১৮ জুলাই ২০১৯

দৃষ্টিপাত : প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি আবেদন

-

দীর্ঘ সাত বছর ধরে পুরান ঢাকার এক বিরাট অংশে খাজনা বা ভূমি উন্নয়ন কর নেয়া বন্ধ হয়েছে। এতে প্রতি বছর সরকার শত শত কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে এবং দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এলাকার পাঁচ হাজার বাড়িঘর ও সম্পত্তির ৩০ লক্ষাধিক মানুষ ও মালিকেরা। বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে হতদরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারসহ এলাকার জনগণ। পুরান ঢাকার সূত্রাপুর, গেন্ডারিয়া, শ্যামপুর, ওয়ারী, কোতোয়ালি এবং এর আশপাশের এক বিরাট এলাকার মানুষের বাড়িঘর, জায়গা-জমি এবং পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ও খরিদা সূত্রের সম্পত্তিকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি মহল খাসমহল রূপে চিহ্নিত করে আদেশ জারি করেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭০ সালের প্রিয় নির্বাচনী এলাকা এটি। সূত্রাপুর মৌজার ৫৪৮ তৌজির ভূমি উন্নয়ন কর বা খাজনা নেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এলাকার মানুষ সম্পত্তি হারানোর ভয়ে উদ্বিগ্ন ও আতঙ্কিত। ভূমিমন্ত্রী, সচিব, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও সহকারী কমিশনারের (কোতোয়ালি) কাছে বিষয়টি বছরের পর বছর ঝুলিয়ে না রেখে মানবিক কারণে একটা সুরাহা বা নিষ্পত্তির জন্য আবেদন ও ধরনা দিয়ে কোনো ফল না পেয়ে নিরুপায় হয়ে শেষ পর্যন্ত আপনার কাছে খোলা চিঠি লিখতে বাধ্য হয়েছি। আপনি জনদুর্ভোগ ও হয়রানি পছন্দ করেন না। তার পরও ভূমি মন্ত্রণালয়ের অহেতুক ঝামেলা, অবহেলা, উদাসীনতা, ভয়ভীতি দেখানো ইত্যাদি থামছে না। ৩০ লক্ষাধিক মানুষ তাদের বাড়িঘর, জাগয়াজমি, সম্পত্তি, ফ্ল্যাট ইত্যাদির নামজারি এবং জমি হস্তান্তর, জমি ক্রয়-বিক্রয় বণ্টননামা, হেবা ইত্যাদি রেজিষ্ট্রি করতে পারছে না। রাজউক কর্তৃক প্লান অনুমোদন এবং নিজ জমিতে ডেভেলপার কর্তৃক ভবন নির্মাণ করাও বন্ধ। এ ছাড়াও ব্যাংক ঋণ দান বন্ধ, ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা। এমনকি, মা-বাবার মৃত্যুর পর ওয়ারিশদের মধ্যে সম্পত্তির ভাগবাটোয়ারা বন্ধ রয়েছে। পুরান ঢাকার জনগণের এসএ, সিএস, আরএস ও মহানগর জরিপে তাদের নামের রেকর্ড রয়েছে। মালিকানার কাগজপত্র ও দলিলাদি থাকা সত্ত্বেও ভূমি মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসকের দফতর ও সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিসের দৌরাত্ম্য থেকে আমাদের বাঁচান।
সব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে মেহেরবানি করে সরকার ও জনগণের স্বার্থে পুরান ঢাকার সূত্রাপুর মৌজার ৫৪৮ তৌজির ভূমির নামজারীকরণ ও খাজনা বা ভূমি উন্নয়ন কর নেয়ার জন্য ভূমি মন্ত্রণালয় বা জেলা প্রশাসক, ঢাকাকে নির্দেশ দেয়ার জন্য আপনার কাছে বিনীত অনুরোধ করছি। হ
মাহবুবউদ্দিন চৌধুরী
সাধারণ সম্পাদক
পুরান ঢাকা নাগরিক কমিটি

 


আরো সংবাদ