২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শত বাধা সত্ত্বেও শৃঙ্খলা না ভাঙার আহ্বান তাবিথের

প্রতিপক্ষের শত বাধা সত্ত্বেও শৃঙ্খলা ভঙ্গ না করার আহ্বান জানিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বিএনপির মনোনীত মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেছেন, আমাদের মূল শক্তি হচ্ছে জনগণ, তারা আমাদের সাথে আছেন। প্রচারে নেমে আমরা নগরবাসীর ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। নির্বাচনী মাঠে আর কোনো অঘটন ঘটুক, তা চাই না। যত বাধা আসুক আমরা শৃঙ্খলা ভাঙব না।

নেতাকর্মী ও ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সামনের সাত দিন কঠিন সময়। নির্বাচন থেকে দূরে সরাতে আপনাদের ভয়-ভীতি দেখানো হবে। আপনারা ভয় পাবেন না। সাহস নিয়ে ভোটকেন্দ্রে যাবেন। আসলে ভয় যারা দেখাচ্ছেন তারা আপনাদেরকে বেশি ভয় পায়। শনিবার মিরপুর এলাকার ৬, ২ ও ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে কয়েকটি নির্বাচনী পথসভায় অংশ নিয়ে তাবিথ আউয়াল এসব কথা বলেন।

ইভিএমের ব্যাপারে আবারো জোর আপত্তি জানিয়ে ধানের শীষের এই প্রার্থী বলেন, আমরা ইসিকে অনুরোধ করছি, সব যুক্তিগুলো আমলে নিয়ে এ নির্বাচনের জন্য ইভিএম বন্ধ রাখুন। অন্তত এ নির্বাচনে ব্যালটে ভোট নিন। ভবিষ্যতে সব রাজনৈতিক দলের সাথে আলাপ-আলোচনা করে এ বিষয়ে করণীয় ঠিক করা যাবে।

তাবিথ আউয়ালের শনিবারের প্রতিটি সভায় নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। নেতাকর্মীরা ‘ধানের শীষ’, ‘ধানের শীষ’ স্লোগানে মিরপুরের নানা অলিগলি প্রকম্পিত করে তোলেন। মাইকিং করে স্থানীয়দের ভোট চাওয়া হয়। মেয়রপ্রার্থী নিজে দিনভর ধানের শীষের লিফলেট বিতরণ করেন। এলাকার মুরব্বিদের তিনি বুকে জড়িয়ে ধরেন। অনেককে তাবিথ আউয়ালের জন্য দোয়া করতে দেখা যায়।

শনিবার বেলা ১১টায় মিরপুর ৬ নম্বর সেকশন কাঁচাবাজার এলাকায় পথসভা করার মধ্য দিয়ে ১৬তম দিনের মতো নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন তাবিথ আউয়াল।  এ সময় ধানের শীষের প্রচারণায় হামলা ও নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা প্রসঙ্গে তাবিথ আউয়াল বলেন, ‘দুঃখজনকভাবে বলতে হচ্ছে, নির্বাচন কমিশন যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করেনি। এ জন্য সামগ্রিকভাবে নির্বাচনে একটি নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। তারপরও আমাদের মনোবল শক্ত আছে, আমরা ইতিবাচক ভূমিকায় আছি, এ ভূমিকায়ই থাকব।’

তিনি বলেন, ‘ভোটারদের মন এখন ১ ফেব্রুয়ারির দিকে। ভোটাররা কেন্দ্রে গিয়ে সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারলে আমরা জয় লাভ করব।’
এ পথসভায় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, বিএনপির ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হক, ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মাহফুজ হোসাইন খান সুমন, ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন দুলু, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির দফতর সম্পাদক এ বি এম রাজ্জাক, যুবদল উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম মিল্টন, জিয়া পরিষদের মহাসচিব ড. এমতাজ হোসেনসহ বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ এলাকায় গণসংযোগ শেষে তাবিথ আউয়াল বেলা ২টায় ইসিবি চত্বরে পথসভা ও গণসংযোগ করেন। এ সময় তিনি এলাকাসীকে নির্ভয়ে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। তিনি এলাকার উন্নয়নে নানা প্রতিশ্রুতি দেন।  এরপর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় মাটিকাটা বাজারে পথসভায় বক্তব্য রাখেন। তাবিথ আউয়াল বলেন, এই এলাকায় শিশুরা ও মা-বোনেরা রাতে নির্ভয়ে চলাচল করতে পারেন না। তাদের নিরাপত্তার যথেষ্ট অভাব রয়েছে। এখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খুবই করুণ। খেলার মাঠ নেই, বাতাস দূষিত। দূষণমুক্ত পরিবেশ তৈরির জন্য আদালত রায় দিয়েছেন। যারা অতীতে দায়িত্বে ছিলেন, তারা আদালতের রায় মানেননি। জনগণের দাবিও তারা পূরণ করেনি। তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্ব দিলে আমরা জনগণের এসব দাবি বাস্তবায়নের চেষ্টা করব।

গণসংযোগে অংশ নিয়ে বিএনপি নেতা মেজর (অব:) আখতারুজ্জামান সবাইকে ধানের শীষে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। এরপর তাবিথ আউয়াল ভাষানটেক পকেট গেট, ভাষানটেক কাঁচাবাজার, মানিকদি মাঠের মোড়, বালুঘাট, আজিজ মার্কেট, হাজী মার্কেট ও আলাউদ্দিরটেকে পথসভা ও গণসংযোগ করেন। মিরপুর ১৪ নম্বর মোড়ে পথসভার মাধ্যমে গতকালের গণসংযোগ শেষ হয়। এ সময় তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের কাছে কালো টাকা ও পেশিশক্তি আছে, আমাদের পক্ষে আছে জনগণ। জনগণই আমাদের মূল শক্তি।  জোটনেতা শাহাদাত হোসেন সেলিম ও বিএনপি নেতা শাহিদা আক্তার রিতা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এ দিকে তাবিথ আউয়ালের মা নাসরিন ফাতেমা আউয়াল শনিবার কাওলা ও দক্ষিণ খান এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। লিফলেট বিতরণ করে ভোট চান তিনি। এ সময় মহিলা দলের নেতাকর্মীরা তার সাথে ছিলেন।


আরো সংবাদ