিস্টার মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিনকে দুর্নীতির মামলায় বিচারিক আদালতের দেওয়া সাজা হাইকোর্টে বহাল রাখার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম আহ্বায়ক খন্দকার মাহবুব হোসেন ও সদস্য সচিব মো. ফজলুর রহমান।

শুক্রবার পৃথক বিবৃতিতে তারা এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বর্তমান সরকার বিএনপিসহ বিরোধী দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দসহ সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরতিহীনভাবে হয়রানী করে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন এবং তার পুত্র ও বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে নিম্ন আদালতের সাজা উচ্চ আদালতে বহাল রাখা হলো। সরকারের চক্রান্তেই সাজানো মামলায় এই সাজা দেয়া হয়েছে। যদিও ২০১০ সালে হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ দু’জনকে খালাস দেয়। কিন্তু সরকার আপীল করে পুনরায় বিচারের জন্য হাইকোর্টে ফেরত পাঠান। এই ঘটনাতেই প্রমাণিত হয় যে, সরকার বিএনপি নেতাদের ধ্বংস করার জন্য নানাভাবেই চক্রান্ত এঁটে চলেছে। মিথ্যা ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় উচ্চ আদালত কর্তৃক মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন এবং তার পুত্র ব্যারিষ্টার মীর হেলাল এর সাজা বহাল রাখার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি এবং অবিলম্বে মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি।

অন্যদিকে আরেক বিবৃতিতে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম আহ্বায়ক প্রবীণ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও সদস্য সচিব মো: ফজলুর রহমান বলেছেন, রাজনৈতিক নেতাদের হয়রানী করার জন্য বিভিন্নভাবে মামলা দেয়া হচ্ছে। বিগত ওয়ান ইলেভেনের সময় হয়রানী করার জন্য রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলা করা হয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করেছে। অপর দিকে বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ওই সময় দায়ের করা মিথ্যা মামলায় বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। তারা অবিলম্বে মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন এবং ব্যারিস্টার মীর মোহাম্মদ হেলালের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান।


আরো সংবাদ