২৩ অক্টোবর ২০১৯

 ইছামতি নদীর তীরে ঐতিহ্যবাহী বউ মেলা

 ইছামতি নদীর তীরে ঐতিহ্যবাহী বউ মেলায় ভীড় - নয়া দিগন্ত

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় প্রতিমা বিসর্জন বেলায় ইছামতি নদীর তীরে অনুষ্ঠিত হয়েছে বউ মেলা। প্রতিবছরের ন্যায় এবারো হাজার হাজার নারীর সমাগমে মুখরিত হয়ে ওঠে মেলা প্রাঙ্গন। ধুনট পৌর এলাকার সরকারপাড়ায় ৬৭ বছর ধরে এ মেলা আয়োজন করা হয়। 

মেলা কমিটির তথ্যমতে, ধুনট পৌর এলাকায় সরকারপাড়া গ্রাম ইছামতি নদীর তীরে অবস্থিত। ছাঁয়া সুনিবিড় এ গ্রামে শারদীয় দূর্গা উৎসবের অন্তিম মুহূর্তে এ মেলা বসে। সরকারপাড়া প্রথমনাথ কমল কামিনী দত্ত স্মৃতি পূজা অঙ্গনে ৬৬ বছর যাবত শারদীয় দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়।

পূজা মন্ডপের পাশে ইছামতি নদীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে দুর্গা উৎসবের সমাপ্তি ঘটে। ধুনট সদরের কয়েকটি পূজা মন্ডপের প্রতিমা গুলো বিসর্জনের দৃশ্য দেখতে ভিড় জমায় স্থানীয় জনসাধারণ। আর এ ভিড়কে কেন্দ্র করে ৬৭ বছর যাবত চলছে বউ মেলা। হাজারো নারী-পুরুষের সমাগমের মধ্যে নারীদের কেনাকাটায় স্বাচ্ছন্দ তৈরী করতে মেলা কমিটি শুরু থেকে একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেন। বিসর্জনের দিন দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত মেলার মূল অংশে পুরুষদের প্রবেশ নিষেধ। যার কারণে শুধুমাত্র নারী কেন্দ্রিক হওয়ায় মেলাটি বউ মেলা হিসেবে পরিচিত পায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, নারীদের জন্য উন্মুক্ত মেলার মূল অংশ আয়োজক কমিটির স্বেচ্ছাসেবক, আনছার সদস্য ও পুলিশ সদস্যরা আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া পুরো মেলা ঘিরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত ছিল। এক দিনের এ মেলায় বসে বারোয়ারি দোকান। মেলায় বেচাকেনা হচ্ছে খই, মুড়ি, মুড়কি, বাতাসা, জিলাপি সহ নানা রকমের খাবার। ছিল বাঁশি, বেলুন, ঝুনঝুনি সহ হরেক রকম শিশুতোষ খেলনা। তারা বাঁশিতে পোঁ পোঁ সুর তুলেছে গাল ফুলিয়ে।

দর্শনার্থীদের আনন্দচারণায় মুখরিত মেলা প্রাঙ্গন। মেলা থেকে চুরি, দুল, ফিতা, টিপসহ রকমারি প্রসাধনি কিনছে। হাওয়ায় ভাসা রঙ্গিন বেলুন। নব সাজে বধু’র ঘোমটার ফাঁক দিয়ে উঁকি মারছে সিঁথির সিঁদুর। সনাতন ধর্মের দূর্গা পুজাকে ঘিরে সরকারপাড়ায় উৎসবমুখর পরিবেশ।

সরকারপাড়া সার্বজনিন দূর্গা উৎসব কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনন্দ সরকার বলেন, প্রতি বছরই প্রতিমা বিসর্জন উপলক্ষে এ মেলার আয়োজন করা হয়। ঐতিহ্য বজায় রেখে এবারও বউ মেলা অসাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

 


আরো সংবাদ