২৩ আগস্ট ২০১৯

পাটগ্রামে পৃথক নদী থেকে ২ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ধরলা নদী থেকে সোমবার রাতে এক যুবকের ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। নিহত যুবকের নাম আজিম মিয়া (২৫)। তিনি বুড়িমারী ইউনিয়নের ইসলামপুর ডাঙ্গাপাড়া এলাকার আব্দুর রউফের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, নিহত আজিম সীমান্তে ভারতীয় গরু পারাপারের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ভারতীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় তিনি রাখালের দায়িত্ব পালন করতেন। গত শনিবার রাতে প্রচন্ড ঝড়ের মধ্যে তিনি ভারত থেকে গরু আনতে সীমান্তে যান। ধারণা করা হচ্ছে, এ সময় বিএসএফের ধাওয়া খেয়ে আজিম নদীতে ঝাপ দিলে তলিয়ে যায়। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তাকে কোথাও পাওয়া যায়নি। এলাকাবাসী সোমবার বিকেলে তার লাশ ধরলা নদীতে ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ রাতে নদী থেকে তার লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এদিকে গত রোববার উপজেলার পার্শ্ববর্তী সানিয়াযান নদী থেকে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ জহুরুল ওরফে জহির (৩২) নামে অপর এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে। নিহত জহির নীলফামারী জেলার ডিমলা থানার পশ্চিম খড়িবাড়ি গ্রামের আফাজ মিয়ার ছেলে।

হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নিহত জহির ভারতীয় গরু পারাপারকারী ছিল। গত ১১ জুলাই তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। চার দিনের মাথায় তার লাশ নদীতে পাওয়া যায়।

পুলিশের ধারণা বিএসএফের ধাওয়া খেয়ে হয়তো তিনি নদীতে ঝাপিয়ে পড়েন। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন ছিল। এর আগে গত ৬ জুলাই রাতে বুড়িমারী সীমান্তে ভারত থেকে গরু আনার সময় বিএসএফের গুলিতে এরশাদুল (৩২) নামে আর এক যুবকের মৃত্যু হয়।

পাটগ্রাম থানার ওসি মনসুর আলী সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, নিহত আজিম মিয়ার লাশ মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আরো সংবাদ