২৬ জানুয়ারি ২০২০

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত অর্ধশত - ছবি : নয়া দিগন্ত

সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের বিজয় র‌্যালিকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কলেজের শিক্ষার্থীসহ উভয় দলের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ২৫ জনকে সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে ১১ জনের অবস্থা গুরুতর। এ ঘটনায় শহরে রাজনৈতিক অঙ্গনে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

রোববার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সিরাজগঞ্জ সরকারী কলেজ থেকে সদর আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না, কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক টিএম সোহেলের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা ও প্রায় ছয় হাজার শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিজয় র‌্যালিটি বের হয়। র‌্যালিটির প্রথম ভাগ প্রায় এক কিলোমিটার দূরে ইলিয়ট ব্রীজের উপর পৌঁছালে বিএনপি অফিসের সামনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রায় দেড় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে শিক্ষার্থীসহ উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়। পুলিশ ১১ রাউন্ড টিয়ার গ্যাসসহ ২৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষ চলাকালে বিএনপি অফিসে অগ্নি সংযোগ করা হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এছাড়া সংঘর্ষ চলাকালে বিএনপি অফিসের পাশে অগ্রণী ব্যাংকসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে হামলা করা হয়।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রিয়াজ উদ্দিন জানান, সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্নার নেতৃত্বে শান্তিপূর্ন বিজয় র‌্যালিটি ইবি রোড এলাকায় পৌঁছলেই পেছন দিক থেকে অর্তকিতভাবে হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীরা। এতে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নাসিম রেজা নুর দীপু,জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি মামুনুর রশিদ, ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রাসেল, যুবলীগ কর্মী সালমান, শামীম, শুকুরসহ অন্তত ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

সংঘর্ষের সময় দেয়া বিএনপি অফিসের আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করছেন দমকল কর্মীরা 

তবে জেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক হারুন অর রশিদ হাসান আওয়ামী লীগের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, বিজয় র‌্যালিতে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা হামলা করেনি। তবে সংঘর্ষে বিএনপি’র ২০/২৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এর মধ্যে জেলা বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক হিটলারের অবস্থা আশংকাজনক। তাকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি অফিসে আগুন দিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। বিএনপির অপর এক নেতা জানান, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পৌর ভাষানী মিলনায়তন প্রাঙ্গনে বিএনপির সমাবেশ চলাকালে আওয়ামী লীগের কর্মীরা প্রথমে ঢিল ছুড়লে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু ইউসুফ জানান, সাড়ে ১১টার দিকে ইবি রোডে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশ টিয়ারসেল,রাবার বুলেট নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু দাউদ সহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয় বলে তিনি জানান। তিনি জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।

অপরদিকে রোববার দুপুরে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের পক্ষ থেকে সংবাদ সন্মেলন করা হয়। কলেজ চত্বরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক টিএম সোহেল এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন।


আরো সংবাদ